ঢাকা ০৮:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo বরুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিদায় ও বরন অনুষ্ঠিত Logo প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল-জয়দেবপুর থানার ওসির কান্ড! Logo রাজউক আইন ভঙ্গ করে বহুতল ভবন/মার্কেট নির্মাণ (পর্ব-২) Logo বড় ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে দুই ভাইয়ের মৃত্যু Logo ঘূর্ণিঝড় রেমাল’র প্রস্তুতি পর্যবেক্ষণে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী মুহিব Logo সাদুল্লাপুরে ১০কেজি শুকনো গাঁজাসহ দুইজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo এমপি আনারের মাংস কেটে কিমা করা কসাই জিহাদের ১২ দিনের রিমান্ড Logo চাকরি গেলেও কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা করতেন শাহারুল Logo বাঘাইছড়ি ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত Logo ঝিনাইদহে দুই মহিলার গলা কেটে দুই লক্ষ টাকা ছিনতাই

বরুড়ায় তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ কুমিল্লার বরুড়ায় তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে এক সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার উপজেলার ১৩ নং আদ্রা ইউনিয়নের কাকৈরতালা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার একবাড়ীয়া – ভাউসার সড়কের কাকৈরতালা গ্রামের সিমা কামালের বাড়ির সামনে ৩টি সরকারি গাছ কাটাতে দেখে ওই সাংবাদিক বিষয়টি জানতে চায়।

এসময় এক যুবক বলেন, স্থানীয় ইউনিয়নের মহিলা সদস্য আয়েশার কথায় আমরা গাছগুলো কেটেছি।

এসময় ওই সাংবাদিক আয়েশা মেম্বারকে মুঠো ফোনে বিষয়টি অবগত করলে তিনি বলেন, আপনি থাকেন আমি আসতেছি, এসে আপনার সাথে সরাসরি কথা বলবো।

এসময় বন বিভাগের অনুমতি পত্র ও বরুড়া উপজেলার নির্বাহী অফিসারের স্বাক্ষরিত গাছ কাটার অনুমতির পত্র নিয়ে আসেন এক যুবক। এতে দেখা যায় সিমা কামাল নামের এক মহিলা তিনটি গাছ ২৫ হাজার ৬৮০ টাকায় ক্রয় করেন। গাছ কাটার অনুমতি পত্র দেখে ওই সাংবাদিক চলে আসার সময় আয়েশা মেম্বার তাকে চায়ের আমন্ত্রণ করেন।

এসময় কাকৈরতলা গ্রামের ৫-৬ জন পুরুষ সহ ওই সাংবাদিককে সিমা কামালের বাড়ির ড্রয়িং রুমে বসায়।
বসার সাথে সাথেই আয়েশা মেম্বার ওই সাংবাদিকের কাছে থাকা মুঠো ফোনটি চিনিয়ে নেয় এবং তার কাঁধের ব্যাগ খুলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। ব্যাগ নিয়ে টানা টানির সময় আয়েশা মেম্বারের ইঙ্গিতে পাশে থাকা অন্য মহিলা একটা ছবি তোলেন।
তখন আয়েশা মেম্বার বলেন আপনি আমরা বোরকা ও ওড়না ধরে টান দিয়েছেন কেন। এক পর্যায়ে ওই সাংবাদিকের ছেলে বলেন আন্টি আপনি মিথ্যা কথা বলেন কেন, আব্বু তো আপনার সাথে খারাপ ব্যবহার করেননি আপনি এরকম করছেন কেন।

পরে ওই সাংবাদিক ও তার সাথে থাকা ছেলেকে ড্রয়িং রুমে রেখে বাহির থেকে দরজা লক করে দেন। এর ১০/১৫ মিনিট পরে কাকৈর তলা গ্রামের সাংবাদিক সুজন মজুমদার এসে ওই সাংবাদিকের মুঠো ফোন সহ তাদেরকে উদ্ধার করেন।

এ বিষয়ে ওই সাংবাদিক বরুড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
যাহার এস ডি আর নাম্বার- ১৯৯/২৩

আপলোডকারীর তথ্য

বরুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিদায় ও বরন অনুষ্ঠিত

বরুড়ায় তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

আপডেট সময় ০৫:৩৩:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টারঃ কুমিল্লার বরুড়ায় তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে এক সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার উপজেলার ১৩ নং আদ্রা ইউনিয়নের কাকৈরতালা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার একবাড়ীয়া – ভাউসার সড়কের কাকৈরতালা গ্রামের সিমা কামালের বাড়ির সামনে ৩টি সরকারি গাছ কাটাতে দেখে ওই সাংবাদিক বিষয়টি জানতে চায়।

এসময় এক যুবক বলেন, স্থানীয় ইউনিয়নের মহিলা সদস্য আয়েশার কথায় আমরা গাছগুলো কেটেছি।

এসময় ওই সাংবাদিক আয়েশা মেম্বারকে মুঠো ফোনে বিষয়টি অবগত করলে তিনি বলেন, আপনি থাকেন আমি আসতেছি, এসে আপনার সাথে সরাসরি কথা বলবো।

এসময় বন বিভাগের অনুমতি পত্র ও বরুড়া উপজেলার নির্বাহী অফিসারের স্বাক্ষরিত গাছ কাটার অনুমতির পত্র নিয়ে আসেন এক যুবক। এতে দেখা যায় সিমা কামাল নামের এক মহিলা তিনটি গাছ ২৫ হাজার ৬৮০ টাকায় ক্রয় করেন। গাছ কাটার অনুমতি পত্র দেখে ওই সাংবাদিক চলে আসার সময় আয়েশা মেম্বার তাকে চায়ের আমন্ত্রণ করেন।

এসময় কাকৈরতলা গ্রামের ৫-৬ জন পুরুষ সহ ওই সাংবাদিককে সিমা কামালের বাড়ির ড্রয়িং রুমে বসায়।
বসার সাথে সাথেই আয়েশা মেম্বার ওই সাংবাদিকের কাছে থাকা মুঠো ফোনটি চিনিয়ে নেয় এবং তার কাঁধের ব্যাগ খুলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। ব্যাগ নিয়ে টানা টানির সময় আয়েশা মেম্বারের ইঙ্গিতে পাশে থাকা অন্য মহিলা একটা ছবি তোলেন।
তখন আয়েশা মেম্বার বলেন আপনি আমরা বোরকা ও ওড়না ধরে টান দিয়েছেন কেন। এক পর্যায়ে ওই সাংবাদিকের ছেলে বলেন আন্টি আপনি মিথ্যা কথা বলেন কেন, আব্বু তো আপনার সাথে খারাপ ব্যবহার করেননি আপনি এরকম করছেন কেন।

পরে ওই সাংবাদিক ও তার সাথে থাকা ছেলেকে ড্রয়িং রুমে রেখে বাহির থেকে দরজা লক করে দেন। এর ১০/১৫ মিনিট পরে কাকৈর তলা গ্রামের সাংবাদিক সুজন মজুমদার এসে ওই সাংবাদিকের মুঠো ফোন সহ তাদেরকে উদ্ধার করেন।

এ বিষয়ে ওই সাংবাদিক বরুড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
যাহার এস ডি আর নাম্বার- ১৯৯/২৩