শিরোনাম
বরগুনার ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তদন্ত কমিটি গঠন পঞ্চগড়ে সারের জন্য দীর্ঘ লাইন, ফিরে যাচ্ছেন অনেকেই বাগেরহাটে সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কর্তৃক জাতীয় শোক দিবস পালিত বোদায় ইউএনওর ফোন নম্বর ক্লোন করে প্রতারণার চেষ্টা ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত রূপসায় শ্রমীক নেতা আবুল হোসেনের স্বরণসভা ও দোয়া অনুষ্টিত বরগুনায় ছাত্রলীগের উপর পুলিশের বেধড়ক মারধর এর প্রতিবাদে আমতলীতে বিক্ষোভ বরগুনায় ছাত্রলীগকে পেটানো পুলিশ কর্মকর্তাকে ডিআইজি কার্যালয়ে সংযুক্ত টাঙ্গাইলে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে সিএনজির ধাক্কায় দুজন নিহত কুমিল্লায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে ৭ রাইস মিলকে জরিমানা
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও নির্মিত হয়নি লাকসামের আজগরা বাজার গণহত্যার স্মৃতিস্তম্ভ

Muktir Lorai / ১২৮ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০

মাসুদ পারভেজ রনি, লাকসাম প্রতিনিধিঃ
১৯৭১ সালের ৬ এপ্রিল মঙ্গলবার বিকাল বেলা। কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার আজগরা বাজার। আজগরা ধান বিক্রির জন্য বাজারটি প্রসিদ্ধ ছিলো। তখন আজগরা, উত্তরদা ইউনিয়ন এবং নাঙ্গলকোট উপজেলার কিছু গ্রামের মানুষ এখানে বাজার করতো। সেদিন ছিলো হাটবার। বাজারে উপচেপড়া ভিড়। হঠাৎ মাথার উপর দিয়ে উড়ে গেলো পকিস্তানী দুইটি যুদ্ধ বিমান। মিনিট খানেক সময় পরেই আবার ফিরো এলো বিমান দুইটি। বাজারে বোমা ফেলা হলো। ধ্বংসলীলা নেমে এলো আজগরা বাজারে। যে যার মতো ছুটতে লাগলো চার দিকে। মুহূর্তে খালি হয়ে গেল বাজার। বীভৎস লাশ হয়ে মাটিতে পড়ে রইলো অর্ধশতাধিক মানুষ। আহত হলো দুই শতাধিক। হাত-পা বিহীন অনেকেই এখনো বেঁচে আছেন। এ দৃশ্যগুলো বর্ণনা করেন আজগরা বাজারের বর্ষিয়ান ব্যবসায়ী রমজান আলী। ৭৬ বছর বয়সের রমজান আলী তখন তরুণ। তার দোকানের এক‘শ গজ সামনেই আজগরা তরকারি বাজারে এ বর্বর হত্যাকান্ড ঘটে।
স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও সেখানে কোনো স্মৃতিস্তম্ভ হয়নি। নিহত ও আহতদের পরিবারের খোঁজ কেউ নেয়নি। এতগুলো মানুষের মৃত্যুদিনে কেউ স্মরণ সভারও আয়োজন করেনি। দক্ষিণ-পূর্ব লাকসামে আজগরা বাজারের বোমা ফেলার ঘটনা মানুষ আজো ভুলেনি।
নিহতদের একজন ওই ইউনিয়নের পাওতলী গ্রামের সাদেক হোসেন। তিনি ওই গ্রামের রমজান আলীর ৪ ছেলে ৩ মেয়ের সবার ছোট ছিলেন। তার ভাই মোবারক হোসেন (৭০) জানান, তার মৃত্যুর পর স্ত্রী চলে যায়। তার ভাইয়ের স্মৃতিচিহ্ন বলে কিছু নেই।
নিহতদের আরেকজন কালিয়া চৌঁ গ্রামের আলী আশ্রাফের স্ত্রী আয়েশা খাতুন জানান, ২ ছেলে ৫ মেয়ে রেখে তিনি মারা যান। খেয়ে না খেয়ে তাদের বড় করেছি। কেউ কোনো দিন আমাদের খবর নেয়নি।
আরেকজন আহত কালিয়া চৌঁ গ্রামের রমজান আলী। তিনি মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।
লাকসাম উপজেলার মুক্তিযুদ্ধকালীন প্লাটুন কমান্ডার আবুল হোসেন ননী জানান, আজগরায় পাক-হায়েনাদের বোমা হামলায় অনেক মানুষ হতাহত হয়েছে। সেখানে একটি স্মৃতিস্তম্ভ গড়ে তোলা উচিত।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »