ঢাকা ০১:৪১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুরি করতে এসে স্থানীয় জনতার হাতে আটক-১

মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের দামের খন্ড গ্রামের শ্রীবাস মহালদার বাড়িতে ঢুকে চুরি করে পালানোর সময় এক চোরকে আটক করেছে স্থানীয় জনতা।
মঙ্গলবার (৪’ই এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০’টার দিকে মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের দামের খন্ড গ্রামে এ চুরির ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, স্থানীয় জনতার হাতে আটককৃত চোর রুবেল ওরফে চায়না রুবেল মোংলা পৌর শহরের শামছুর রহমান রোড়ের বাসিন্দা।

বাড়ির মালিক শ্রীবাস মহালদার ও তার স্ত্রী জানান, তিনি ও তার স্ত্রী বাড়ির কিছুদূরে কালী মন্দিরে পূজা দেখতে গেছিলেন। কালী পূজা দেখে বাড়ীতে আসেন টাকা নিতে হঠাৎ দেখেন ঘরের দরজায় তালা লাগানো খুলতে গিয়ে দেখেন তালা ভাঙ্গা কিন্তু দরজা লাগানো। দরজা ছিল ভিতর দিয়ে আটকানো। তালা ভাঙ্গা এবং দরজা আটকানো দেখে শ্রীবাস মহালদারে সন্দেহ হয়,ঘরে হয়তো চোর ঢুকেছে।

আশপাশের লোকজন ডাকতেই ঘরে ভিতরে রাখা আসবাবপত্র ও আলমারী ভেঙ্গে ভিতরে রাখা স্বর্ণালংকার ও টাকা পয়সা নিয়ে জানলা দিয়ে বেরিয়ে পড়ে। চোর শ্রীবাস মহালদারকে হুমকি দিয়ে বলে কাউকে ডাকাডাকি করলে জানে মেরে ফেলবো এবং চোরের হাতে থাকা একটি দেশীয় অস্ত্র বের করেন ।

এক পর্যায়ে শ্রীবাস মহালদার চোরকে ধরার জন্য টানাহেঁচড়া করেন। এ সময় চোর শ্রীবাস মহালদারকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করেন। শ্রীবাস মহালদারের স্ত্রীর ডাক – চিৎকারে স্থানীয় লোকজন চোরকে ধাওয়া করলে চোরের সহযোগীরা তাদের নিয়ে আসা মটরবাইকেল পালিয়ে যান। এবং চায়না রুবেল ওরফে রবেল পালানোর চেষ্টাকালে এলাকার স্থানীয় জনতার তাকে আটক করেন।

আপলোডকারীর তথ্য

চুরি করতে এসে স্থানীয় জনতার হাতে আটক-১

আপডেট সময় ০২:৩২:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ এপ্রিল ২০২৩

মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের দামের খন্ড গ্রামের শ্রীবাস মহালদার বাড়িতে ঢুকে চুরি করে পালানোর সময় এক চোরকে আটক করেছে স্থানীয় জনতা।
মঙ্গলবার (৪’ই এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০’টার দিকে মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের দামের খন্ড গ্রামে এ চুরির ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, স্থানীয় জনতার হাতে আটককৃত চোর রুবেল ওরফে চায়না রুবেল মোংলা পৌর শহরের শামছুর রহমান রোড়ের বাসিন্দা।

বাড়ির মালিক শ্রীবাস মহালদার ও তার স্ত্রী জানান, তিনি ও তার স্ত্রী বাড়ির কিছুদূরে কালী মন্দিরে পূজা দেখতে গেছিলেন। কালী পূজা দেখে বাড়ীতে আসেন টাকা নিতে হঠাৎ দেখেন ঘরের দরজায় তালা লাগানো খুলতে গিয়ে দেখেন তালা ভাঙ্গা কিন্তু দরজা লাগানো। দরজা ছিল ভিতর দিয়ে আটকানো। তালা ভাঙ্গা এবং দরজা আটকানো দেখে শ্রীবাস মহালদারে সন্দেহ হয়,ঘরে হয়তো চোর ঢুকেছে।

আশপাশের লোকজন ডাকতেই ঘরে ভিতরে রাখা আসবাবপত্র ও আলমারী ভেঙ্গে ভিতরে রাখা স্বর্ণালংকার ও টাকা পয়সা নিয়ে জানলা দিয়ে বেরিয়ে পড়ে। চোর শ্রীবাস মহালদারকে হুমকি দিয়ে বলে কাউকে ডাকাডাকি করলে জানে মেরে ফেলবো এবং চোরের হাতে থাকা একটি দেশীয় অস্ত্র বের করেন ।

এক পর্যায়ে শ্রীবাস মহালদার চোরকে ধরার জন্য টানাহেঁচড়া করেন। এ সময় চোর শ্রীবাস মহালদারকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করেন। শ্রীবাস মহালদারের স্ত্রীর ডাক – চিৎকারে স্থানীয় লোকজন চোরকে ধাওয়া করলে চোরের সহযোগীরা তাদের নিয়ে আসা মটরবাইকেল পালিয়ে যান। এবং চায়না রুবেল ওরফে রবেল পালানোর চেষ্টাকালে এলাকার স্থানীয় জনতার তাকে আটক করেন।