বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

যেসব ক্লান্তি ও হতাশায় গোনাহ মাফ হয়

Muktir Lorai / ১৬১ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শনিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২০

যিনি মহান রবের সন্তুষ্টি পেয়ে যান, দুনিয়ার সব কিছুই তার জন্য হয়ে যায়। মুমিনের সবচেয়ে বড় পাওয়া এটি। এ কারণেই মুমিনের ছোট ছোট কষ্টগুলোও গোনাহ মাফ এবং সাওয়াব লাভের কারণ হয়ে যায়। হাদিসে পাকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মুমিন বান্দার ছোট ছোট কষ্ট ও দুঃখ-বেদনার প্রাপ্তি সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু সাঈদ খুদরি ও আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহুমা বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘মুসলিম ব্যক্তির উপর যে-

– ক্লান্তি,

– রোগ-ব্যাধি,

– উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ও দুশ্চিন্তা এবং

– কষ্ট ও পেরেশানি আসে;

– এমনকি যদি তার দেহে একটি কাঁটাও বিঁধে তাতেও ওই বান্দার গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।’ (বুখারি, মুসলিম)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, সব সময় ছোট কিংবা বড় সব দুঃখ-বেদনা, হতাশা, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা কিংবা যে কোনো ছোট-বড় অসুস্থতা ও দুর্ঘটনায় মহান আল্লাহর ওপর ভরসা করা। প্রশান্তি ও সুস্থতা লাভে ধৈর্যধারণ করা। গোনাহ মাফের আশা করা। তবেই মহান আল্লাহ তাঁর বান্দার গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে গোনাহ থেকে মুক্তি লাভে উল্লেখিত বিষয়ের ক্ষেত্রে ধৈর্যধারণ ও তাঁর ওপর ভরসা করার তাওফিক দান করুন। হাদিসের ঘোষণা অনুযায়ী মুমিন মুসলমানকে ক্ষমা করুন। আমিন।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »