ঢাকা ১০:১৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo রূপসায় ইটভাটার মাটিতে সড়ক বেহাল দশা : হালকা বৃষ্টিতে একের পর এক দূর্ঘটনা Logo জুয়েলারি খাতে আরোপিত শুল্ক হার কমানো ও আর্থিক প্রণোদনার প্রস্তাব বাজুসের Logo বাড়ির পাশে রাস্তার ঢালাই ঢালু হওয়ার অভিযোগে স্ত্রিকে কুপিয়ে জখম Logo দেবিদ্বারে ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক উন্নয়নের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন Logo বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে স্থানীয়দের ক্ষতিপূরণের দাবি Logo রূপগঞ্জে পূর্বশত্রুতার জেরে দুই জনকে পিটিয়ে আহত : থানায় পাল্টা পাল্টি অভিযোগ Logo শিশুর খতনায় অতিরিক্ত রক্তপাত, উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারকে বদলি Logo বরুড়া উপজেলা যুব রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ১৫ সদস্যের কমিটি অনুমোদন Logo যশোরে ট্রাক ও মোটরসাইকেলে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত -২, ঘাতক ট্রাক আটক Logo বনিকপাড়া’র বার্ষিক মহোৎসব শুরু

পর্দার পিছনের মানুষ ফয়সাল আগুন

পায়েল বিশ্বাস: এদেশের ইন্ডাস্ট্রিতে পর্দার পিছনের মানুষদের নিয়ে আলোচনা কিংবা লেখালেখি নেই বললেই চলে। পর্দার অন্তরালে নিজের মেধা ও সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে অজস্র মানুষ কাজ করছেন। তাদের একজন এ এস এম ফয়সাল। অবশ্য এই নামটা শুনে অনেকেই না চিনতে পারেন। মিডিয়া পাড়ায় তাকে সবাই চেনে ফয়সাল আগুন হিসেবে। তাকে নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয় শিহাব শাহীনের নির্মিত ওয়েব সিরিজ ‘মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন’ সম্পর্কে ঘাটতে গিয়ে। এই সিরিজের প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে যুক্ত ছিলেন তিনি।

ছোটবেলা থেকেই চঞ্চল ছিলেন সে-ই সুবাদে বাবা-মা হোস্টেলে দিয়েছিল। তখন থেকেই সিনেমা দেখার প্রতি ঝোঁক বাড়ে তার। সিনেমা দেখার নেশা তাকে এতটাই বুদ করে ফেললো স্বপ্ন দেখা শুরু করলেন বড় হয়ে একদিন নির্মাতা হবেন। স্বপ্নের পথে হেঁটে চলছেন তিনি। নিজেকে সবসময়ই শেখার মধ্যে রাখতে ভালোবাসেন ফয়সাল আগুন। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে বিবিএ তে অনার্স সম্পূর্ণ করলেও মাস্টার্স করেছেন স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ফিল্ম ও মিডিয়া বিভাগ থেকে। কাজের মাধ্যমে সফলতাও পেয়েছিলন সেসময়। ২০১২ সালে নিজের নির্মিত ডকুমেন্টারি ফিল্ম ‘কিরণ’ নির্মাণ করে বেস্ট ফিল্ম এওয়ার্ড ক্যাটাগরিতে প্রথম পুরষ্কার পেয়েছিলেন ‘ফিল্ম এন্ড মিডিয়া ফিল্ম ফেস্ট-২০১২’ প্রতিযোগিতায়। এছাড়া তার নির্মিত আরেকটি ডকুমেন্টারি ‘নিভৃত স্বপ্নচারী’ সে সময় বিটিভিতে দেখানো হয়।

বাংলাদেশের কিংবদন্তি ও গুণী শিল্পীদের নামের তালিকা করা হলে নিঃসন্দেহে প্রথম সারিতে থাকবে মোশাররফ করিম নামের অভিনেতার নাম। আপনি হয়তো জানেন না তার আপন ভাই শামস্ করিম একজন নাট্যনির্মাতা। দীর্ঘদিন তিনি পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত আছেন। এই প্রসঙ্গটা টানার একমাত্র কারন হচ্ছে যিনি নির্মাতা হওয়ার স্বপ্ন বেঁধেছেন কিংবা ডিরেকশন দিচ্ছেন সেই ফয়সাল আগুন এই ফিল্ডে গুরু মানেন পরিচালক শামস করিমকে।
নির্মাতা শামস করিম হাত ধরেই নাটকের কাজ শুরু করেন তিনি। তার সঙ্গে থেকে শিখেছেন অনেক কিছু।

মিডিয়াতে ফয়সাল আগুনের যাত্রা শুরু হয় টেলিভিশন চ্যানেলে কাজ করার মাধ্যমে। শুরুতে বেসরকারি চ্যানেল ‘মাছরাঙা টেলিভিশন’ এ যুক্ত ছিলেন প্রোডাকশন এক্সিকিউটিভ হিসেবে। তারপর ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রোডাকশন এক্সিকিউটিভ (এনসিএ) হিসেবে যুক্ত হন ‘চ্যানেল নাইনে’ এ। পরে বেশ কিছু টেলিভিশন প্রোগ্রামের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রডিউসার হিসেবে কাজ করেছেন।

এখন অব্দি দেড় শতাধিক নাটকে প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। পাশাপাশি গোটা বিশেক এর বেশি নাটকে সহযোগী পরিচালক হিসেবে যুক্ত ছিলেন। অসংখ্য বিজ্ঞাপন ও মিউজিক ভিডিওতে ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছেন ফয়সাল আগুন। এছাড়া অসংখ্য শর্ট ফিল্ম নির্মান করেছেন তিনি যা ইউটিউব এ তার নামে সার্চ করলেই পাওয়া যাবে। নির্মাতা হিসেবে তার পরিচালিত প্রথম একক নাটক ‘সন্দেহবাতিক’ প্রচারিত হয় চেনেল নাইন এ ২০২০ সালে।

নিজের গুরু শামস্ করিম ছাড়াও শিহাব শাহীন, গোলাম সোহরাব দুদুল, তৌকির আহমেদ, ইফাত জাহান মম, প্রিন্স এ আর, গোলাম মুক্তাদির শান, আশরাফুজ্জামান এর মতো নামী নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করছেন ফ্রিল্যান্সার চিফ এসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর হিসেবে।

ওটিটি প্লাটফর্মে যুক্ত ছিলেন শিহাব শাহীনের ‘মায়াশালিক’, ইফাত জাহান মমর ‘মুনতাসির’ ওয়েব ফিল্মে। শিহাব শাহীনের সিন্ডিকেট ও মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন ছাড়াও যুক্ত ছিলেন ঘোর, আইজ্যাক লিটন ওয়েব সিরিজে। নাটক পাড়ায় তার উল্লেখ্যযোগ্য কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, ধারাবাহিক নাটকের মধ্যে —হোসেন ভাইয়ের দোকানে আসা মানুষজন, বউ দৌড়, মধুপুর, রুপালি জোৎস্না, জুলি বিউটিফুল বিশেষ ভাবে উল্লেখ্য। অন্যদিকে একক নাটকের মধ্যে— রুনু ভাই, কমলা রঙের রৌদ, লেখকের মৃত্যু নেই, হেমলেটের ফিরে আসা, ক্রাস, সিক্রেট মাফিয়া, শুচিবাই, রঙিলা ফানুস, খোঁচা, ওয়ান ওয়ে, নীরা, আলাদিন চাচার রাজনৈতিক দৈত্য ইত্যাদি উল্লেখ্য।

নতুন কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন ভাঙা মজিদ, সাদা পায়রা সহ আরও ১৫ টি একক নাটকের কাজ করছি যা খুব তাড়াতাড়ি প্রচার হবে। এছাড়া বাউকুমটা বাতাস, হ্যামিলিয়নের বাশিওয়ালা এখন ঢাকায়, খুব পেইনে আছি নামের ধারাবাহিক নাটকের কাজ করছি। নীল জলের কাব্য ও তারা তিনজন, সন্ধ্যে নামার পর ওয়েব ফিল্মের কাজ প্রায় শেষের দিকে। আর এ বছরেই মুক্তি পাবে দুটি বাণিজ্যিক ছবি – ইব্রাহিম ও কল্প।

নিজে পুরোদমে পরিচালনা কবে শুরু করবেন জানতে চাইলে বলেন এবছরেই তিনি পুরোদমে পরিচালনায় নামছেন আর তার সেই প্রস্তুতিও প্রায় শেষ। তিনি একটু সময় নিচ্ছেন কারন তিনি চান তার কাজ যাতে সবাই মনে রাখে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপসায় ইটভাটার মাটিতে সড়ক বেহাল দশা : হালকা বৃষ্টিতে একের পর এক দূর্ঘটনা

পর্দার পিছনের মানুষ ফয়সাল আগুন

আপডেট সময় ০৪:৫৮:০৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ মে ২০২৩

পায়েল বিশ্বাস: এদেশের ইন্ডাস্ট্রিতে পর্দার পিছনের মানুষদের নিয়ে আলোচনা কিংবা লেখালেখি নেই বললেই চলে। পর্দার অন্তরালে নিজের মেধা ও সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে অজস্র মানুষ কাজ করছেন। তাদের একজন এ এস এম ফয়সাল। অবশ্য এই নামটা শুনে অনেকেই না চিনতে পারেন। মিডিয়া পাড়ায় তাকে সবাই চেনে ফয়সাল আগুন হিসেবে। তাকে নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয় শিহাব শাহীনের নির্মিত ওয়েব সিরিজ ‘মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন’ সম্পর্কে ঘাটতে গিয়ে। এই সিরিজের প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে যুক্ত ছিলেন তিনি।

ছোটবেলা থেকেই চঞ্চল ছিলেন সে-ই সুবাদে বাবা-মা হোস্টেলে দিয়েছিল। তখন থেকেই সিনেমা দেখার প্রতি ঝোঁক বাড়ে তার। সিনেমা দেখার নেশা তাকে এতটাই বুদ করে ফেললো স্বপ্ন দেখা শুরু করলেন বড় হয়ে একদিন নির্মাতা হবেন। স্বপ্নের পথে হেঁটে চলছেন তিনি। নিজেকে সবসময়ই শেখার মধ্যে রাখতে ভালোবাসেন ফয়সাল আগুন। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে বিবিএ তে অনার্স সম্পূর্ণ করলেও মাস্টার্স করেছেন স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ফিল্ম ও মিডিয়া বিভাগ থেকে। কাজের মাধ্যমে সফলতাও পেয়েছিলন সেসময়। ২০১২ সালে নিজের নির্মিত ডকুমেন্টারি ফিল্ম ‘কিরণ’ নির্মাণ করে বেস্ট ফিল্ম এওয়ার্ড ক্যাটাগরিতে প্রথম পুরষ্কার পেয়েছিলেন ‘ফিল্ম এন্ড মিডিয়া ফিল্ম ফেস্ট-২০১২’ প্রতিযোগিতায়। এছাড়া তার নির্মিত আরেকটি ডকুমেন্টারি ‘নিভৃত স্বপ্নচারী’ সে সময় বিটিভিতে দেখানো হয়।

বাংলাদেশের কিংবদন্তি ও গুণী শিল্পীদের নামের তালিকা করা হলে নিঃসন্দেহে প্রথম সারিতে থাকবে মোশাররফ করিম নামের অভিনেতার নাম। আপনি হয়তো জানেন না তার আপন ভাই শামস্ করিম একজন নাট্যনির্মাতা। দীর্ঘদিন তিনি পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত আছেন। এই প্রসঙ্গটা টানার একমাত্র কারন হচ্ছে যিনি নির্মাতা হওয়ার স্বপ্ন বেঁধেছেন কিংবা ডিরেকশন দিচ্ছেন সেই ফয়সাল আগুন এই ফিল্ডে গুরু মানেন পরিচালক শামস করিমকে।
নির্মাতা শামস করিম হাত ধরেই নাটকের কাজ শুরু করেন তিনি। তার সঙ্গে থেকে শিখেছেন অনেক কিছু।

মিডিয়াতে ফয়সাল আগুনের যাত্রা শুরু হয় টেলিভিশন চ্যানেলে কাজ করার মাধ্যমে। শুরুতে বেসরকারি চ্যানেল ‘মাছরাঙা টেলিভিশন’ এ যুক্ত ছিলেন প্রোডাকশন এক্সিকিউটিভ হিসেবে। তারপর ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রোডাকশন এক্সিকিউটিভ (এনসিএ) হিসেবে যুক্ত হন ‘চ্যানেল নাইনে’ এ। পরে বেশ কিছু টেলিভিশন প্রোগ্রামের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রডিউসার হিসেবে কাজ করেছেন।

এখন অব্দি দেড় শতাধিক নাটকে প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। পাশাপাশি গোটা বিশেক এর বেশি নাটকে সহযোগী পরিচালক হিসেবে যুক্ত ছিলেন। অসংখ্য বিজ্ঞাপন ও মিউজিক ভিডিওতে ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছেন ফয়সাল আগুন। এছাড়া অসংখ্য শর্ট ফিল্ম নির্মান করেছেন তিনি যা ইউটিউব এ তার নামে সার্চ করলেই পাওয়া যাবে। নির্মাতা হিসেবে তার পরিচালিত প্রথম একক নাটক ‘সন্দেহবাতিক’ প্রচারিত হয় চেনেল নাইন এ ২০২০ সালে।

নিজের গুরু শামস্ করিম ছাড়াও শিহাব শাহীন, গোলাম সোহরাব দুদুল, তৌকির আহমেদ, ইফাত জাহান মম, প্রিন্স এ আর, গোলাম মুক্তাদির শান, আশরাফুজ্জামান এর মতো নামী নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করছেন ফ্রিল্যান্সার চিফ এসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর হিসেবে।

ওটিটি প্লাটফর্মে যুক্ত ছিলেন শিহাব শাহীনের ‘মায়াশালিক’, ইফাত জাহান মমর ‘মুনতাসির’ ওয়েব ফিল্মে। শিহাব শাহীনের সিন্ডিকেট ও মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন ছাড়াও যুক্ত ছিলেন ঘোর, আইজ্যাক লিটন ওয়েব সিরিজে। নাটক পাড়ায় তার উল্লেখ্যযোগ্য কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, ধারাবাহিক নাটকের মধ্যে —হোসেন ভাইয়ের দোকানে আসা মানুষজন, বউ দৌড়, মধুপুর, রুপালি জোৎস্না, জুলি বিউটিফুল বিশেষ ভাবে উল্লেখ্য। অন্যদিকে একক নাটকের মধ্যে— রুনু ভাই, কমলা রঙের রৌদ, লেখকের মৃত্যু নেই, হেমলেটের ফিরে আসা, ক্রাস, সিক্রেট মাফিয়া, শুচিবাই, রঙিলা ফানুস, খোঁচা, ওয়ান ওয়ে, নীরা, আলাদিন চাচার রাজনৈতিক দৈত্য ইত্যাদি উল্লেখ্য।

নতুন কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন ভাঙা মজিদ, সাদা পায়রা সহ আরও ১৫ টি একক নাটকের কাজ করছি যা খুব তাড়াতাড়ি প্রচার হবে। এছাড়া বাউকুমটা বাতাস, হ্যামিলিয়নের বাশিওয়ালা এখন ঢাকায়, খুব পেইনে আছি নামের ধারাবাহিক নাটকের কাজ করছি। নীল জলের কাব্য ও তারা তিনজন, সন্ধ্যে নামার পর ওয়েব ফিল্মের কাজ প্রায় শেষের দিকে। আর এ বছরেই মুক্তি পাবে দুটি বাণিজ্যিক ছবি – ইব্রাহিম ও কল্প।

নিজে পুরোদমে পরিচালনা কবে শুরু করবেন জানতে চাইলে বলেন এবছরেই তিনি পুরোদমে পরিচালনায় নামছেন আর তার সেই প্রস্তুতিও প্রায় শেষ। তিনি একটু সময় নিচ্ছেন কারন তিনি চান তার কাজ যাতে সবাই মনে রাখে।