শিরোনাম
খুলনায় দুই খালাতো বোনকে গন-ধর্ষণের অভিযোগে আটক-৩ পাথরঘাটা অস্বাভাবিক আকৃতি নিয়ে শিশুর জন্ম শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ দাউদকান্দিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় সাংবাদিক গুরুত্বর আহত বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই… কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক লাকসামে রোবটিক্স ও প্রোগ্রামিং রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কর্মশালা বালিয়াডাঙ্গীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে দুদকে তলব কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী রিফাত ও বর্তমান মেয়র সাক্কুসহ ৬ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ নারীদের রাজনৈতিক নাগরিক সচেতনতা কার্যক্রম সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় হাসপাতালের নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

চতুর্থ স্ত্রীর আঙ্গুল কেটে দিল বিয়ে পাগল স্বামী

Muktir Lorai / ২৪১ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার, ১২ আগস্ট, ২০২১

সাইফুল্লাহ নাসির, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ
পঞ্চম বিয়েতে সম্মতি না দেয়ায় চতুর্থ স্ত্রী সালমা বেগমকে (৩৫) কুপিয়ে হাতের আঙ্গুল কেঁটে দিয়েছে বিয়ে পাগল স্বামী মোকলেস মাতুব্বর। পুলিশ বিয়ে পাগল মোকলেসকে গ্রেফতার করে আজ (বুধবার) আদালতে মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার রাতে উপজেলার পাতাকাটা গ্রামে ।

পুলিশ ও আহত স্ত্রীর স্বজনরা জানায়, উপজেলার পাতাকাটা গ্রামের হাতেম আলী মাতুব্বরের পুত্র মোকলেস মাতুব্বর এ পর্যন্ত চারটি বিয়ে করেছেন। বিয়ে পাগল এই ব্যক্তি সর্বশেষ চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে চতুর্থ স্ত্রী হিসেবে পটুয়াখালী জেলার বোতলবুনিয়া গ্রামের মোনসেফ সিকদারের কন্যা সালমাকে বিয়ে করেন। বিয়ে করার সময় স্ত্রী সালমাকে ৮ শতাংশ জমি লিখে দেয় স্বামী মোকলেস। সম্প্রতি তিনি আবার পঞ্চম বিয়ে করার উদ্যোগ নিয়ে চতুর্থ স্ত্রীর কাছে সম্মতি ও তাকে দেওয়া জমির বিক্রি করে টাকা দাবী করেন। চতুর্থ স্ত্রী সালমা সম্মতি ও টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী মোকলেস স্ত্রী বাড়ীতে না থাকার সুযোগে গত বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ঘরের সিদ কেঁটে শ^শুর বাড়ীর দেয়া সমুদয় মালামাল চুরি করে নিয়ে যান। এরপর গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে স্ত্রী সালমা বাড়ীতে এসে ঘরে মালামাল না পেয়ে স্বামী মোকলেসের কাছে জানতে চায়। তিনি এর কোন স্ব-উত্তর না দিয়ে বিয়ের সম্মতি, টাকা ও মালামাল নিয়ে কয়েক দফায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে ওইদিন রাত ানুমান ১০টার দিকে স্বামী মোকলেস ক্ষিপ্ত হয়ে স্ত্রীকে সালমাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলী কেঁটে বিছিন্ন করে দেয়।

সংবাদ পেয়ে স্বজনরা দ্রæত তাকে উদ্ধার করে রাত ১১টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ মোঃ শাহাদাত হোসেন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে সেখানেই তিনি ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। স্বজনরা ওইদিন রাতেই বিয়ে পাগল মোকলেসকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

এ ঘটনায় আজ বুধবার আহত স্ত্রী সালমার পিতা মোনসেফ সিকদার বাদী হয়ে স্বামী মোকলেসকে আসামী করে আমতলী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ তাকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আজ বুধবার দুপুরে উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক তাকে জেল হাজতে পাঠনোর নির্দেশ দেয়।

স্ত্রী সালমা বেগম মুঠোফোনে বলেন, আমার স্বামী আবার বিয়া করার জন্য আমার কাছে সম্মতি ও জায়গা-জমি বিক্রি করে টাকা চায়। আমি এতে রাজি না হওয়ায় আমাদের ঘরে থাকা সকল মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। আমি এর প্রতিবাদ করায় ধাড়ালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আমার আঙ্গুল কেঁটে দিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন স্বজন বলেন, বিয়ে পাগল মোকলেস এ পর্যন্ত চারটি বিয়ে করেছে। পুরঃনায় আবার বিয়ে করতে উদ্যোগ নেয়। এতে স্ত্রী সালমা সম্মতি না দেয়ার তাকে কুপিয়ে আহত করেছে। মোকলেসের এমন কার্মকান্ডে পরিবারের লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে তাকে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ আবদুল মুনয়েম সাদ বলেন, সালমা বেগমের ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গলি কেঁটে ফেলেছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

আমতলী থানার পরিদর্শক (ওসি) মোঃ শাহ আলম হাওলাদার মুঠোফোনে বলেন, স্ত্রীকে কুপিয়ে আঙ্গুল কেঁটে দেওয়ার ঘটনায় স্বামী মোকলেস মাতুব্বরের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাকে আজ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »