ঢাকা ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

কুমিল্লার নতুন পুলিশ সুপার সাইদুল ইসলাম সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়

এ জে সোহেল, ষ্টাফ রিপোর্টার

বুধবার (১০ জুলাই ২৪ ইং তারিখে) পুলিশ সুপার কুমিল্লা কনফারেন্স রুমে জেলার সাংবাদিক বৃন্দ দের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তথ্য অনুযায়ী মোঃ সাইদুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম ২৫তম বিসিএস (পুলিশ) এর মাধ্যমে ২০০৬ সালে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন। বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি, রাজশাহীতে মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে তিনি সর্বপ্রথম র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নে (র‌্যাব-৫) পদায়ন লাভ করেন। তারপর র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামে আড়াই বছর কর্মরত ছিলেন। পরে বরিশাল জেলার গৌরনদী সার্কেল ও ঠাকুরগাঁও সদর সার্কেলের এএসপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি লাভ করে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে আইভরি কোস্টে দায়িত্ব পালন করেন।
শান্তিরক্ষা মিশন সম্পন্ন করে তিনি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) নিযুক্ত হন। পরবর্তীকালে তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে পদায়ন লাভ করেন। বাংলাদেশ পুলিশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই ইউনিটে তিনি টানা দীর্ঘ ৭ বছরের অধিক সময় সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি এডিসি হিসেবে গুলশান ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও মতিঝিল ডিভিশনে ট্রাফিকের এডিসি, ওয়ারী ডিভিশনে ট্রাফিকের ডিসি হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের অনির্বাণ চেতনায় উদ্ভাসিত এই পুলিশ কর্মকর্তা প্রতিটি কর্মস্থলেই দেশপ্রেম, নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করে প্রশংসিত হন।
সর্বশেষ ২০২২ সালের ২৫ আগস্ট থেকে তিনি দক্ষিণবঙ্গের গুরুত্বপূর্ণ জনপদ পটুয়াখালী জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দুই বছর সাফল্যের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। গত ০৯/০৭/২০২৪ তারিখে তিনি কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। কর্মজীবনে অসাধারণ কর্মদক্ষতা ও পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের স্বীকৃতিস্বরূপ এই চৌকস কর্মকর্তা বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম, পিপিএম ও একাধিকবার আইজিপি ব্যাজ অর্জন করেন। উল্লেখ্য, তিনি ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে সততা, কর্মদক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও সেবাগ্রহীতাদের সাথে উত্তম ব্যবহারসহ সার্বিক কর্মকান্ড বিবেচনায় জাতীয় শুদ্ধাচার পুরষ্কারে ভূষিত হন।
পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুল ইসলাম ১৯৭৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি পাবনা শহরের একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মোঃ আব্দুল মজিদ এবং মাতা রাজিয়া বেগম। ছয় ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি পঞ্চম। পারিবারিক জীবনে তিনি দুই ছেলে সন্তানের জনক। তাঁর সহধর্মিণী মোছাম্মৎ আসমা ইসলাম পাপড়ি পেশায় একজন শিক্ষক।
পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুল ইসলাম পাবনা জেলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। এরপর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। কর্মজীবনে তিনি যুক্তরাষ্ট্র, তুরষ্ক, চীন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডসহ দেশে বিদেশে প্রশিক্ষণ লাভ করেন।

নবাগত পুলিশ সুপার সত্য প্রকাশে সাংবাদিকদের আহবান করেন এবং যে কোন সমস্যা সমাধানে আইন তৎপর থাকার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।

আপলোডকারীর তথ্য

নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়ক নির্মাণ কাজের নানান অনিয়মের অভিযোগ

কুমিল্লার নতুন পুলিশ সুপার সাইদুল ইসলাম সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়

আপডেট সময় ০২:০১:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

এ জে সোহেল, ষ্টাফ রিপোর্টার

বুধবার (১০ জুলাই ২৪ ইং তারিখে) পুলিশ সুপার কুমিল্লা কনফারেন্স রুমে জেলার সাংবাদিক বৃন্দ দের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তথ্য অনুযায়ী মোঃ সাইদুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম ২৫তম বিসিএস (পুলিশ) এর মাধ্যমে ২০০৬ সালে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন। বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি, রাজশাহীতে মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে তিনি সর্বপ্রথম র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নে (র‌্যাব-৫) পদায়ন লাভ করেন। তারপর র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামে আড়াই বছর কর্মরত ছিলেন। পরে বরিশাল জেলার গৌরনদী সার্কেল ও ঠাকুরগাঁও সদর সার্কেলের এএসপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি লাভ করে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে আইভরি কোস্টে দায়িত্ব পালন করেন।
শান্তিরক্ষা মিশন সম্পন্ন করে তিনি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) নিযুক্ত হন। পরবর্তীকালে তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে পদায়ন লাভ করেন। বাংলাদেশ পুলিশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই ইউনিটে তিনি টানা দীর্ঘ ৭ বছরের অধিক সময় সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি এডিসি হিসেবে গুলশান ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও মতিঝিল ডিভিশনে ট্রাফিকের এডিসি, ওয়ারী ডিভিশনে ট্রাফিকের ডিসি হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের অনির্বাণ চেতনায় উদ্ভাসিত এই পুলিশ কর্মকর্তা প্রতিটি কর্মস্থলেই দেশপ্রেম, নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করে প্রশংসিত হন।
সর্বশেষ ২০২২ সালের ২৫ আগস্ট থেকে তিনি দক্ষিণবঙ্গের গুরুত্বপূর্ণ জনপদ পটুয়াখালী জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দুই বছর সাফল্যের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। গত ০৯/০৭/২০২৪ তারিখে তিনি কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। কর্মজীবনে অসাধারণ কর্মদক্ষতা ও পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের স্বীকৃতিস্বরূপ এই চৌকস কর্মকর্তা বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম, পিপিএম ও একাধিকবার আইজিপি ব্যাজ অর্জন করেন। উল্লেখ্য, তিনি ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে সততা, কর্মদক্ষতা, পেশাদারিত্ব ও সেবাগ্রহীতাদের সাথে উত্তম ব্যবহারসহ সার্বিক কর্মকান্ড বিবেচনায় জাতীয় শুদ্ধাচার পুরষ্কারে ভূষিত হন।
পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুল ইসলাম ১৯৭৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি পাবনা শহরের একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মোঃ আব্দুল মজিদ এবং মাতা রাজিয়া বেগম। ছয় ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি পঞ্চম। পারিবারিক জীবনে তিনি দুই ছেলে সন্তানের জনক। তাঁর সহধর্মিণী মোছাম্মৎ আসমা ইসলাম পাপড়ি পেশায় একজন শিক্ষক।
পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুল ইসলাম পাবনা জেলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। এরপর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। কর্মজীবনে তিনি যুক্তরাষ্ট্র, তুরষ্ক, চীন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডসহ দেশে বিদেশে প্রশিক্ষণ লাভ করেন।

নবাগত পুলিশ সুপার সত্য প্রকাশে সাংবাদিকদের আহবান করেন এবং যে কোন সমস্যা সমাধানে আইন তৎপর থাকার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।