চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত রোগীর গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গার গড়গড়ী গ্রামের এক করোনা রোগী গলাই ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পারিবারিক গঞ্জনা ও সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ায় আব্দুর রাজ্জাক (৫০) নামের করোনায় আক্রান্ত ওই ব্যক্তি ২০ জুন রোববার সকালের দিকে আত্মহত্যা করেন।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আলমডাঙ্গার জেহালা ইউনিয়নের গড়গড়ী গ্রামের হঠাৎপাড়ার শাহাজুদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক কৃষি কাজের পাশাপাশি গরুর ব্যবসা করতেন। ক’একদিন ধরে তিনি জ্বর ও ঠান্ডা কাশিতে ভুগছিলেন। গত ১৬ জুন র‌্যাপিড টেষ্টে তার করোনা রোগ শনাক্ত হয়। রিপোর্ট পজিটিভ হওয়ার পর তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। এরপর আব্দুর রাজ্জাক ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ীতে আইসোলেশনে ছিলেন।
বাড়ীতে আসার পর তাদের বাড়ী লকডাউন করে দেয়া হয়। আব্দুর রাজ্জাক সামাজিকভাবে হেয় পতিপন্ন ও পারিবারিক নানান গঞ্জনা সইতে না পেরে অভিমানে তিনি নিজ বাড়ীতে গলাঁয় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। সকালেই পরিবারের লোকজন গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার বিষয়টি আলমডাঙ্গা থানা পুলিশকে অবগত করলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে দাফনের অনুমতি প্রদান করেন।
আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী ময়না খাতুন জানান, গত ক’একদিন পূর্বে আমার স্বামী ঠাণ্ডা-জ্বরে ভুগছিলো। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে তাকে র‌্যাপিড টেষ্ট করানো হলে করোনা পজেটিভ আসে। পওে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদের বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়ীতে আসার পর আমরা সবাই তার থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলাম। তিনি দাবী করেন, আমার স্বামী হাসপাতালে থাকলে আত্মহত্যা করতেন না। এলাকার লোকজন আমাদের নিয়ে বিভিন্ন ধরণের কটূক্তি মূলক কথা বলায় সে অভিমানে আত্মহত্যা করেছে।
আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর কবির বলেন, সকালে গড়গড়ী গ্রামে একজন করোনা আক্রান্ত রোগী আত্মহত্যা করেছে বলে জেনেছি। তিনি জ্বর, শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভুগছিলেন। তাই আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *