বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

রূপসায় সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর লকডাউন পালন

Muktir Lorai / ৭৬ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১

নাহিদ জামান, খুলনা প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার এক মাত্র অবলম্বন হলো সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা, মুখে মাস্ক পরিধান করা, জনসমাগম না করা, এর কোনটিই না মেনে মানুষ স্বাভাবিক জীবন যাপনের ফলে করোনার রোগী এবং মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বেড়েই চলেছে। তাই বাংলাদেশে করোনার দ্বিতীয় ডেউ মোকাবেলায় সরকার ৫ এপ্রিল থেকে ১১ এপ্রিল পযন্ত ১ সপ্তাহের জন্য লক ডাউন দিলেও সেই লকডাউনের কার্যক্রম ছিলো শিথিল। সরকার আবার ও নতুন করে কঠোর লকডাউনের ঘোষনা দেয় ১৪ এপ্রিল হতে ২০ এপ্রিল পযন্ত। আজ ১৪ এপ্রিল বুধবার ১ রমজান, ১ বৈশাখও ২য় সপ্তাহের লক ডাউনের প্রথম দিনে রূপসা উপজেলার প্রতিটি বাজার ঘুরে দেখা যায় সকল বাজারের শপিংমল ও সকল দোকানপাট বন্ধ ছিলো। সকালে তরি তরকারির বাজার এবং মাছ বাজার খোলা ছিলো। এই বাজার গুলিকে প্রতিটি বাজারের বণিক সমিতি সরিয়ে পার্শবর্তী মাঠে নেয়ার ব্যাবস্থা করেছে। প্রত্যেকটি বাজারের ওষুধের ফার্মেসী গুলি খোলা ছিলো এছাড়া কৃষিপন্য সার, বীজের দোকানগুলি ও খোলা ছিল। যদিও সরকারী প্রজ্ঞাপনে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব চাউল, ডাউল, তৈলের দোকান খোলা রাখার কথা লেখা আছে। তবুও রূপসা উপজেলায় প্রশাসনের ও পুলিশের পক্ষ থেকে কোন মুদিখানার দোকান খুলতে দেওয়া হয়নি।
মুদি দোকান গুলি খুলতে না দেওয়ায় সকল কে মাছ ও তরি তরকারি কিনে বাড়ি চলে যেতে হয়। রোজায় বাসায় ইফতারি বানানোর জন্য অনেকেই ছোলা, মুড়ি, ডাউল, তৈল, ভ্যাশন, খেজুর, চিড়া কিনতে না পেরে বাসায় চলে যেতে হয়।
সকল ত্রেতাগন বলেন রমজানে রোজাদার বেক্তিদের দিকে তাকিয়ে মাছ তরি তরকারির পাশা পাশি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রবের চাহিদা মেটাতে মুদি দোকানগুলি খোলা রাখা প্রয়োজন।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »