• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৫ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
শিরোনাম
হাতিয়ায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যাঁরা শ্রীবরদীতে ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৮ম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থী অনেক আকাংখার কন্যা সন্তানকে কোলে নেয়া হলো না পিতা আতিক মুন্সীর কাজী আনাস, ইসলামিক নাশিদ অঙ্গনে এক উদীয়মান নাম বাঘাইছড়ি মৎস্যচাষী সমবায় সমিতির মতবিনিময় সভা অনুষ্টিত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে গোপালগঞ্জ রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের নব নির্বাচিত কমিটির শ্রদ্ধা দিঘলিয়ায় ইউপি নির্বাচনে আ.লীগর এক বিদ্রোহী পাঁচ প্রার্থীর জয়লাভ মুরাদনগরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে চাচীকে জখম করায় ভাতিজা গ্রেফতার মুরাদনগরে চেয়ারম্যানের সহায়তায় হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার উল্লাপাড়ায় এইচটি ইমাম স্মৃতি ফাইনাল নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

ঝিনাইদহ জেড এ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে অভিনব কৌশলের অভিযোগ

Muktir Lorai / ৭২ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের নারিকেলবাড়িয়া জেড এ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনিয়মের মধ্য দিয়ে ৫টি পদে নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে এই পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে বলে অন্য প্রার্থীদের অভিযোগ। জানাগেছে,বিদ্যালয়ে বুধবার(১৬ জুন) ৫টি পদে নিয়োগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ঝিনাইদহ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। সহকারী প্রধান শিক্ষক ১জন,ল্যাব এসিস্ট্যান্ট ২ জন,আয়া ১ জন ও পিয়ন পদে নিয়োগের জন্য পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে একজন প্রার্থী ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের পছন্দের তালিকায় রয়েছে। অন্যান্য প্রার্থীদের এডমিট কার্ড মঙ্গলবার দুপুরে পাঠানো হয়েছে বিদ্যালয়ের পিয়ন তিতাশকে দিয়ে। জানাগেছে,৫টি পদে প্রায় ২০ জন প্রার্থী আবেদন করেছে। এর আগে দৈনিক নবচিত্র ও যায়যায়দিন পত্রিকায় এই নিয়োগ পত্রের বিজ্ঞাপণ দেওয়া হয়। এই বিষয়ে জানতে প্রধান শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলামকে ০১৭৩১৮৩২২১৬ মোবাইল নাম্বারে কল করলে বন্ধ পাওয়া যায়। সভাপতি অত্র ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ পারভেজ লিল্টনকে ফোন দিলে তার ছেলে রিসিভ করে বলে তারা বাবা ঘুমাচ্ছে। পরীক্ষার মাত্র একদিন আগে কেন প্রবেশপত্র দেওয়া হচ্ছে এই বিষয়ে জানতে একাধীক প্রার্থী প্রধান শিক্ষক ও নিয়োগ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলামের ফোনে কল দিলেও বন্ধ পাওয়া যায়।তিনি কোথায় আছেন এই বিষয়ে নিশ্চিত তথ্য দিতে পারেনি বিদ্যালয়ের অন্য কোন শিক্ষক। এই বিষয়ে জানতে চাইলে ঝিনাইদহ জেলা শিক্ষা অফিসার(তসলিমা খাতুন) জানান,এক দিন আগে প্রবেশপত্র কেন দেবে? নিয়োগ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান শিক্ষক কেন তার মোবাইল ফোন বন্ধ করে রেখেছে এই বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি।প্রশ্নবিদ্ধ হয় এমন কাজ আমরা করবো না। এদিকে প্রার্থীদের যে প্রবেশপত্র দেওয়া হয়েছে সেটা কারোর স্বাক্ষর নেই। কত তারিখে প্রবেশপত্র কোন স্মারকে ইস্যু করা হয়েছে সেটারও কোন উল্লেখ নেই।একটি সাদা কাগজে পদের নাম ও প্রার্থীর নাম ঠিকানা লিখে পাঠানো হয়েছে বিদ্যালয়ের পিয়ন দিয়ে। পিয়ন তিতাশ প্রার্থীর কোন স্বাক্ষর গ্রহণও করেন নি।এই সমস্ত কারণে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে স্বচ্ছতার প্রশ্ন তুলেছেন সচেতন মহল। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ২ জন প্রার্থী জানান, স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি তাদের মনোনিত প্রার্থীকে নিয়োগ দিতেই এই কর্মকাণ্ড করেছেন।


এই বিভাগের আরো সংবাদ