শিরোনাম
ডেউয়াতলী গ্রামের মরহুম মোঃ কোব্বাদ খান ও মান্নান চৌধুরী পরিবারবর্গকে নিয়ে সফিউল্লা খন্দকারের মানহানিকর বক্তব্যের প্রতিবাদ পলাশ শিল্পাঞ্চল সরকারি কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারিদের বিক্ষোভ বাস্তবময় জীবনের বাস্তবতা…অনামিকা চৌধুরী রু লাকসামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন : প্রায় ৭লাখ টাকার ক্ষতি মুরাদনগরে সাব-রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ের অভ্যন্তরীন প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতু আমাদের জাতিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সুযোগ করে দিয়েছে দীঘিনালায় জেলেদের মাঝে ছাগল বিতরণ গোমস্তাপুরে চাঞ্চল্যকর কুলুলেস ‍‍`মেহেরুল‍‍` হত্যা মামলার আসামি আটক তরুন উদ্যোক্তা নাসিমা জাহান বিনতী’র গ্লোবাল ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড অর্জন পলাশে চাচীর সাথে পরকিয়া করতে গিয়ে প্রেমিকের হাতের কব্জি কর্তন
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

ইচ্ছে শক্তিকে কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী এক তরুণী গৃহবধূ

Muktir Lorai / ১৪৫ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০

প্রসেনজিৎ দাস,আগরতলাঃ: কথায় আছে ইচ্ছে থাকলে কি না করা যায়। নিজের ইচ্ছে শক্তিকে কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী এক তরুণী।
ইচ্ছা থাকলে স্বনির্ভর হওয়া হয়তো এতটা কঠিন না । যা আবার প্রমাণিত করে দিলো তরুণী গৃহবধূ শম্পা পাল বিশ্বাস। নাম শম্পা পাল বিশ্বাস বাড়ি দক্ষিণ জেলার বাইখোরাতে । উনি বাড়িতে মোবাইলে ইউটিউব দেখে সুতার তৈরি বিভিন্ন ফুল বানানোর কাজ শিখেছে। আজ তিনি স্বাবলম্বী। এখন রোজ মাতার বাড়িতে এসে এক থেকে দুই হাজার টাকার উপরে ইনকাম করতে পারে বলে জানালেন সংবাদ প্রতিনিধিদের। জানা যায়, বিগত দিনগুলোতে আর্থিক দিক দিয়ে ব্যাপক দৈন্যদশার শিকার ছিল ওই পরিবার। পরে নিজের হাতে কিছু করার বিষয়ে উদ্যোগী হন শম্পা। তবে কিভাবে কাজ করবেন তা বুঝে উঠতে পারছিলেন না। তখন সহায়তা নেওয়া হয় ইউটিউব এর। এই সামাজিক মাধ্যমের সহায়তায় সুতার সাহায্যে বিভিন্ন সামগ্রী বানানোর কাজ শিখেন এই মহিলা। পরে বাস্তবেও এই কাজ করে তোলার প্রতি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন তিনি। সেই মোতাবেক কাজও শুরু করেন তিনি। তারপর আর কি , এক পা দু পা করে সাধারণ কাজ স্বাবলম্বী করে তুললো এই তরুণী গৃহববধূকে। এখন তো প্রায় প্রতিদিনই হাজার দেড় হাজার টাকার কাছাকাছি রোজগার করতে পারছেন তিনি। নিজের সাথে অন্যান্য বেকার মহিলাদের কাজ শিখছেন এই তরুণী গৃহবধূ।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »