শিরোনাম
বরগুনার ঘটনায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তদন্ত কমিটি গঠন পঞ্চগড়ে সারের জন্য দীর্ঘ লাইন, ফিরে যাচ্ছেন অনেকেই বাগেরহাটে সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কর্তৃক জাতীয় শোক দিবস পালিত বোদায় ইউএনওর ফোন নম্বর ক্লোন করে প্রতারণার চেষ্টা ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত রূপসায় শ্রমীক নেতা আবুল হোসেনের স্বরণসভা ও দোয়া অনুষ্টিত বরগুনায় ছাত্রলীগের উপর পুলিশের বেধড়ক মারধর এর প্রতিবাদে আমতলীতে বিক্ষোভ বরগুনায় ছাত্রলীগকে পেটানো পুলিশ কর্মকর্তাকে ডিআইজি কার্যালয়ে সংযুক্ত টাঙ্গাইলে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে সিএনজির ধাক্কায় দুজন নিহত কুমিল্লায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে ৭ রাইস মিলকে জরিমানা
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

সন্তানের জন্মনিবন্ধন করতে পিতামাতার ভোগান্তির শেষ নেই

Muktir Lorai / ৩৪৬ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শুক্রবার, ৮ জানুয়ারি, ২০২১

কামরুজ্জামান জনিঃ সন্তানের জন্মনিবন্ধন করতে এসে ভোগান্তিতে পড়েছন রহিমা বেগম। সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করাতে তার জন্মনিবন্ধন করাতে আসেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে। এসেই পড়েন ভোগান্তিতে।

দেশে নতুন নিয়মে সন্তানের জন্মনিববন্ধন করতে প্রয়োজন বাবা ও মায়ের জন্মনিবন্ধনের কাগজ। বাবা কিংবা মায়ের জন্মনিবন্ধনে প্রয়োজন পড়ছে তাঁদের বাবা-মায়ের জন্মনিবন্ধন। অর্থাৎ শিশুর জন্মনিবন্ধনে দাদা-দাদীর জন্মনিবন্ধনের কাগজের প্রয়োজন পড়ছে। কিন্তু দাদা-দাদীর জন্মনিবন্ধনের কাগজ না থাকায় পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। এ অবস্থায় ‘আদি’ পুরুষের নিবন্ধন নিয়ে বেগ পেতে হচ্ছে জন্মনিবন্ধন করতে আসা প্রতিটি নাগরিকের।

তবে এখানেই কিন্তু শেষ নয়। জন্মনিবন্ধনের প্রয়োজনে লাগবে বাড়ির পৌর কর পরিশোধের রশিদ, ভাড়াটিয়া হলে মালিকের। আরো আছে, শিশুর জন্মের নিশ্চয়তার জন্য প্রয়োজন চিকিৎসকের সনদ। এরপর রয়েছে নানা ধরণের প্রক্রিয়া। আর এসব প্রক্রিয়া শেষে শিশুর জন্মনিবন্ধন পেতে লেগে যাচ্ছে দিনের পর দিন। স্কুলে ভর্তির জন্য প্রস্তুত শিশুদের অভিভাবকদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। কোনো কারণে নামের ভুল হলে ভোগান্তি যেন আরো চরমে। সংশোধনের কোনো নিয়ম জানা নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে উপকারভোগীদের।
পৌরবাসীর এমন ভোগান্তির কথা স্বীকার করেছেন খোদ আদি পুরুষের পরিচয় খুঁজতে ‘হয়রান’ পৌরবাসী!
Share অ+অ-
সন্তানের জন্মনিববন্ধন করতে প্রয়োজন বাবা ও মায়ের জন্মনিবন্ধনের কাগজ। বাবা কিংবা মায়ের জন্মনিবন্ধনে প্রয়োজন পড়ছে তাঁদের বাবা-মায়ের জন্মনিবন্ধন। অর্থাৎ শিশুর জন্মনিবন্ধনে দাদা-দাদীর জন্মনিবন্ধনের কাগজের প্রয়োজন পড়ছে। কিন্তু দাদা-দাদীর জন্মনিবন্ধনের কাগজ না থাকায় পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। এ অবস্থায় ‘আদি’ পুরুষের নিবন্ধন নিয়ে বেগ পেতে হচ্ছে ব্রাক্ষণবাড়িয়া পৌরবাসীকে।

তবে এখানেই কিন্তু শেষ নয়। জন্মনিবন্ধনের প্রয়োজনে লাগবে বাড়ির পৌর কর পরিশোধের রশিদ, ভাড়াটিয়া হলে মালিকের। আরো আছে, শিশুর জন্মের নিশ্চয়তার জন্য প্রয়োজন চিকিৎসকের সনদ। এরপর রয়েছে নানা ধরণের প্রক্রিয়া। আর এসব প্রক্রিয়া শেষে শিশুর জন্মনিবন্ধন পেতে লেগে যাচ্ছে দিনের পর দিন। স্কুলে ভর্তির জন্য প্রস্তুত শিশুদের অভিভাবকদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। কোনো কারণে নামের ভুল হলে ভোগান্তি যেন আরো চরমে। সংশোধনের কোনো নিয়ম জানা নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে উপকারভোগীদের।
নাগরিকদের এমন ভোগান্তির কথা স্বীকার করেছেন খোদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র নায়ার কবির। গণমাধ্যমকে তিনি জানান, কাগজপত্রের কমতি থাকায় অনেকেই নতুন নিয়মে জন্মনিবন্ধন করতে পারছেন না। বিশেষ করে স্কুলে ভর্তির জন্য শিশুদের জন্মনিবন্ধন করতে আসা অভিভাবকেরা সমস্যায় পড়ছেন। সরকার যদি নিয়মটা সহজ করে দেন তাহলে ভালো হয়।

কথা হয় জন্ম নিবন্ধন করতে আসা পৈরতলা এলাকার ভাড়াটিয়া হালিমা বেগম বলেন, ‘সন্তানের জন্য জন্মনিবন্ধন করতে আসার পর আমার ও স্বামীর জন্মনিববন্ধনও চাওয়া হয়। আমাদের জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে শ্বশুর ও শাশুড়ির জন্মনিবন্ধনের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু তাদের জন্মনিবন্ধন না থাকায় সমস্যায় পড়েছি। এ ছাড়া বাড়ির মালিকের পৌর কর পরিশোধের রশিদ না থাকায় আরো সমস্যা হচ্ছে। যে কারণে সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করাতে পারছি না।’

পৌরসভার মেয়র নায়ার কবির। গণমাধ্যমকে তিনি জানান, কাগজপত্রের কমতি থাকায় অনেকেই নতুন নিয়মে জন্মনিবন্ধন করতে পারছেন না। বিশেষ করে স্কুলে ভর্তির জন্য শিশুদের জন্মনিবন্ধন করতে আসা অভিভাবকেরা সমস্যায় পড়ছেন। সরকার যদি নিয়মটা সহজ করে দেন তাহলে ভালো হয়।

কথা হয় জন্ম নিবন্ধন করতে আসা পৈরতলা এলাকার ভাড়াটিয়া হালিমা বেগম বলেন, ‘সন্তানের জন্য জন্মনিবন্ধন করতে আসার পর আমার ও স্বামীর জন্মনিববন্ধনও চাওয়া হয়। আমাদের জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে শ্বশুর ও শাশুড়ির জন্মনিবন্ধনের প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু তাদের জন্মনিবন্ধন না থাকায় সমস্যায় পড়েছি। এ ছাড়া বাড়ির মালিকের পৌর কর পরিশোধের রশিদ না থাকায় আরো সমস্যা হচ্ছে। যে কারণে সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করাতে পারছি না।’

রহিম মিয়া নামে আরেক ব্যক্তি জানান, আগে শুধু অভিভাবকের জাতীয় পরিচয় পত্র (আইডি কার্ড) দিয়ে সন্তানের জন্মনিবন্ধন করা যেতো। এখন আমাদের জন্মনিবন্ধনও চাওয়ায় বিপাকে পড়তে হয়েছে। আগের নিয়মে সহজভাবে জন্মনিবন্ধনের দাবি জানান তিনি।
পূর্ব মেড্ডার বাসিন্দা শিপ্রা রায় জানান, তার মেয়ের জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে নামের বানান ভুল করে পৌরকর্তৃপক্ষ। কিন্তু এখন তারা ঠিক করে দিতে পারছেন না। বলা হচ্ছে, নামের বানান ঠিক করার বিষয়ে সরকারের কোনো নির্দেশনা নেই।

পৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ওমর ফারুক জীবন বলেন, ‘গত সপ্তাহে নতুন নিয়মে জন্মনিবন্ধনের নির্দেশনা আসার পর নাগরিকদের ভোগান্তির শেষ নেই। পূর্ব পুরুষের জন্মনিবন্ধন না থাকায় বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাদেরকে। এ নিয়ে সাধারন মানুষের সঙ্গে আমাদের ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হচ্ছে। আমরাও চাই দ্রুত এ বিষয়ে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হোক।’

৮নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শরীফ ভান্ডারী বলেন, ‘আগে জাতীয় পরিচয়পত্র দিলেই সন্তানের জন্মনিবন্ধন করাতে পেরেছেন অভিভাবকেরা। কিন্তু নতুন নিয়মে পারছেন বলে অনেকে আমাদের কাছে আসছে। আমরা এর সঠিক কোনো জবাব দিতে পারছি না।’


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »