শৈলকুপায় শিক্ষকের পানির টাংকিতে বিষ দিয়েছে দূর্বৃত্তরা

শাহিনুর রহমান পিন্টু, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের শৈলকুপার উত্তর কচুয়া গ্রামে এক স্কুল শিক্ষকের পরিবারকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। রাতের আঁধারে পানির টাংকিতে বিষ মিশিয়ে দিয়েছে দূর্বৃত্তরা, এ ব্যাপারে শৈলকুপা থানায় নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরী করেছে পরিবারটি।
পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবার থেকে জানা যায়, ২৪ জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে কে বা কাহারা বেনীপুর হাইস্কুলের শিক্ষক দেবাশীষ কুমার বিশ্বাস ও তার ভাই আশীষ কুমার বিশ্বাসের পিছন বাড়িতে অবস্থিত পানির টাংকিতে উচ্চমাত্রার বিষ প্রয়োগ করেছে। আশীষ কুমারের স্ত্রী জানান, পারিবারিক কাজে পানির ট্যাব ছাড়ার একটু পরেই প্রচন্ড দূর্গন্ধ সাদাফ্যানা পানি বালতিতে পড়তে থাকে। বিষয়টি পরিবারের অন্যদের ডেকে দেখানোর পাশাপাশি স্থানীয় চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন জোয়ার্দ্দার মামুন ও কচুয়া তদন্ত পুলিশ ফাঁড়ির কর্মকর্তা সরেজমিনে ঘটনা পরিদর্শন করেন। আতঙ্কিত পরিবারটির অভিযোগ ২০০১ সাল থেকেই একটি প্রভাবশালী মহল তাদের সহায়-সম্পত্তি ভোগ দখলের লালসায় একাধিকবার অপকর্ম করেছে। পরিবারটি তৎকালীন জাসদ গণবাহিনীর একটি গ্রুপের দ্বারা উপর্যুপরি নির্যাতনের শিকার হয়েছিল বলেও জানা যায়। বর্তমানে ৬ সদস্যের পরিবারের সবাই চরম নিরাপত্তাহীনতায় সময় পার করছে। স্কুল শিক্ষক দেবাশীষ কুমার হতবাক হয়েছেন, তার পরিবারকে নানাভাবে হেনস্থা করে দেশত্যাগে বাধ্য করতেই দূর্বৃত্তরা এধরনের অপকর্মে লিপ্ত আছে বলে মন্তব্য করেন। পরিবারের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী আদিতি বিশ্বাস জানান, তাদের পরিবারটির পূর্ব থেকেই শিক্ষা-দিক্ষায় বেশ সুনাম রয়েছে। তাছাড়া বিত্তশালী আর সামাজিক মর্যাদাসম্পন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এ পরিবারকে হত্যা করতে পরিকল্পিতভাবেই কেউ পানির টাংকিতে বিষ প্রয়োগ করেছে বলে অভিযোগ করেন। ৭২ ঘন্টা পার হলেও অজানা ভীতিতে স্বাভাবিক হতে পারেনি পরিবারের সদস্যগণ।
এ ব্যাপারে ৫নং কাঁচেরকোল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন জোয়ার্দ্দার মামুন জানান, বিষয়টি দুঃখজনক পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। সাধারণ ডায়েরীর সূত্র ছাড়াও স্থানীয়ভাবে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।
শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, বর্বরোচিত এ ঘটনায় জড়িতদের সনাক্ত করতে সব ধরনের প্রশাসনিক তৎপরতা চালানো হচ্ছে। উত্তর কচুয়া গ্রামের ঐতিহ্যবাহী এ পরিবারে পানির টাংকিতে বিষ প্রয়োগে ফলে আতঙ্কিত সদস্যদের আশ্বস্থ করা হয়েছে, প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করতে পুলিশ কাজ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *