ঢাকা ০২:৪০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় আ’লীগ জড়িত – অ্যাড. নিতাই রায়

ঠাকুরগাঁওয়ের ১২ টি মন্দিরে ১৪টি প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় আ’লীগের লোকজন জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী।

বুধবার (০৮ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি একটি প্রতিনিধি দল জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সিন্দুর পিন্ডি এলাকাসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এমন মন্তব্য করেন।

এসময় অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী বলেন, এটি কোন বিছিন্ন ঘটনা নয় এ সমস্ত ঘটনার পেছনে ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় লোকজন জড়িত। তারাই হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সম্পত্তি ও বাড়িঘর দখল করছে। আর এ কারনেই বহু লোক দেশ ছেড়ে চলে গেছে। ১৯৮৭ সালে এদেশে সমান সমান লোক বসবাস করলেও এখন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যা দশ ভাগ। এসব করার কারন হচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষেরা চলে গেলে তাদের জমি, ধন-সম্পদ ভোগ করবে। থাকলে তাদের সাথে তাল মিলিয়ে ভোট পক্ষে নেয়া আর অন্যায় অত্যাচার করে বাড়ি ও দেশ ছাড়া করতেই আতঙ্ক সৃস্টি করছে।

এসময় আরেক ভাইস চেয়ারম্যন বরকতুল্লাহ বুলু, বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

এছাড়া স্থানীয়রাও প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি করেন।

অন্যদিকে বিএনপি’র প্রতিনিধি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল ও জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজাহারুল ইসলাম সুজন পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, বিএনপি গুজব ছড়াচ্ছে । তাদের আর কোন কাজ নেই। দেশে অরাজকতা সৃস্টি করতেই এমন মন্তব্য করেছেন। যেহেতু সামনে জাতীয় নির্বাচন সেকারনেই সন্দিহান ঘটনাটি ঘটিয়েছে বিএনপি জামায়াত।

উল্লেখ্য, গেল রোববার ৫ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নে ৯টি, পাড়িয়ায় ৪টি ও চাড়োল ইউনিয়নে ১টিসহ বারটি মন্দিরের ১৪টি প্রতিমা ভাংচুর করে দূর্বৃত্তরা।

এ ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

আপলোডকারীর তথ্য

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় আ’লীগ জড়িত – অ্যাড. নিতাই রায়

আপডেট সময় ১২:৫৫:০১ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ঠাকুরগাঁওয়ের ১২ টি মন্দিরে ১৪টি প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় আ’লীগের লোকজন জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী।

বুধবার (০৮ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি একটি প্রতিনিধি দল জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সিন্দুর পিন্ডি এলাকাসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এমন মন্তব্য করেন।

এসময় অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী বলেন, এটি কোন বিছিন্ন ঘটনা নয় এ সমস্ত ঘটনার পেছনে ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় লোকজন জড়িত। তারাই হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সম্পত্তি ও বাড়িঘর দখল করছে। আর এ কারনেই বহু লোক দেশ ছেড়ে চলে গেছে। ১৯৮৭ সালে এদেশে সমান সমান লোক বসবাস করলেও এখন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যা দশ ভাগ। এসব করার কারন হচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষেরা চলে গেলে তাদের জমি, ধন-সম্পদ ভোগ করবে। থাকলে তাদের সাথে তাল মিলিয়ে ভোট পক্ষে নেয়া আর অন্যায় অত্যাচার করে বাড়ি ও দেশ ছাড়া করতেই আতঙ্ক সৃস্টি করছে।

এসময় আরেক ভাইস চেয়ারম্যন বরকতুল্লাহ বুলু, বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

এছাড়া স্থানীয়রাও প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি করেন।

অন্যদিকে বিএনপি’র প্রতিনিধি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল ও জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজাহারুল ইসলাম সুজন পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, বিএনপি গুজব ছড়াচ্ছে । তাদের আর কোন কাজ নেই। দেশে অরাজকতা সৃস্টি করতেই এমন মন্তব্য করেছেন। যেহেতু সামনে জাতীয় নির্বাচন সেকারনেই সন্দিহান ঘটনাটি ঘটিয়েছে বিএনপি জামায়াত।

উল্লেখ্য, গেল রোববার ৫ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নে ৯টি, পাড়িয়ায় ৪টি ও চাড়োল ইউনিয়নে ১টিসহ বারটি মন্দিরের ১৪টি প্রতিমা ভাংচুর করে দূর্বৃত্তরা।

এ ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।