আমতলীর ৬ ইউপি নির্বাচনের হালচাল

সাইফুল্লাহ নাসির, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ
আগামী ২১ শে জুন বরগুনার আমতলী উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপও তত বেড়ে গেছে। ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী ও তাদের কর্মী- সমর্থকরা পুরো নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। নানা কৌশলে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ভোট প্রার্থনা করছেন। এছাড়া মাইকেও চলছে ব্যাপক প্রচারনা। সব মিলিয়ে শেষ মুহূর্তের প্রচার প্রচারনায় জমে উঠেছে উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন।

এবারের নির্বাচনে বিরোধী দল বিএনপিসহ অধিকাংশ দল অংশ গ্রহণ না করায় আওয়ামীলীগের দলীয় প্রতিকের বিরুদ্ধে দলের বিদ্রোহীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। নির্বাচনী প্রচার- প্রচারনায় সরকার দলীয় প্রার্থীরা কিছুটা প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলেও পিছিয়ে নেই বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও। সরকারী দল ও অঙ্গসহযোগি সংগঠনের নেতা- কর্মীরা উপজেলা থেকে একদম ওয়ার্ড পর্যন্ত দলীয় ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের প্রকাশ্যে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। যে কারনে এই নির্বাচনে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীদের সাথে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে দলীয় বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীদের এবং ২টি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীদের সাথে বিএনপি ঘরানার স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সাথে।

সরজমিনে ঘুরে ও শিক্ষিত ও সাধারণ ভোটারদের সাথে কথা বলে যানা যায়, উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে নৌকা ও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং ২টিতে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি ঘরনার স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে মূল ভোট যুদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

১নং গুলিশাখালী ইউনিয়নে ১২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী তরুন অ্যাড. এম. মনিরুজ্জামান মনি (নৌকা) সাথে দলীয় বিদ্রোহী স্বতস্ত্র প্রার্থী যুবলীগ নেতা মোঃ আসাদুর রহমান আসাদ মৃধা (ঘোড়া) সাথে। এ ইউনিয়নের শিক্ষিত ভোটাররা মনে করেন নির্বাচন সুষ্টু হলে এখানে ওই দুই প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

২নং কুকুয়া ইউনিয়নে ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্ধিতায় রয়েছেন ৩ জন প্রার্থী। এরা হলেন আওয়ামীলীগ মনোনিত বর্তমান চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং মরহুম সাংসদ নিজাম উদ্দিন তালুকদারের ছোট ভাই বোরহান উদ্দিন আহম্মেদ মাসুম তালুকদার (নৌকা), সাবেক বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান কায়েসুর রহমান ফকু (আনারস) ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সামসুদ্দিন আহম্মেদ ছজু’র ভাতিজা মাওঃ মোঃ ফজলুর রহমান (ঘোড়া)। এই ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্ধি দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীর বাড়ী একই এলাকায় হওয়ায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে সরকার দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী। ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পারিবারিক ইমেজ ক্লিন ইমেজের ব্যক্তি হিসেবে সরকার দলীয় প্রার্থীর জয়ের সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। অন্য দুই প্রার্থীও ভালো ভোট পাবেন।

৩নং আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নে ৫ জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও এখানে মূলত প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামীলীগ মনোনিত বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ হারুন অর রশিদ হাওলাদার (নৌকা) সাথে প্রতিদ্বন্ধি হবে উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকানের ছোট ভাই ও ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম রিপন (স্বতন্ত্র) সাথে। এ ইউনিয়নের ভোটাররা মনে করেন রফিকুল ইসলাম রিপন (স্বতন্ত্র) বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।

৪নং হলদিয়া ইউনিয়নে পদে ৮ জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও এখানে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামীলীগ মনোনিত বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম মৃধার (নৌকা) সাথে উপজেলা শ্রমিক লীগের সাবেক আহবায়ক, আওয়ামী বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিক (আনারস) সাথে। এ ইউনিয়নে ভোটাদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, এখন পর্যন্ত প্রচার- প্রচারনা ও জনসমর্থনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিকের জয়ের সম্ভাবনা বেশী।

৫নং চাওড়া ইউনিয়নে ১০ জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও এখানে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামীলীগ মনোনিত বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান বাদল খান (নৌকা) সাথে বিএনপি’র সাবেক নেতা ও ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাড. মোঃ মোহসিন (মোটর সাইকেল) সাথে। ওই ইউনিয়নের সাধারণ ভোটারদের সাথে কথা বলে যানা যায়। প্রচার- প্রচারনায় যে যাই বলুক শেষ হাসিটা নৌকার মনোনিত প্রার্থী দানবীর মোঃ আখতারুজ্জামান বাদল খানই হাসবেন।

৭নং আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নে ১০ জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও এখানে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামীলীগ মনোনিত এ উপজেলায় একমাত্র নারী চেয়ারম্যান প্রার্থী ও ওই ইউনিয়নের মরহুম চেয়ারম্যান একেএম নূরুল হক তালুকদারের স্ত্রী মোসাঃ সোহেলী পারভীন মালা (নৌকা) সাথে সাবেক বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম আজাদ (আনারস)। এ ইউনিয়নের ভোটাররা মনে করেন সুষ্টু নির্বাচন হলে এখানে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *