বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

দৈনিক মুক্তির লড়াই মানুষের কথা বলে : প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বক্তারা

Muktir Lorai / ১০৯ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার, ১০ মে, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টারঃ দৈনিক মুক্তির লড়াইর প্রথম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন পত্রিকাটি বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতাকে পুঁজি করে এগিয়ে যাচ্ছে। পত্রিকাটির প্রধান সম্পাদক ও জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটির চেয়ারম্যান প্রফেসর মু. নজরুল ইসলাম তামিজীর সভাপতিত্বে রাজধানীর শিশুকল্যাণ পরিষদ ভবনস্থ বাংলাদেশ সরকারী কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ মিলনায়তনে গত মঙ্গলবার দুপুর ১টায় কেক কাটা, আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল বলেন, দেশের উন্নয়নে গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। দেশপ্রেমিক সুনাগরিক হিসেবে নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলতে গণমাধ্যমেকে ইতিবাচক সাংবাদিকতা করার জন্য তিনি আহŸান জানান। দৈনিক মুক্তির লড়াই সম্পাদক ও প্রকাশক কামরুজ্জামান জনি প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে পত্রিকাটিকে ঢেলে সাজানোর চেষ্টা করেছি। দীর্ঘদিনের লড়াই শেষে পত্রিকাটি সাপ্তাহিক থেকে দৈনিকে রূপান্তরিত হয়েছে। আমরা ইতিবাচক সাংবাদিকতাকে পুঁজি করে পথ চলতে চাই। সভাপতির বক্তব্যে মানবাধিকার তাত্তি¡ক প্রফেসর মু. নজরুল ইসলাম তামিজী বলেন, আদিকাল থেকে মুক্তির লড়াই চলছে। মানুষের অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় দৈনিক মুক্তির লড়াই কার্যকরী রাখবে বলে তিনি প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক প্রেজেন্ট টাইম্স পত্রিকার প্রধান সম্পাদক ওমর ফারুক জালাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ আউয়াল, মানবাধিকার কর্মী দুলাল মিয়া, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মো আলমগীর কবির প্রমুখ। বক্তব্য রাখেন মুক্তির লড়াই বার্তা সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সুমন, মানবাধিকারকর্মী অভিনেতা এবি বাদল, সাংবাদিক নাজমুল হাসান মিলন, বিএম মহসিন প্রমুখ। আলোচনা শেষে কেক কাটা, দেশ ও জাতীর সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

একই দিনে খুলনা, রাজশাহী, কুমিল্লা, ঝিনাইদহ, বরুড়া, লাকসাম, গোমস্তাপুর সন ২০টি স্থানে বর্ষপূর্তি উদযাপন করা হয়।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »