ঢাকা ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছাত্রীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় ঠাকুরগাঁওয়ে শিক্ষকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কর্তৃক অনার্স ২য় বর্ষের এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, অশ্লীল ছবি তোলা, অপহরণ ও ধর্ষণ চেষ্টার প্রতিবাদ এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬ এপ্রিল) সকালে ভুক্তভোগী ছাত্রীর সহপাঠী এবং এলাকাবাসীর আয়োজনে উপজেলার কোঠাপাড়া বশভাংগা বসন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা, সহপাঠী এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বক্তব্যে বলেন, বসভাঙ্গা বসন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মুক্তারুল ইসলাম মুক্তা দীর্ঘদিন ধরেই ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে পড়িয়ে আসছিলেন। বিভিন্ন ভাবে প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে তিনি ভুক্তভোগী ছাত্রীকে অপহরণ করে অশ্লীল ছবি তোলেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

এর আগেও তিনি তার বিদ্যালয়ের বেশ কিছু ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন যা ওই ছাত্রীদের পরিবার মান সম্মানের ভয়ে মুখ খোলেনি। এখন তিনি মোটা অংকের টাকা দিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চালাচ্ছেন। এ ধরনের কুরুচিপূর্ণ মানুষ শিক্ষক হিসেবে বহাল থাকতে পারেন না বলে জানান বক্তারা। এছাড়াও তাকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে তার যথোপযুক্ত শাস্তির দাবীও জানান বক্তারা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক মুক্তারুল ইসলাম মুক্তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার স্ত্রী তামান্না অক্তার লাকী জানান, মুক্তারুল ইসলাম বাসায় নেই এবং তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা। তিনি একজন আদর্শ শিক্ষক। এলাকার এবং বিদ্যালয়ের একটি কুচক্রি মহল তাকে ফাসানোর জন্যই এসব করছে। এছাড়াও এ বিষয়ে মোটা অংকের টাকা দিয়ে সমাধানের ব্যাপরটিও মিথ্যা বলে তিনি জানান।

আপলোডকারীর তথ্য

ছাত্রীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় ঠাকুরগাঁওয়ে শিক্ষকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

আপডেট সময় ১২:৪৬:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল ২০২৩

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কর্তৃক অনার্স ২য় বর্ষের এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, অশ্লীল ছবি তোলা, অপহরণ ও ধর্ষণ চেষ্টার প্রতিবাদ এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬ এপ্রিল) সকালে ভুক্তভোগী ছাত্রীর সহপাঠী এবং এলাকাবাসীর আয়োজনে উপজেলার কোঠাপাড়া বশভাংগা বসন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা, সহপাঠী এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বক্তব্যে বলেন, বসভাঙ্গা বসন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মুক্তারুল ইসলাম মুক্তা দীর্ঘদিন ধরেই ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে পড়িয়ে আসছিলেন। বিভিন্ন ভাবে প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে তিনি ভুক্তভোগী ছাত্রীকে অপহরণ করে অশ্লীল ছবি তোলেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

এর আগেও তিনি তার বিদ্যালয়ের বেশ কিছু ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন যা ওই ছাত্রীদের পরিবার মান সম্মানের ভয়ে মুখ খোলেনি। এখন তিনি মোটা অংকের টাকা দিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চালাচ্ছেন। এ ধরনের কুরুচিপূর্ণ মানুষ শিক্ষক হিসেবে বহাল থাকতে পারেন না বলে জানান বক্তারা। এছাড়াও তাকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে তার যথোপযুক্ত শাস্তির দাবীও জানান বক্তারা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক মুক্তারুল ইসলাম মুক্তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার স্ত্রী তামান্না অক্তার লাকী জানান, মুক্তারুল ইসলাম বাসায় নেই এবং তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা। তিনি একজন আদর্শ শিক্ষক। এলাকার এবং বিদ্যালয়ের একটি কুচক্রি মহল তাকে ফাসানোর জন্যই এসব করছে। এছাড়াও এ বিষয়ে মোটা অংকের টাকা দিয়ে সমাধানের ব্যাপরটিও মিথ্যা বলে তিনি জানান।