শিরোনাম
বরগুনার ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তদন্ত কমিটি গঠন পঞ্চগড়ে সারের জন্য দীর্ঘ লাইন, ফিরে যাচ্ছেন অনেকেই বাগেরহাটে সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কর্তৃক জাতীয় শোক দিবস পালিত বোদায় ইউএনওর ফোন নম্বর ক্লোন করে প্রতারণার চেষ্টা ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত রূপসায় শ্রমীক নেতা আবুল হোসেনের স্বরণসভা ও দোয়া অনুষ্টিত বরগুনায় ছাত্রলীগের উপর পুলিশের বেধড়ক মারধর এর প্রতিবাদে আমতলীতে বিক্ষোভ বরগুনায় ছাত্রলীগকে পেটানো পুলিশ কর্মকর্তাকে ডিআইজি কার্যালয়ে সংযুক্ত টাঙ্গাইলে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে সিএনজির ধাক্কায় দুজন নিহত কুমিল্লায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে ৭ রাইস মিলকে জরিমানা
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

চট্টগ্রামকে গুরুত্ব দিয়েই দেশের উন্নয়ন করতে হবে : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

Muktir Lorai / ১৫৩ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শনিবার, ২ জানুয়ারি, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টারঃ
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো.তাজুল ইসলাম বলেছেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে সরকার আন্তরিক। বাংলাদেশের উন্নয়ন করতে হলে চট্টগ্রামকে গুরুত্ব দিতে হবে। চট্টগ্রাম বন্দর না থাকলে বাংলাদেশের ভাগ্য এত ভালো হতো না। যেমন চট্টগ্রাম বন্দর যদি না থাকতো, তাহলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আসাটা একেবারে অসম্ভব ছিল।
শনিবার দুপুরে চট্টগ্রামের রেডিসন ব্রু মেজবান হলে চীন সরকার হতে অনুদান হিসেবে প্রাপ্ত এলইডি বাল্ব বিতরণের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, উন্নত দেশ গড়তে বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখছেন, এখন তা বাস্তবায়ন করছেন তার কন্যা। আমি তার সহকর্মী হিসাবে আছি। শিক্ষা, স্বাস্থ্য খাদ্যের অনেক উন্নত হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রেখে ৪১ সালে উন্নত দেশ হিসাবে গড়ে তুলব। চট্টগ্রামের নালা-নর্দমা, খাল-বিল যদি পরিস্কার না হয় তাহলে তো হবে না, এগুলো পরিস্কার করতে হবে।
মন্ত্রী আরও বলেন, ওয়াকওয়ে পরিস্কার থাকবে, মানুষও শ্বাস নিতে পারবে। বাংলাদেশকে বিচ্ছিন্নভাবে দেখার সুযোগ নাই। মিরসরাই ইকোনমিক জোন হবে, ৩০ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান হবে। কার্যকরী করার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে হবে। সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।
তিনমাসে হালদার মাছ প্রজনন হয় জানিয়ে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, এখানে উন্নয়নের ব্যাপারে ভ্রান্ত ধারণার কারণে যদি ব্যাহত হয় তাহলে সবাইকে তার দায় বহন করতে হবে। বিলিয়ন ডলার ইনকাম করার সুযোগ আছে তার জন্য আমাদের কাজ করতে হবে। আমাদের পারস্পরিক যোগাযোগে তা করতে হবে। ভুল বুঝাবুঝি হলে কিচ্ছু হবে না। রামপায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে অনেক ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। ভবিষ্যতে জ্বালানি সংকট থাকবে না। সমুদ্রসীমা নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করেছেন জানিয়ে মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সমুদ্রসীমা নিয়ে কাজ করেছেন, এরপর কোনও সরকার কাজ করেনি, এরপর আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসলে তা আবারো তদবির করেন। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসাতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার কারণে সমুদ্র সীমার জয় হয়েছে। আমাদের ভৌগলিক সীমানা নিয়ে অনেক সমস্যা ছিল, ছিট মহল সমস্যা সমাধান করা হয়েছে। ভারত থেকে আমরা ১০ গুন বেশি জায়গা পেয়েছি ছিট মহলে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা হবে, তার জন্য কাজ করতে হবে।
মন্ত্রী আরও বলেন, দারিদ্র্য ভাইরাসের, অশিক্ষাও একটি ভাইরাস, চট্টগ্রামসহ সব জায়গার উন্নয়ন হতে হবে। তার জন্য সবাই স্ব স্ব জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে। লিডারদের এগিয়ে আসতে হবে। পরিস্কার নগরী হলে মন পরিষ্কার হবে। সব মানুষ একসাথে ভালো কাজ করলে, ভালো চিন্তা করলে দেশ এগিয়ে যাবে।
স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, চীন সরকার বাংলাদেশকে অনুদান হিসেবে ১৩ লাখ বাল্ব বিতরণ করেছে। চীন সরকারের চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে এ বাল্ব বাংলাদেশে আসার কারণে চট্টগ্রাম থেকেই সারাদেশে বিতরণ করা হবে। আমরা চীন সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ তাদের এ বন্ধুভাবাপন্ন আচরণের জন্য। চীন সরকার পুরো বাংলাদেশের জন্য ১৩ লাখ বাল্ব দিয়েছে। আমরা চাই সারা বাংলাদেশ একইভাবে আলোকিত হোক। আমি চট্টগ্রাম, রংপুর, নোয়াখালী সব জায়গাকে সমান মূল্যায়ন করি। কিন্তু এ বাল্বগুলো চট্টগ্রাম দিয়ে এসেছে বলে আমরাই চট্টগ্রামে এসে এ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলাম। এখান থেকেই সারাদেশে ডিস্ট্রিবিশন লিস্ট অনুযায়ী বাল্ব যাবে।
সভাপতির বক্তব্য স্থানীয় সরকারের বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, মন্ত্রী মহোদয় সবসময় চট্টগ্রামের উন্নয়নে আন্তরিক। তিনি চিন্তা চেতনায় চট্টগ্রামকে ধারণ করেন। চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা আছে। সরকার ইতোমধ্যে জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য খাল খননের প্রকল্প গ্রহণ করেছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা সমস্যা নিরসন হবে।
স্থানীয় সরকার বিভাগের যুগ্ম সচিব সাকিলা ফারজানার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুস সালাম, স্থানীয় সরকার বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »