শিরোনাম
ডেউয়াতলী গ্রামের মরহুম মোঃ কোব্বাদ খান ও মান্নান চৌধুরী পরিবারবর্গকে নিয়ে সফিউল্লা খন্দকারের মানহানিকর বক্তব্যের প্রতিবাদ পলাশ শিল্পাঞ্চল সরকারি কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারিদের বিক্ষোভ বাস্তবময় জীবনের বাস্তবতা…অনামিকা চৌধুরী রু লাকসামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন : প্রায় ৭লাখ টাকার ক্ষতি মুরাদনগরে সাব-রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ের অভ্যন্তরীন প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতু আমাদের জাতিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সুযোগ করে দিয়েছে দীঘিনালায় জেলেদের মাঝে ছাগল বিতরণ গোমস্তাপুরে চাঞ্চল্যকর কুলুলেস ‍‍`মেহেরুল‍‍` হত্যা মামলার আসামি আটক তরুন উদ্যোক্তা নাসিমা জাহান বিনতী’র গ্লোবাল ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড অর্জন পলাশে চাচীর সাথে পরকিয়া করতে গিয়ে প্রেমিকের হাতের কব্জি কর্তন
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

সংঘর্ষের ৩ বছর পর মামলা, মেয়র আইভীর ভাই-ভাগিনাসহ আসামি ১৭

Muktir Lorai / ৯২ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২০

নারায়ণগঞ্জে হকার ইস্যুতে সংঘর্ষের ঘটনার প্রায় তিন বছর পর জেলা আদালতে মামলা করেছেন ওই ঘটনায় আহত ব্যবসায়ী ও যুবলীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খান। মামলায় সিটি করপোরেশনের মেয়র আইভী রহমানের ছোট ভাই মহানগর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী রেজা উজ্জল, ভাগিনা মিনাজুল কাদির মিমন, কয়েকজন কাউন্সিলর ও ঠিকাদারসহ ১৭ জনকে আসামি করা হয়েছে।

হকার ও সিটি মেয়র আইভী রহমানের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত যুবলীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খান ঘটনার প্রায় তিন বছর পর আদালতের দ্বারস্ত হলেন।
নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে রোববার (২০ ডিসেম্বর) অভিযোগটি জমা দিয়েছেন নিয়াজুল ইসলাম।
সোমবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালত নিয়াজুলের অভিযোগটি আমলে নিয়ে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে তদন্ত করার আদেশ দিয়েছেন। আদালত একই সাথে আগামী ২০২১ সালের ২২ মার্চ মামলাটির পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন।
সোমবার সময় নিউজকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করে আদালত পুলিশের পরিদর্শক (কোর্ট ইন্সপেক্টর) মো. আসাদুজ্জামান বলেন, আদালত মামলার আবেদনের বিষয়টি সদর থানার ওসিকে তদন্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন মেয়র আইভীর ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত জেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ঠিকাদার আবু সুফিয়ান, ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও যুবদল নেতা মাকসুদুল আলম খোরশেদ, ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কবির হোসেন, ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হান্নান সরকার, মেয়র আইভী রহমানের ছোট ভাই মহানগর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী রেজা উজ্জল, ভাগিনা মিনাজুল কাদির মিমন, মহানগর যুবলীগের সহ-সভাপতি ও ঠিকাদার কামরুল হুদা বাবু, যুবদল নেতা সরকার আলম, হাজী নেওয়াজ, সৈকত মেম্বার, মোতালেব, ফারুক, লিপু, মাহাবুবুর রহমান মাসুম ও অপু।
২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি শহরের ফুটপাত ইস্যুতে হকারদের সঙ্গে সিটি মেয়র আইভী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সেদিন নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে যাওয়ার পথে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের পূর্বপাশে অভিজাত শপিং মল সায়াম প্লাজা মার্কেটের সামনে ব্যবসায়ী নিয়াজুল ইসলামের উপর হামলা করে অভিযুক্ত আসামীরা। এ সময় আত্মরক্ষার্থে নিয়াজুল তার সাথে থাকা লাইসেন্স করা অস্ত্র প্রদর্শন করলে এলোপাতাড়ি মারধর করে আহত করা হয় তাকে। এ ঘটনায় খোয়া যায় নিয়াজুলের লাইসেন্স করা অস্ত্রটি। সে সময় তিনিও দাবি করেন, মারধর করার সময় তার অস্ত্রটি ছিনিয়ে নেয়া হয়েছিল। তবে এর বেশ কিছুদিন পরে নিয়াজুলের খোয়া যাওয়া সেই অস্ত্রটি বঙ্গবন্ধু সড়কের পূর্বপাশে গীর্জার সামনে ফুলের টবের উপর থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে সদর মডেল থানা পুলিশ।
তবে সংঘর্ষ ও হামলার ওই ঘটনার পরদিন ১৭ জানুয়ারি মেয়র আইভীর ছোট ভাই, সিটি কর্পোরেশনের কয়েকজন কাউন্সিলর, ঠিকাদার ও সমর্থকসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে অস্ত্র ছিনতাই ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ তুলে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন নিয়াজুল ইসলাম। তবে পুলিশ সে সময় সেটি অভিযোগ হিসেবে গ্রহণ না করে জিডি হিসেবে লিপিবদ্ধ করেছিলো।
এদিকে ঘটনার প্রায় তিন বছর পর গত ২০ ডিসেম্বর (রোববার) নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালতে জমা দেয়া আর্জিতে উল্লেখ করা হয়, মারাত্মক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বেআইনী সমাবেশের সদস্যরা ব্যবসায়ী নিয়াজুল ইসলাম খানকে ইচ্ছাকৃতভাবে মারধর করে ২ লাখ টাকা ও ১ ভরি স্বর্ণ লুট করে। এ ঘটনায় আদালতে ১৪৩, ১৪৪, ১৪৯, ৩২৩, ৩২৬, ০০৭ ও ৪৩ ধারায় অভিযোগ করা হয়েছে।
এ বিষয়ে সোমবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে আদালতে বাদিপক্ষের আইনজীবী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট মহসিন মিয়ার কাছে জানতে চাইলে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। আদালতের নির্ধারিত সময় শেষে বিকেল থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে জানতে সোমবার রাতে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ জামানের সাথে যোগাযোগ করলে সময় নিউজকে বলেন, এখন পর্যন্ত আমি আদালত থেকে এ ধরণের কোন নির্দেশনা পাইনি। নির্দেশনা পেলে সে অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সময় নিউজ।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »