ঢাকা ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo দৈনিক মুক্তির লড়াই পত্রিকার চতুর্থ বর্ষে পদার্পন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত Logo ক্ষুদ্রচাকশ্রী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত Logo বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলার ঘটনায় মামলা, পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ Logo সরাইলে নদীর মাটি যাচ্ছে ইট ভাটায়, হুমকির মুখে ফসলি জমি Logo চীন বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক উন্নয়ন বাড়াতে চায়;চীনা বাণিজ্য মন্ত্রী Logo চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ২০২৪ সালকে ‘ভোগ বৃদ্ধির বছর’ হিসাবে মনোনীত করে Logo শাজাহান শিকদার সম্পাদনিত ‘সম্মিলিত কবিতার বই-৪’ এর মোড়ক উম্মোচন Logo নওগাঁয় ৭২ কেজি গাঁজাসহ মাদক এক ব্যবসায়ী আটক Logo ফুলবাড়ীতে কুকুরের কামড়ে ৮টি ছাগলের মৃত্যু Logo আমতলী পৌর নির্বাচন ঘিরে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ

উইঘুর মুসলমানদের গলজা গণহত্যার ২৬তম বার্ষিকী ঢাকায় পালিত

চীনের মুসলিম উইঘুরদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে রোববার (০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩) ‘উইঘুর মুসলমানদের গলজা গণহত্যার ২৬তম বার্ষিকী’ পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। এসময় সংগঠনের উদ্যোগে এক সাইকেল র্যালী ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়। রাজধানীর গুলশানের নিকুঞ্জে পুলিশ প্লাজা হতে গুলশান এভেনিউ ১, ২ ও ইউনাইটেড হসপিটাল হয়ে সাইকেল র্যালী পুলিশ প্লাজায় এসে শেষ হয়। পরে এখানে এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র – ছাত্রী, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তৌফিক আহমেদ তফছির। উক্ত কর্মসূচিতে সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভো ও সংগঠক এম এইস মিল্টন প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে তৌফিক আহমেদ তফছির বলেন, আজ ০৫ ফেব্রুয়ারী ঘুলজা সিটি দাঙ্গার ২৬তম বার্ষিকী। ১৯৯৭ সালের এই দিনে ঘুলজাতে উইঘুর বিক্ষোভকারীরা শহরে ধর্মীয় দমন ও জাতিগত বৈষম্যের অবসানের আহ্বান জানিয়ে একটি অহিংস প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিল। সহিংসভাবে বিক্ষোভ দমন করার পর, চীনা কর্তৃপক্ষ নির্বিচারে বিপুল সংখ্যক উইঘুরদের আটক করে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো আটক উইঘুরদের আটকে রাখা এবং অন্যায় বিচারে নির্যাতনের নমুনা নথিভুক্ত করেছে। তাদের অভিযুক্ত ভূমিকার জন্য, বেশ কিছু উইঘুর অংশগ্রহণকারীদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। চীন বিশ্বকে উইঘুর গণহত্যা দেখতে না দেওয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছে এবং দাবি করছে যে বিদেশে উইঘুররা “মিথ্যা বলছে”। সংবাদ মাধ্যম সূত্র বলছে, ৩০ জন উইঘুর স্বাধীনতা কর্মীদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার খবরের মাধ্যমে আংশিকভাবে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এর আরেকটি কারণও ছিল ৩ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৭-এ মেশরেপ-এ অংশ নেওয়া একদল মহিলাকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি ঐতিহ্যবাহী মেশরেপ সমাবেশ সহ ঐতিহ্যবাহী উইঘুর সংস্কৃতির উপাদানগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করার প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে সাধারণ ক্র্যাকডাউন করে। ৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৭-এ, প্রতিবাদকারীরা “ঈশ্বর মহান” এবং “জিনজিয়াংয়ের জন্য স্বাধীনতা” বলে চিৎকার করে মিছিল করেছিল এবং ক্লাব, জলকামান এবং টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করার তারণে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে গিয়েছিল, এমন দুই দিনের বিক্ষোভের পরে, চীনাদের হাতে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছিল। সেনাবাহিনীর গোলাগুলিতে সরকারী প্রতিবেদনে মৃতের সংখ্যা ৯ বলে উল্লেখ করা হয়েছিল, অন্যদিকে ভিন্নমতাবলম্বী প্রতিবেদনে নিহতের সংখ্যা ১০০ টিরও বেশি এমনকি ১৬৭ জনেরও বেশি বলে অনুমান করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা রিপোর্ট করেছেন যে প্রায় ৩০ জন বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত হয়েছেন এবং আরও শতাধিক আহত হয়েছেন।
আজ ঘুলজা হত্যাকাণ্ডের ছাব্বিশ বছর পরও সেই দিন বা কয়েক মাস পরের নৃশংসতার কোনো জবাবদিহিতা নেই। .প্রকৃতপক্ষে, চীন ৯০ এর দশক থেকে যুব আন্দোলনের সাথে যুক্ত থাকা প্রতিটি উইঘুরকে খুঁজে বের করে চলেছে এবং তাদের বন্দী শিবিরে পাঠিয়ে শাস্তি দিচ্ছে। ঘুলজা গণহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া, ৫ জুলাই, ২০০৯ উরুমকি বিক্ষোভ, এবং আলাকাঘা (মে ২০১৪), হ্যানেরিক (জুন ২০১৩), সেরিকবুয়া (এপ্রিল ২০১৩), এবং ইলিশকু (জুলাই ২০১৪) এর রাষ্ট্রীয় সহিংসতার একটি অংশ তৈরি করে ২০১৬ সাল থেকে লাখ লাখ মানুষ চীনা বন্দী শিবিরে আটক এবং নিপীড়নের অন্যান্য অগণিত ঘটনাগুলি এই সত্যের সাক্ষ্য হিসাবে কাজ করে যে ধাপে ধাপে, চীন পদ্ধতিগতভাবে আমাদের জনগণকে পৃথিবী থেকে মানসিক, আধ্যাত্মিক, সাংস্কৃতিক এবং শারীরিকভাবে মুছে ফেলবে।
এদিকে আমরা হয়তো উইঘুরদেরকে গ্যাস চেম্বারে আটকে রেখে গ্যাসে মেরে ফেলা বা গণবিধ্বংসী অস্ত্র দিয়ে হত্যা করতে দেখছি না, কিন্তু আমরা প্রত্যক্ষ করছি মানুষ নির্যাতন, মগজ ধোলাই, লাখ লাখ লোকের হাতে বন্দী, দাস হিসেবে আটকে রাখা বা তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কাটা হচ্ছে। নারীদের ধর্ষণ করা হচ্ছে এবং অবাঞ্ছিত বিয়েতে বাধ্য করা হচ্ছে বা জোর করে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে এবং চীনা চিকিৎসা পরীক্ষাগারে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।
এ ঘটনাগুলি ০৫ ফেব্রুয়ারী এর ঘটনাগুলির পরিবর্তে ১৯৯৭ সালের ঘুলজা গণহত্যা হিসাবে পরিচিত।
বন্ধুরা, উইঘুররা এখন চীনের বৃহত্তর উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে নিপীড়ন এবং সহিংসতার আশ্রয়দাতা হিসাবে দেখে যা পর্যায়ক্রমে প্রকাশিত হয়েছে, আমরা বাংলাদেশের মুসলমানরা চীনা সরকারী বাহিনীর অত্যাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে উইঘুর মুসলমানদের সাথে সবসময় দাঁড়াব।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

দৈনিক মুক্তির লড়াই পত্রিকার চতুর্থ বর্ষে পদার্পন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

উইঘুর মুসলমানদের গলজা গণহত্যার ২৬তম বার্ষিকী ঢাকায় পালিত

আপডেট সময় ১২:১৩:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

চীনের মুসলিম উইঘুরদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে রোববার (০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩) ‘উইঘুর মুসলমানদের গলজা গণহত্যার ২৬তম বার্ষিকী’ পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। এসময় সংগঠনের উদ্যোগে এক সাইকেল র্যালী ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়। রাজধানীর গুলশানের নিকুঞ্জে পুলিশ প্লাজা হতে গুলশান এভেনিউ ১, ২ ও ইউনাইটেড হসপিটাল হয়ে সাইকেল র্যালী পুলিশ প্লাজায় এসে শেষ হয়। পরে এখানে এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র – ছাত্রী, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তৌফিক আহমেদ তফছির। উক্ত কর্মসূচিতে সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভো ও সংগঠক এম এইস মিল্টন প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে তৌফিক আহমেদ তফছির বলেন, আজ ০৫ ফেব্রুয়ারী ঘুলজা সিটি দাঙ্গার ২৬তম বার্ষিকী। ১৯৯৭ সালের এই দিনে ঘুলজাতে উইঘুর বিক্ষোভকারীরা শহরে ধর্মীয় দমন ও জাতিগত বৈষম্যের অবসানের আহ্বান জানিয়ে একটি অহিংস প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিল। সহিংসভাবে বিক্ষোভ দমন করার পর, চীনা কর্তৃপক্ষ নির্বিচারে বিপুল সংখ্যক উইঘুরদের আটক করে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো আটক উইঘুরদের আটকে রাখা এবং অন্যায় বিচারে নির্যাতনের নমুনা নথিভুক্ত করেছে। তাদের অভিযুক্ত ভূমিকার জন্য, বেশ কিছু উইঘুর অংশগ্রহণকারীদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। চীন বিশ্বকে উইঘুর গণহত্যা দেখতে না দেওয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছে এবং দাবি করছে যে বিদেশে উইঘুররা “মিথ্যা বলছে”। সংবাদ মাধ্যম সূত্র বলছে, ৩০ জন উইঘুর স্বাধীনতা কর্মীদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার খবরের মাধ্যমে আংশিকভাবে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এর আরেকটি কারণও ছিল ৩ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৭-এ মেশরেপ-এ অংশ নেওয়া একদল মহিলাকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি ঐতিহ্যবাহী মেশরেপ সমাবেশ সহ ঐতিহ্যবাহী উইঘুর সংস্কৃতির উপাদানগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করার প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে সাধারণ ক্র্যাকডাউন করে। ৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৭-এ, প্রতিবাদকারীরা “ঈশ্বর মহান” এবং “জিনজিয়াংয়ের জন্য স্বাধীনতা” বলে চিৎকার করে মিছিল করেছিল এবং ক্লাব, জলকামান এবং টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করার তারণে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে গিয়েছিল, এমন দুই দিনের বিক্ষোভের পরে, চীনাদের হাতে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছিল। সেনাবাহিনীর গোলাগুলিতে সরকারী প্রতিবেদনে মৃতের সংখ্যা ৯ বলে উল্লেখ করা হয়েছিল, অন্যদিকে ভিন্নমতাবলম্বী প্রতিবেদনে নিহতের সংখ্যা ১০০ টিরও বেশি এমনকি ১৬৭ জনেরও বেশি বলে অনুমান করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা রিপোর্ট করেছেন যে প্রায় ৩০ জন বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত হয়েছেন এবং আরও শতাধিক আহত হয়েছেন।
আজ ঘুলজা হত্যাকাণ্ডের ছাব্বিশ বছর পরও সেই দিন বা কয়েক মাস পরের নৃশংসতার কোনো জবাবদিহিতা নেই। .প্রকৃতপক্ষে, চীন ৯০ এর দশক থেকে যুব আন্দোলনের সাথে যুক্ত থাকা প্রতিটি উইঘুরকে খুঁজে বের করে চলেছে এবং তাদের বন্দী শিবিরে পাঠিয়ে শাস্তি দিচ্ছে। ঘুলজা গণহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া, ৫ জুলাই, ২০০৯ উরুমকি বিক্ষোভ, এবং আলাকাঘা (মে ২০১৪), হ্যানেরিক (জুন ২০১৩), সেরিকবুয়া (এপ্রিল ২০১৩), এবং ইলিশকু (জুলাই ২০১৪) এর রাষ্ট্রীয় সহিংসতার একটি অংশ তৈরি করে ২০১৬ সাল থেকে লাখ লাখ মানুষ চীনা বন্দী শিবিরে আটক এবং নিপীড়নের অন্যান্য অগণিত ঘটনাগুলি এই সত্যের সাক্ষ্য হিসাবে কাজ করে যে ধাপে ধাপে, চীন পদ্ধতিগতভাবে আমাদের জনগণকে পৃথিবী থেকে মানসিক, আধ্যাত্মিক, সাংস্কৃতিক এবং শারীরিকভাবে মুছে ফেলবে।
এদিকে আমরা হয়তো উইঘুরদেরকে গ্যাস চেম্বারে আটকে রেখে গ্যাসে মেরে ফেলা বা গণবিধ্বংসী অস্ত্র দিয়ে হত্যা করতে দেখছি না, কিন্তু আমরা প্রত্যক্ষ করছি মানুষ নির্যাতন, মগজ ধোলাই, লাখ লাখ লোকের হাতে বন্দী, দাস হিসেবে আটকে রাখা বা তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কাটা হচ্ছে। নারীদের ধর্ষণ করা হচ্ছে এবং অবাঞ্ছিত বিয়েতে বাধ্য করা হচ্ছে বা জোর করে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে এবং চীনা চিকিৎসা পরীক্ষাগারে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।
এ ঘটনাগুলি ০৫ ফেব্রুয়ারী এর ঘটনাগুলির পরিবর্তে ১৯৯৭ সালের ঘুলজা গণহত্যা হিসাবে পরিচিত।
বন্ধুরা, উইঘুররা এখন চীনের বৃহত্তর উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে নিপীড়ন এবং সহিংসতার আশ্রয়দাতা হিসাবে দেখে যা পর্যায়ক্রমে প্রকাশিত হয়েছে, আমরা বাংলাদেশের মুসলমানরা চীনা সরকারী বাহিনীর অত্যাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে উইঘুর মুসলমানদের সাথে সবসময় দাঁড়াব।