ঢাকা ০৯:৫৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিতর্কিত পাঠ্যপুস্তক প্রত্যাহার করতে হবে..নাগরিক মঞ্চের নেতৃবৃন্দ

সোমবার নাগরিক মঞ্চের উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় জাতীয় পাঠ্যপুস্তকে ইসলাম বিদ্বেষী চ্যাপ্টার বাতিল ও গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি রোধ ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারসহ ১১ দফা দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, জাতীয় পাঠ্যপুস্তকে ইসলাম বিদ্বেষী চ্যাপ্টার সংযোজন করে দেশের জনগণের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছে। সংখ্যাগরিষ্ট মুসলিমদের দেশে বিতর্কিত শিক্ষা ব্যবস্থা কখনই গ্রহণযোগ্য নয়। এই হীন কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। অনতিবিলম্বে দেশের সকল স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা থেকে বিতর্কিত পাঠ্যপুস্তক প্রত্যাহার করে দ্রুত নতুন ও গ্রহণযোগ্য পাঠ্যপুস্তক পৌঁছে দিতে হবে।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, ৯৫% মুসলমানের দেশে সরকার নাস্তিক্যবাদী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তন করে দেশে নাসতিক তৈরীর ষড়যন্ত্র করছে। বানর হতে মানুষের উৎপত্তি এই ধরণের ইসলাম বিরোধী পাঠ্যদান প্রমাণ করে এই সরকার ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আমরা জানি মানুষের সৃষ্টি হয়েছে আদম (আঃ) থেকে অথচ তারা ডারউইনের মতবাদ এবং বানর হতে মানুষের উৎপত্তি এইধরণের অবাস্তব ও কল্পকাহিনী সিলেবাসে অন্তর্ভূক্ত করে আগামী প্রজন্মকে ইসলাম বিদ্বেষী ও নাস্তিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়। তিনি শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে বলেন, ১০ বছর আগেও তো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিলো, তাহলে কি করে বলে যে এই শিক্ষানীতি ১০ বছর আগের। এই অপকর্মের জন্য শিক্ষামন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলের পদত্যাগ দাবি করেন। তিনি দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবেনা। গণঅভ্যূত্থানের মধ্যদিয়েই সরকারের পতন ঘটানো হবে। তিনি সকল রাজবন্দী ও আলেম-ওলামাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী আহসান উল্লাহ শামীম বলেন, নাগরিক মঞ্চ কোন রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যে তৈরী করা হয়নি। এটি জনগণের অধিকার, আইনের শাসন ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তৈরী হয়েছে। আমরা জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলন করছি। দেশের সর্ববৃহত বিরোধী দল বিএনপি এবং জামায়াতের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করে তিনি বলেন, নির্যাতন নিপীড়ন করে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা যয়না। আমাদের আন্দোলন ততক্ষন পর্য়ন্ত চলবে যতদিন না গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা না হয়।

বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক মাসুদ হোসেন বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘনের চরম সীমা অতিক্রম করেছে। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় তৈরী করে রেখেছে। যাহা দেশে বিদেশে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবে আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। অনতিবিলম্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে কাজ করতে হবে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব। আরো বক্তব্য রাখেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম, গণঅধিকার পরিষদের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ রাশেদ খান, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিজু, জিয়াউর রহমান সমাজকল্যাণ পরিষদ (জিসপ) সভাপতি এম গিয়াস উদ্দিন খোকন, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান তামান্না, জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মিয়া মোঃ আনোয়ার, বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক কাউন্সিলের সভাপতি এম এ হালিম, বাংলাদেশ ইসলামী সমাজতান্ত্রিক দলের চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান, এনডিএম এর সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন নুরুজ্জামান হীরা, দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজবাহ হোসেন, ইসলামি সমাজতান্ত্রিক দলের মহাসচিব কমর উদ্দিন লিটন, সাংবাদিক কাজী ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

বিতর্কিত পাঠ্যপুস্তক প্রত্যাহার করতে হবে..নাগরিক মঞ্চের নেতৃবৃন্দ

আপডেট সময় ০৩:৩৮:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

সোমবার নাগরিক মঞ্চের উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় জাতীয় পাঠ্যপুস্তকে ইসলাম বিদ্বেষী চ্যাপ্টার বাতিল ও গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি রোধ ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারসহ ১১ দফা দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, জাতীয় পাঠ্যপুস্তকে ইসলাম বিদ্বেষী চ্যাপ্টার সংযোজন করে দেশের জনগণের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছে। সংখ্যাগরিষ্ট মুসলিমদের দেশে বিতর্কিত শিক্ষা ব্যবস্থা কখনই গ্রহণযোগ্য নয়। এই হীন কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। অনতিবিলম্বে দেশের সকল স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা থেকে বিতর্কিত পাঠ্যপুস্তক প্রত্যাহার করে দ্রুত নতুন ও গ্রহণযোগ্য পাঠ্যপুস্তক পৌঁছে দিতে হবে।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, ৯৫% মুসলমানের দেশে সরকার নাস্তিক্যবাদী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তন করে দেশে নাসতিক তৈরীর ষড়যন্ত্র করছে। বানর হতে মানুষের উৎপত্তি এই ধরণের ইসলাম বিরোধী পাঠ্যদান প্রমাণ করে এই সরকার ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আমরা জানি মানুষের সৃষ্টি হয়েছে আদম (আঃ) থেকে অথচ তারা ডারউইনের মতবাদ এবং বানর হতে মানুষের উৎপত্তি এইধরণের অবাস্তব ও কল্পকাহিনী সিলেবাসে অন্তর্ভূক্ত করে আগামী প্রজন্মকে ইসলাম বিদ্বেষী ও নাস্তিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়। তিনি শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে বলেন, ১০ বছর আগেও তো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিলো, তাহলে কি করে বলে যে এই শিক্ষানীতি ১০ বছর আগের। এই অপকর্মের জন্য শিক্ষামন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলের পদত্যাগ দাবি করেন। তিনি দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবেনা। গণঅভ্যূত্থানের মধ্যদিয়েই সরকারের পতন ঘটানো হবে। তিনি সকল রাজবন্দী ও আলেম-ওলামাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী আহসান উল্লাহ শামীম বলেন, নাগরিক মঞ্চ কোন রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যে তৈরী করা হয়নি। এটি জনগণের অধিকার, আইনের শাসন ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তৈরী হয়েছে। আমরা জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলন করছি। দেশের সর্ববৃহত বিরোধী দল বিএনপি এবং জামায়াতের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করে তিনি বলেন, নির্যাতন নিপীড়ন করে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা যয়না। আমাদের আন্দোলন ততক্ষন পর্য়ন্ত চলবে যতদিন না গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা না হয়।

বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক মাসুদ হোসেন বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘনের চরম সীমা অতিক্রম করেছে। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় তৈরী করে রেখেছে। যাহা দেশে বিদেশে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবে আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। অনতিবিলম্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে কাজ করতে হবে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব। আরো বক্তব্য রাখেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম, গণঅধিকার পরিষদের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ রাশেদ খান, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিজু, জিয়াউর রহমান সমাজকল্যাণ পরিষদ (জিসপ) সভাপতি এম গিয়াস উদ্দিন খোকন, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান তামান্না, জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মিয়া মোঃ আনোয়ার, বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক কাউন্সিলের সভাপতি এম এ হালিম, বাংলাদেশ ইসলামী সমাজতান্ত্রিক দলের চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান, এনডিএম এর সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন নুরুজ্জামান হীরা, দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজবাহ হোসেন, ইসলামি সমাজতান্ত্রিক দলের মহাসচিব কমর উদ্দিন লিটন, সাংবাদিক কাজী ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।