ঢাকা ০৯:২৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo রূপসায় ইটভাটার মাটিতে সড়ক বেহাল দশা : হালকা বৃষ্টিতে একের পর এক দূর্ঘটনা Logo জুয়েলারি খাতে আরোপিত শুল্ক হার কমানো ও আর্থিক প্রণোদনার প্রস্তাব বাজুসের Logo বাড়ির পাশে রাস্তার ঢালাই ঢালু হওয়ার অভিযোগে স্ত্রিকে কুপিয়ে জখম Logo দেবিদ্বারে ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক উন্নয়নের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন Logo বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে স্থানীয়দের ক্ষতিপূরণের দাবি Logo রূপগঞ্জে পূর্বশত্রুতার জেরে দুই জনকে পিটিয়ে আহত : থানায় পাল্টা পাল্টি অভিযোগ Logo শিশুর খতনায় অতিরিক্ত রক্তপাত, উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারকে বদলি Logo বরুড়া উপজেলা যুব রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ১৫ সদস্যের কমিটি অনুমোদন Logo যশোরে ট্রাক ও মোটরসাইকেলে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত -২, ঘাতক ট্রাক আটক Logo বনিকপাড়া’র বার্ষিক মহোৎসব শুরু

মাছ ধরায় ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা ঘাটে ফিরছে জেলেরা

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ সাগরে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার কারণে কক্সবাজার উপকূলে ফিরতে শুরু করেছে মাছ ধরার ট্রলারগুলো। এরই মধ্যে উপকূলে নোঙর করেছে শত শত ট্রলার। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা, বৈরি আবহাওয়ার প্রভাব ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির বাজারে টিকে থাকতে এই আইনের সংশোধন আনতে সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন জেলেরা।

শনিবার (২০ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার সময় নাজিরারটেক মাছ ঘাটে মৎস্য ব্যবসায়ী ও ট্রলার মালিকরা বলছেন, নিষেধাজ্ঞার সময় ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশের জলসীমায় প্রবেশ করে মাছ শিকার করে, তাই তাদের ঠেকাতে সাগরে নজরদারি বাড়ানো দরকার।

দেশের মৎস্য সম্পদের সুরক্ষা ও মাছের বংশবিস্তারে সাগরে মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হচ্ছে আজ। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শুরু হতে যাওয়া এই নিষেধাজ্ঞা আগামী ২৩ জুলাই পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

জানা যায়, ২০১৫ সাল থেকে বঙ্গোপসাগরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রলারে প্রতিবছর ৬৫ দিন মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা চালু করা হয় পরে ২০১৯ সালে সব ধরনের নৌযানকে এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়। শুরু থেকেই জেলেরা এই নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করলেও মৎস্য বিভাগ বলছে, নিষেধাজ্ঞার কারণে সামুদ্রিক মাছের পরিমাণ বাড়ছে তবে জেলেদের এই সময়টাতে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে ভবিষ্যতে আরও সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে।

সকালে বাঁকখালী নদীস্থ ফিশারিঘাটসহ আশেপাশের এলাকাগুলো ঘুরে দেখা যায়, সরকারি ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা, তাই সাগরে মাছ শিকার না করে একের পর এক ট্রলার ফিরছে উপকূলে। এসব ট্রলার নোঙর করছে বাঁকখালী নদীর তীরে। তবে আগত জেলেদের চোখে-মুখে হতাশার ছাপ। কারণ অনেক জেলেরই ঋণের বোঝা মাথায়। জেলেদের দাবি, নিষেধাজ্ঞার সময় খাদ্য সহায়তার পরিমাণ বৃদ্ধিসহ আর্থিক সহায়তা প্রদানের।

গভীর সমুদ্র থেকে কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের জেটি ঘাটে ফেরা এফবি মায়ের দোয়া ট্রলারের মাঝি নুর মোহাম্মদ বলেন, ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’র সময়ে ৭ দিন ছিলাম তীরে। তার পরে সাগরে ছিলাম ৪ দিন আবার চলে আসছি। ১ লাখ টাকা খরচ করে ৪০ হাজার টাকা মাছ বিক্রি করেছি। সরকার আমাদের ৮৬ কেজি চাল দেয় কিন্তু এই বাজারে শুধু চাল দিয়ে সংসার চলে?
আরেক জেলে ছৈয়দ আলম বলেন, সরকার অবরোধ দেয় তা আমরা মানি এবং উপকারও পাচ্ছি। তবে ৬৫ দিনের অবরোধে জেলেরা ঋণের বোঝা বাড়াচ্ছে অন্যদিকে ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশের জলসীমায় প্রবেশ করে মাছ শিকার করে নিচ্ছে। আমাদের দাবি, এই সকল বিষয়ে সরকার যেন নজর দেয়।

আর নিষেধাজ্ঞাকালীন ভারতীয় জেলেদের সমুদ্রে মাছ ধরা রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানালেন মৎস্য ব্যবসায়ীরা। মৎস্য ব্যবসায়ী শামীম আহমেদ বলেন, মৎস্য ভিত্তিক অর্থনীতির সুরক্ষায় এসব জেলেদের পেশা পরিবর্তন রোধে খাদ্য সহায়তার পরিমাণ বৃদ্ধিসহ আর্থিক সহায়তা প্রদানের। এছাড়াও নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে ভারতীয় জেলেদের আগ্রাসন রোধেও কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার।

অন্যদিকে জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির দাবি, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সংশোধন এবং জেলেদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করা।

জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, নিষেধাজ্ঞার কারণে এরই মধ্যে উপকূলে শত শত মাছ ধরার ট্রলার উপকূলে ফিরেছে। বাকি ট্রলারগুলোও শনিবার সকালের মধ্যে ফিরে আসবে। সরকারের দেওয়া সকল আইন জেলেরা মেনে আসছে। তবে আমাদের দাবি, যদি সরকার এই পেশাকে টিকিয়ে রাখতে চায় তাহলে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সংশোধন এবং জেলেদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করতে হবে তা-না হলে দিনদিন এই পেশা বিলীন হতে থাকবে।

এদিকে প্রশাসন জানিয়েছে, সমুদ্র সম্পদ রক্ষা ও বৃদ্ধিতে সরকার যে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তা সঠিকভাবে বাস্তবায়নে নৌ-পুলিশ, কোস্ট-গার্ড, নৌবাহিনীসহ সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সার্বিকভাবে তৎপর থাকবে। জেলেদেরকে পর্যাপ্ত সচেতন করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা সময়ের মধ্যে কেউ মাছ শিকারে গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কক্সবাজারে নিবন্ধিত নৌযান রয়েছে ৫ হাজার ১১৩টি। আর ১ লাখের বেশি জেলে থাকলেও নিবন্ধনের আওতায় এসেছে ৬৫ হাজারের মতো।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপসায় ইটভাটার মাটিতে সড়ক বেহাল দশা : হালকা বৃষ্টিতে একের পর এক দূর্ঘটনা

মাছ ধরায় ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা ঘাটে ফিরছে জেলেরা

আপডেট সময় ০৭:৪৫:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ মে ২০২৩

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ সাগরে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার কারণে কক্সবাজার উপকূলে ফিরতে শুরু করেছে মাছ ধরার ট্রলারগুলো। এরই মধ্যে উপকূলে নোঙর করেছে শত শত ট্রলার। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা, বৈরি আবহাওয়ার প্রভাব ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির বাজারে টিকে থাকতে এই আইনের সংশোধন আনতে সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন জেলেরা।

শনিবার (২০ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার সময় নাজিরারটেক মাছ ঘাটে মৎস্য ব্যবসায়ী ও ট্রলার মালিকরা বলছেন, নিষেধাজ্ঞার সময় ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশের জলসীমায় প্রবেশ করে মাছ শিকার করে, তাই তাদের ঠেকাতে সাগরে নজরদারি বাড়ানো দরকার।

দেশের মৎস্য সম্পদের সুরক্ষা ও মাছের বংশবিস্তারে সাগরে মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হচ্ছে আজ। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শুরু হতে যাওয়া এই নিষেধাজ্ঞা আগামী ২৩ জুলাই পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

জানা যায়, ২০১৫ সাল থেকে বঙ্গোপসাগরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রলারে প্রতিবছর ৬৫ দিন মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা চালু করা হয় পরে ২০১৯ সালে সব ধরনের নৌযানকে এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়। শুরু থেকেই জেলেরা এই নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করলেও মৎস্য বিভাগ বলছে, নিষেধাজ্ঞার কারণে সামুদ্রিক মাছের পরিমাণ বাড়ছে তবে জেলেদের এই সময়টাতে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে ভবিষ্যতে আরও সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে।

সকালে বাঁকখালী নদীস্থ ফিশারিঘাটসহ আশেপাশের এলাকাগুলো ঘুরে দেখা যায়, সরকারি ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা, তাই সাগরে মাছ শিকার না করে একের পর এক ট্রলার ফিরছে উপকূলে। এসব ট্রলার নোঙর করছে বাঁকখালী নদীর তীরে। তবে আগত জেলেদের চোখে-মুখে হতাশার ছাপ। কারণ অনেক জেলেরই ঋণের বোঝা মাথায়। জেলেদের দাবি, নিষেধাজ্ঞার সময় খাদ্য সহায়তার পরিমাণ বৃদ্ধিসহ আর্থিক সহায়তা প্রদানের।

গভীর সমুদ্র থেকে কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের জেটি ঘাটে ফেরা এফবি মায়ের দোয়া ট্রলারের মাঝি নুর মোহাম্মদ বলেন, ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’র সময়ে ৭ দিন ছিলাম তীরে। তার পরে সাগরে ছিলাম ৪ দিন আবার চলে আসছি। ১ লাখ টাকা খরচ করে ৪০ হাজার টাকা মাছ বিক্রি করেছি। সরকার আমাদের ৮৬ কেজি চাল দেয় কিন্তু এই বাজারে শুধু চাল দিয়ে সংসার চলে?
আরেক জেলে ছৈয়দ আলম বলেন, সরকার অবরোধ দেয় তা আমরা মানি এবং উপকারও পাচ্ছি। তবে ৬৫ দিনের অবরোধে জেলেরা ঋণের বোঝা বাড়াচ্ছে অন্যদিকে ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশের জলসীমায় প্রবেশ করে মাছ শিকার করে নিচ্ছে। আমাদের দাবি, এই সকল বিষয়ে সরকার যেন নজর দেয়।

আর নিষেধাজ্ঞাকালীন ভারতীয় জেলেদের সমুদ্রে মাছ ধরা রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানালেন মৎস্য ব্যবসায়ীরা। মৎস্য ব্যবসায়ী শামীম আহমেদ বলেন, মৎস্য ভিত্তিক অর্থনীতির সুরক্ষায় এসব জেলেদের পেশা পরিবর্তন রোধে খাদ্য সহায়তার পরিমাণ বৃদ্ধিসহ আর্থিক সহায়তা প্রদানের। এছাড়াও নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে ভারতীয় জেলেদের আগ্রাসন রোধেও কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার।

অন্যদিকে জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির দাবি, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সংশোধন এবং জেলেদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করা।

জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, নিষেধাজ্ঞার কারণে এরই মধ্যে উপকূলে শত শত মাছ ধরার ট্রলার উপকূলে ফিরেছে। বাকি ট্রলারগুলোও শনিবার সকালের মধ্যে ফিরে আসবে। সরকারের দেওয়া সকল আইন জেলেরা মেনে আসছে। তবে আমাদের দাবি, যদি সরকার এই পেশাকে টিকিয়ে রাখতে চায় তাহলে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সংশোধন এবং জেলেদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করতে হবে তা-না হলে দিনদিন এই পেশা বিলীন হতে থাকবে।

এদিকে প্রশাসন জানিয়েছে, সমুদ্র সম্পদ রক্ষা ও বৃদ্ধিতে সরকার যে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তা সঠিকভাবে বাস্তবায়নে নৌ-পুলিশ, কোস্ট-গার্ড, নৌবাহিনীসহ সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সার্বিকভাবে তৎপর থাকবে। জেলেদেরকে পর্যাপ্ত সচেতন করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা সময়ের মধ্যে কেউ মাছ শিকারে গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কক্সবাজারে নিবন্ধিত নৌযান রয়েছে ৫ হাজার ১১৩টি। আর ১ লাখের বেশি জেলে থাকলেও নিবন্ধনের আওতায় এসেছে ৬৫ হাজারের মতো।