শিরোনাম
খুলনায় দুই খালাতো বোনকে গন-ধর্ষণের অভিযোগে আটক-৩ পাথরঘাটা অস্বাভাবিক আকৃতি নিয়ে শিশুর জন্ম শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ দাউদকান্দিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় সাংবাদিক গুরুত্বর আহত বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই… কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক লাকসামে রোবটিক্স ও প্রোগ্রামিং রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কর্মশালা বালিয়াডাঙ্গীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে দুদকে তলব কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী রিফাত ও বর্তমান মেয়র সাক্কুসহ ৬ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ নারীদের রাজনৈতিক নাগরিক সচেতনতা কার্যক্রম সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় হাসপাতালের নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

চুয়াডাঙ্গা শহীদ দিবস আজ

Muktir Lorai / ৪২৩ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ আজ ৫ আগষ্ট চুয়াডাঙ্গা শহীদ দিবস। চুয়াডাঙ্গা জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এ দিনটি মর্মান্তিক বেদনাদায়ক ও অন্যতম স্মরণীয় দিন।

আজ থেকে ৫১ বছর আগে ১৯৭১ সালের আজকের এই ৫ আগষ্টে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুখোমুখী যুদ্ধে চুয়াডাঙ্গার অকুতভয় টগবগে তরুণ আট বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। এই দিনে জেলার দামুড়হুদা উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামে পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে একটানা পৌণে ৩ ঘন্টাকাল সম্মূখ যুদ্ধ করে শহীদ হন ৮ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা। দেশ স্বাধীনের পর আট শহীদের আত্মত্যাগকে স্মরণ করে দিবসটিকে চুয়াডাঙ্গা জেলার ‘স্থানীয় শহীদ দিবস’ নামে আখ্যায়িত করে প্রতি বছরই স্মরণীয় এই বেদনাময় দিনে নানান কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালন করা হয় দিবসটি।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের ৫ আগষ্ট ছিল বৃহস্পতিবার। ওইদিন চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের সীমান্তবর্তী দামুড়হুদার বাগোয়ান ও রতনপুর গ্রামের মধ্যবর্তী মাঠে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের মুখোমুখি যুদ্ধ শুরু হয়। ওই যুদ্ধে টগবগে তরুণ আট জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। তরুণ ৮জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হলেন- হাসান জামান, আবুল কাশেম, রবিউল ইসলাম, কিয়ামদ্দিন, আফাজ উদ্দীন, আলাউল ইসলাম মালিতা খোকন, রওশন আলম ও খালেদ সাইফুদ্দিন আহম্মেদ তারেক। স্বাধীন মাতৃভূমির পবিত্রতা রক্ষায় সংঘটিত ওই যুদ্ধে শহীদ হওয়া উল্লেখিত ৮ মুক্তিযোদ্ধা শহীদ মুক্তিযোদ্ধার লাশ ঘটনার ২দিন পর অর্থাৎ ৭ আগষ্ট’৭১ তারিখে ইসলামী শরীয়ত অনুযায়ী দামুড়হুদা উপজেলার জগন্নাতপুর মাঠে রাস্তার পাশে বড় একটি কবরে পাশাপাশি দাফন করা হয়। এলাকার মুক্তিকামী সুহৃদয় মানুষ মহতী এই দাফন কাজ সুসম্পন্ন করেন।

সে’দিনের সেই দুঃসাহসিক যুদ্ধ ঘটনার বর্ননা দিতে গিয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে নিহত পরিবারের সদস্যরা জানান, ১৯৭১ সালের ৩ আগস্ট মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাফিজুর রহমান জোয়ার্দ্দারের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা দামুড়হুদার সীমান্তবর্তী মহাজনপুর গ্রামের শেল্টার ক্যাম্পে অবস্থান নিয়েছিলেন। ৪ আগষ্ট মুক্তিযোদ্ধারা মুসলিম লীগের এলাকার দালাল কুখ্যাত রাজাকার লিডার কুবাদ খাঁকে তাদের ক্যাম্পে ধরে নিয়ে আসে। ৫ আগস্ট সকালে কুবাদ খাঁর দু’জন সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে এসে এই মর্মে খবর দেয় যে, রাজাকাররা রতনপুর-বাগোয়ান মাঠের জমিতে তাদের ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আসলে রাজাকারদের ধান কেটে নিয়ে যাওয়ার ওই খবর ছিল সম্পূর্ণ মিথ্যে ও বানোয়াটি,Ñ আটক রাজাকার লিডার কুবাদ খাঁকে মুক্ত করে নিয়ে যাওয়ার অপকৌশল মাত্র।

এদিকে, ধান কেটে নিয়ে যাওয়ার ওই খবরটি যাচাই-বাছাই না করে মূহূর্ত কাল বিলম্ব না করে ওই মিথ্যে খবর শুনে মুক্তিযোদ্ধা হাসানের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা বাগোয়ান গ্রামের ওই মাঠের দিকে যাত্রা করে। কিন্তু পরিকল্পনা অনুযায়ী পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যর ওই মাঠের আখক্ষেতে ওঁত পেতে লুকিয়েছিল। ওই রতনপুর মাঠে পৌঁছামাত্র কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই পাকবাহিনীর গুলি বর্ষণ শুরু হয়ে গমনকারী ওই মুক্তিযোদ্ধা দলের উপর। এ অবস্থায় ১৯৭১ সালের ৫ আগষ্টের ওই পড়ন্ত বিকেলে মুক্তিযোদ্ধা ও পাক হানাদার বাহিনী উভয় পক্ষের মধ্যে একটানা পৌণে ৩ ঘন্টা যুদ্ধ সংঘটিত হয় রতনপুর নামক ওই মাঠ এলাকায়। সূর্যরশ্মি ধরণীতল থেকে বিদায় নেওয়ার সাথে সাথে স্তদ্ধ হয়ে যায় উভয়পক্ষের গোলাগুলির শব্দ। কিন্তু সবকিছুই শেষ। হানাদার পাক সৈন্যরা শহীদ উল্লেখিত ৮ মুক্তিযোদ্ধার লাশ নিয়ে যায় তাদের ক্যাম্পের দিকে।

৮ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হলেন : হাসান, কাশেম, রওশন, রবিউল, তারেক, খোকন, আফাজ উদ্দীন, কিয়ামদ্দিন।

এই যুদ্ধে যারা প্রাণে বেঁচে যান : মোস্তফা খাঁন, আলী আজগর (ফটিক), আজম আক্তার জোয়ার্দ্দার (পিন্টু), হুমায়ুন কবির, আক্তারউজ্জামান, নুরুল আমিন।

কর্মসূচীঃ-
০৫-০৮-২০২১
১. সকাল ৮.৩০টায় আট কবর শহীদ স্মৃতি কমপ্লেক্সে পাতাকা উত্তোলন।
২. সকাল ৮.৪৫ মিনিটে শহীদ বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ।
৩. সকাল ৯.০০টায় শহীদ বেদী প্রাঙ্গণ মঞ্চে সংক্ষিপ্ত পরিসরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »