• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
শিরোনাম
পাচার বাণিজ্যে মতানৈক্যের জেরে সীমান্তে অপহৃত নাবালক ৬ চিকিৎসক নিয়ে ধুঁকে ধুঁকে চলছে বরগুনা সরকারি হাসপাতাল সামাজিক দূরত্ব ভুলে রাসিক মেয়র লিটনের খাদ্য সামগ্রী বিতরন সলঙ্গায় ১০কেজি গাঁজাসহ মাদক ব‍্যবসায়ী আটক বরুড়ায় ১৫০ অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন এসকিউ গ্রুপের শফিউদ্দিন শামীম বাবার মৃত্যুর একদিন পর মাকেও হারালেন সহকারী এটর্নি জেনারেল এড. ফারুক সাতক্ষীরা শহরের বাগানবাড়িতে ভূমিহীনদের পুর্নবাসনের দাবিতে উঠান বৈঠক আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মুরাদনগরে দিনব্যাপী ডিউটি অফিসারের ভূমিকায় এএসপি রূপগঞ্জে ওয়ারেন্টভুক্ত চার পলাতক আসামি গ্রেফতার
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

ধামইরহাটে সেনা সদস্যের পিতার হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবী

news / ৬১ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১

মরিয়ম আক্তার, ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর ধামইরহাটে সেনা সদস্যের পিতার হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ দুপুরে উপজেলা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলন করেন সেনা সদস্য কাইফুর ইসলাম। ঘটনার সময় একটি ভিডিও বিভিন্ন মাধ্যমে ফাঁস হয়েছে।
৭ জুলাই দুপুর ১২ টায় ধামইরহাট উপজেলা প্রেস ক্লাবে পরিবারের পক্ষ থেকে সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে সেনা সদস্য ল্যান্স কর্পোরাল কাইফুর ইসলাম জানান, গত ২২ জুলাই উদয়শ্রী গ্রামে নিজ বাড়ির প্রাচির নির্মান কাজ চলছিলো। এ সময় প্রতিবেশী আব্দুল গনির পরিবার বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। একপর্যায়ে গনির লোকজন পরিবারের সদস্যদের বাঁশ ও রড দিয়ে এলোপাথাড়ীভাবে পিটায়। এতে সেনা সদস্যের বাবা ইসমাইল হোসেন গুরুত্বর জখম হয়। চিকিৎসার জন্য প্রথমে ধামইরহাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ও সবশেষে জখমীর অবস্থা গুরুত্বর হলে বগুড়া সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিলে মধ্যরাতে চিকিৎসক ইসমাইল হোসেনকে মৃত ঘোষনা করে।
ওই সেনা সদস্য আরও জানান, ঘটনার পর ১২ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা হলেও মূল আসামীসহ অধিকাংশরাই রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাহিরে। আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় ভিকটিমের পরিবারে শংকা প্রকাশ করেছেন। সম্মেলনে দ্রুতই আসামীদের গ্রেফতার করে আইনী শাস্তি নিশ্চিতের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানানো হয়। সম্মেলনে মামলার বাদী ও মৃত ইসমাইলের স্ত্রী মেহেরুন নেছা, ভাই মাইনুল ইসলাম,জামাই খাইরুল ইসলাম, চাচাতো ভাই সেকেন্দার আলী, ভাতিজা আশিক ইসলাম, নারী নেত্রী ও সমাজসেবী মাহফুজা সরকারসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।


এই বিভাগের আরো সংবাদ