শিরোনাম
খুলনায় দুই খালাতো বোনকে গন-ধর্ষণের অভিযোগে আটক-৩ পাথরঘাটা অস্বাভাবিক আকৃতি নিয়ে শিশুর জন্ম শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ দাউদকান্দিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় সাংবাদিক গুরুত্বর আহত বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই… কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক লাকসামে রোবটিক্স ও প্রোগ্রামিং রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কর্মশালা বালিয়াডাঙ্গীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে দুদকে তলব কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী রিফাত ও বর্তমান মেয়র সাক্কুসহ ৬ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ নারীদের রাজনৈতিক নাগরিক সচেতনতা কার্যক্রম সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় হাসপাতালের নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

বালিয়াডাঙ্গীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেনাবাহিনীর সদস্যকে মারপিট

Muktir Lorai / ৮৯ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১

মোঃ ইলিয়াস আলী, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার আমজানখোর ইউনিয়নের রত্নাই মাহাতবস্ত্রী গ্রামে ছাগলের বাচ্চা কাঠালের বিচি খাওয়া কে কেন্দ্র করে সেনাবাহিনীর এক সদস্য কে পিটিয়ে রক্তাক্ত করা হয়েছে।এতে আহত হয়েছেন ৪ জন।

গত বৃহস্পতিবার বিকালে আমজানখোর ইউনিয়নের রত্নাই মাহাতবস্ত্রী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ঘটনা সূত্রে জানা যায়, ছাগলের বাচ্চা কাঠালের বিচি খাওয়ার ঘটনাকে কে কেন্দ্র দুপক্ষের মধ্য কথাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রহিম ও তার ছেলে রাজু, ইয়াছিন, মহসিন নাজমুল, সীমা ক্ষিপ্ত হয়ে সেনা সদস্য হায়দার ও তার ভাই মোস্তাফিজুর, জাহাঙ্গীর এবং তার স্ত্রী নাসিমা সহ তার পরিবারের সদস্যদের কে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে সেনাবাহিনীর সদস্য হায়দার ও তার পরিবারের সদস্যদের মাথা ফেটে যায় এবং বিভিন্ন অংশে যখম করে। এতে সেনা সদস্য হায়দার তার ভাই মোস্তাফিজুর, জাহাঙ্গীর এবং স্ত্রী নাসিমা সহ গুরুতর আহত অবস্থায় মাটিতে পরে থাকেন। কেউ তাদের কে হামলাকারীদের ভয়ে হাসপাতালে ভর্তি না করলে স্হানীয়রা ইউপি চেয়ারম্যান কে খবর দেন। পরে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় তাদের কে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

আহত সেনা সদস্য হায়দার আলী জানান, আমি ঘর থেকে খারাপ ভাষায় গালিগালাজ শুনতে পেলে বের হয়ে এসে দেখি আমার চাচা রহিম আমার স্ত্রী সন্তানকে গালিগালাজ করছে এবং তার বাকি ভাইদের হামলার উদ্দেশ্যে ফোন করে ডেকে নেয়। তারা তাৎক্ষণিকভাবে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র ও লাঠিসোঁটা রোড নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে আমাদের উপর আক্রমণ চালায়। আমার উদ্বর্তন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। এ ঘটনার আমি সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচার ও আমার পরিবারের নিরাপত্তা চাই।

অপর পক্ষে রহিমের স্ত্রী জয়গুন জানান, হায়দার ও তার স্ত্রী আমার মেয়ের চুল ধরে টানাটানি ও মারপিট করলে আমরা তাদের কে প্রতিহত করি।

এ ঘটনায় আমজানখোর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আকালু ডংগা জানান, মারামারির ঘটনা আমাকে ফোন করে জানালে আমি ও উপজেলা চেয়ারম্যান তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনা স্থলে যাই। সেখানে দেখি সেনা সদস্য হায়দার ও তার পরিবারের সদস্যরা রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পরে আছে। আমি স্হানীয় লোকজনের সহযোগিতায় হায়দার ও তার পরিবারের সদস্যদের কে উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়িতে করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করি।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »