বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

বঙ্গবন্ধু শিশু কল্যাণকেন্দ্রের উদ্যোগে আলোচনা অনুষ্ঠিত

Muktir Lorai / ১২৮ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শনিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টারঃ
আজ ২৬ ডিসেম্বর ২০২০ইং রোজ, শনিবার সকাল ১০.৩০ ঘটিকায় ইকোনোমিক্স ফোরাম হলরুম, ৮৭ পুরানা পল্টন লাইন, পল্টন টাওয়ার ৩য় তলায় (কালভার্ট রোড), ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শিশু কল্যাণকেন্দ্রের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী-মহান বিজয় দিবস ও করোনা কালীন সময়ে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি জনাব মুশফিকুর রহমান মিন্টু’র সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভায় গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন, ডা. উত্তম কুমার বড়–য়া, যুগ্ম মহাসচিব, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, অব্দুল মতিন ভূঁইয়া, সাংস্কৃতিক সম্পাদক, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, অরুণ সরকার রানা, সাধারণ সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এমজেএফ, সভাপতি, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ, কাজী মাসুদ আহমেদ, সভাপতি, কাজী আরেফ ফাউন্ডেশন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ মমতাজ বেগম, ভাইচ চেয়ারম্যান বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ, প্রীতি সারমান, আন্তর্জাতিক মাববাধিকার সংগঠক, মোস্তাক আহমেদ ভাসানী, চেয়ারম্যান ন্যাপ-ভাসানী, মোঃ আজিজুল হক, সংগঠক ও সমাজসেবকসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। কৃষ্ণপদ রায়, ভাইস চেয়ারম্যান আমেরিকা বাংলাদেশ ইউনির্ভাসিটি এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. উত্তম কুমার বড়–য়া বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। তিনিই একজন স্বার্থক নেতা, যিনি জীবদ্দশায় স্বাধীন দেশ দেখে গেছেন। বঙ্গবন্ধুর আগে অনেক বাঘা বাঘা নেতা জন্মনিয়ে ছিলেন। কিন্তু বাঙালির স্বাধীনতা দিতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু সারা জীবন বাঙালির মুক্তি, অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা অর্জন, শোষিত বঞ্চিত, অধিকার হারা মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর সেই স্বপ্ন উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া ধুলিস্যাৎ হয়ে যায়। আশার বিষয় বঙ্গবন্ধুর কন্যা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, ঠিক সেই সময়ে উগ্র, ধর্মান্ধ, মৌলবাদি শক্তি দেশে অশান্তি সৃষ্টির মাধ্যমে দেশকে আবার পিছিয়ে দিতে চাই। করোনা মহামারির থেকে দেশকে রক্ষাকরার কৃতিত্ব এক মাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তিনি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আব্দুল মতিন ভূঁইয়া বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বিশ্ব আমাদের উন্নয়ন সফলতা দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেছে। তারা আজ বলছে, উন্নয়ন রূপকল্প দেখতে হলে বাংলাদেশকে অনুসরণ কর। সত্যি আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, দেশ যখন স্বাধীনতার ৫০ বছরপূর্তী, বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালন ও সফলভাবে করোনা মোকাবেলা করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, সেই সময়ে মৌলবাদি শক্তির আস্ফালন অশুভ ইঙ্গিত বহন করে। লায়ন গনি মিয়া বাবুল বলেন, বঙ্গবন্ধু সবসময় বাঙালির কথা ভাবতেন। বাঙালি স্বাধীন হবে, উন্নত সমৃদ্ধ জীবন পাবে, সেই লক্ষ্যে নিয়েই তিনি কাজ করেছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা মমতাজ বেগম বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের শক্তি, সাহস ও অনুপ্রেরণা। তিনি আছেন আমাদের হৃদয়ে। সভাপতির বক্তব্যে মুশফিকুর রহমান মিন্টু বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশু দের খুব ভালবাসতেন। তিনি শিশু দের নিয়ে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। পরে কৃষ্ণপদ রায়ের উপস্থাপনায় স্বাস্থ্য সচেতনতা মূলক একটি ভিডিও উপস্থাপন করা হয়।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »