বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

উল্লাপাড়ায় স্বেচ্ছায় রাস্তা সংস্কার

Muktir Lorai / ৮২ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১

মোঃ শাহাদত হোসেন, সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বড়হর ইউনিয়ন সড়াতৈল মাদ্রাসা হতে চড়বাগধা গ্রামের একটি ক্ষতিগ্রস্ত চলাচল অনুপযোগী একটি সড়ক সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় যুবকরা। স্বেচ্ছাশ্রমে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল পযর্ন্ত সড়কের মেরামতের কাজ শুরু করেছে এলাকার যুবকরা।

জানা যায়, উল্লাপাড়া উপজেলার চড়বাগধা থেকে সড়াতৈল মাদ্রাসা পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা। দশ গ্রামের লোকজন চলাচল করে এই রাস্তা দিয়ে। প্রতিদিন কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পোষ্ট অফিস হাট বাজারের হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে এই রাস্তাটি দিয়ে। দীর্ঘদিন যাবৎ সংস্কার না করায় রাস্তাটি চলাচলের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারের কাছে দীর্ঘদিন ধর্ণা দিয়েও ফল পাননি গ্রামবাসী। অবশেষ গ্রামবাসী চাঁদা তুলে ও স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তাটি সংস্কার করেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, ২৫-৩০ জন যুবক রাস্তা সংস্কারের কাজ করছেন। ট্রাক থেকে ইট পাথর নামিয়ে গর্ত স্থানে ছড়িয়ে দেন । তাঁদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘদিন রাস্তাটিতে সরকারিভাবে কোনো সংস্কারকাজ করা হয়নি। বিভিন্ন স্থানে মাটি ধসে রাস্তা ভেঙে গেছে। অনেক স্থানে বড় বড় গর্ত। বৃষ্টি হলে সেখানে পানি জমে। চলাচলে সীমাহীন ভোগান্তি পোহাচ্ছে এলাকাবাসী। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছে মাদ্রাসা স্কুল কলেজে পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা ও কৃষকেরা। স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা বৃষ্টির দিনে কাদায় পড়ে গিয়ে বই পুস্তক নষ্ট হয়ে যায়। কৃষকরা তাদের ফসল ওই রাস্তা দিয়ে ঘরে তুলতে পারছেন না। মালবাহী গাড়ি চলাচলের সময় চাকা গর্তে আটকে গিয়ে উল্টে যায়। দীর্ঘদিন যাবৎ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে ঘুরেও কোন ফল না পেয়ে। গ্রামের যুবকরা উদ্যোগ নিয়ে রাস্তাটি সংস্কার শুরু করেন।

এ বিষয়ে রাস্তা সংস্কারকারী আব্দুর রাজ্জাক তালুকদার বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ রাস্তাটির বেহাল দশা। সামান্য বৃষ্টিতে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে হাটু পরিমান পানি জমা হয়।কাদা পানিতে কষ্টে চলাচল করতে হয় এ অঞ্চলের মানুষের। জন প্রতিনিধিরা কথা দিলেও তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় গ্রামের সবাই সাধ্যমতো চাঁদা দিয়েছেন। প্রায় ৩০ হাজার টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। সেই টাকা দিয়ে কাজ শুরু করা হচ্ছে। এ ছাড়া সবাই শ্রম দিয়ে সংস্কারকাজে অংশ নিয়েছেন। এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি পুরোপুরি সংস্কারের জন্য প্রতিনিধিদের সু-দৃষ্টি দরকার।

এলাকার যুবকরা জানান, অনেকদিন ধরে জনপ্রতিনিধিসহ অনেকের কাছে রাস্তাটি সংস্কারের দাবি জানিয়েছি। ভোটের আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কিন্তু ভোটের পরে আর কেউ খোঁজ রাখেনি। তাই নিজেরাই উদ্যোগটা নিয়ে রাস্তাটি সংস্কার শুরু করেছি।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »