বিআরটিসি বাসেও অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে দ্বীগুন ভাড়া

রাকিবুল ইসলাম, রূপগঞ্জে (নারায়নগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ ভুলতা-কুড়িল সড়কে চলাচলরত বিআরটিসি বাসে চরম যাত্রী হয়রানী চলছে। যাত্রী বোঝাই বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, যাত্রীদের সাথে অসদাচরণ, ব্রীজের টোল ফাকি আর নোটিশ ছাড়া জায়গায় জায়গায় কাউন্টার বন্ধের অভিযোগ উঠেছে এই পরিবহন সংস্থার বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় এ রুটে চলাচল করতে দেয়া হয় না অন্য কোন গণপরিবহন। অতিরিক্ত যাত্রীর কারনে স্বাস্থ্যবিধি চরম ঝুকিতে পরেছে এই পরিবহনে চলাচলরত যাত্রীদের। রবিবার সকাল ১০ টার দিকে বিআরটিসি বাস ও বাস কাউন্টারে সরেজমিনে গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে।
জানা গেছে, করোনা সংক্রমণরোধে গণপরিবহনে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করে গণপরিহণ গুলোকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে নির্দেশনা প্রদান করা হয়। বিআরটিসি বাস কাউন্টারটির ইজারা পান জিল্লুর নামে এক ব্যক্তি।
রূপগঞ্জের গাউছিয়া এলাকা থেকে কুড়িল বিশ্বরোড পর্যন্ত চলাচলরত বিআরটিসি বাসে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি হলেও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অতিরিক্ত যাত্রী উঠিয়ে চলাচল করছে বিআরটিসি।
যাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন, গাউছিয়া থেকে কুড়িল বিশ্বরোড পর্যন্ত একমাত্র বিআরটিসি বাসই চলাচল করে। গাউছিয়া থেকে কুড়িল বিশ্বরোডের ভাড়া ৪০ টাকা হলেও অতিরিক্ত ভাড়া নিয়েও নেওয়া হচ্ছে ৬৫ টাকা। এ রুটে অন্যকোন গণপরিহণ না থাকায় সাধারণ মানুষ বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে চলাচল করছে। এতে সাধাণ মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।
কাঞ্চন এলাকার যাত্রী জামাল মতুয়া অভিযোগ করে বলেন, গাউছিয়া থেকে কুড়িল বিশ্বরোড পর্যন্ত একমাত্র বিআরটিসি বাসই চলাচল করে। গাউছিয়া থেকে কুড়িল বিশ্বরোডের ভাড়া ৪০ টাকা হলেও অতিরিক্ত ভাড়া নিয়েও নেওয়া হচ্ছে ৬৫ টাকা। এ রুটে অন্য কোন গণপরিহণ না থাকায় সাধারণ মানুষ বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে চলাচল করছে। এতে সাধাণ মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।
আতাউর, সোহেল, সিয়াম, আমেনাসহ ৫-৬ জন যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দিনের পর দিন বিআরটিসি বাসে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে কিন্তু বাসে যাত্রীও উঠানো হচ্ছে অতিরিক্ত। যাত্রীরা কেউ অতিরিক্ত ভাড়ার ব্যাপারে প্রতিবাদ করলে বাস কাউন্টারের লোকজন তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ ও মারধর করে। এই রুটে অন্য কোন গণপরিবহণ না থাকায় আমরা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে চলাচল করছি। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের ব্যাপারে আমরা বিআরটিসি বাস ডিপো ব্যবস্থাপকের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।
এ ব্যাপারে রূপগঞ্জের বিআরটিসি বাসের ঠিকাদার জিল্লুর বলেন, সরকার নির্ধারিত ভাড়া নিয়েই বিআরটিসি বাস চলাচল করছে। অতিরিক্ত যাত্রী নেওয়াটা অন্যায়। অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ার পিছনে আমাদের হাত নাই। আমাদের অগোচরে যাত্রী বেশি নিয়ে বাস চালাচ্ছে ড্রাইভার ও সহকারীরা।
গাজিপুর বিআরটিসি বাস ডিপোর ব্যবস্থাপক জিয়াউর রহমান বলেন, বিআরটিসিতে যাত্রী হয়রানী হলে প্রতিটি বাসে আমাদের হটলাইন নাম্বার দেয়া আছে। কোন যাত্রী অভিযোগ করলে আমরা সাথে সাথে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেই। তবে বর্তমানে বাস সংকট আর রাস্তা খারাপ হবার কারনে যাত্রীদের কিছুটা হয়রানী হতে হচ্ছে বলে স্বীকার করেন তিনি। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *