সরাইলে কোরবানির পশুর হাটের বিষয়ে প্রশাসনের বিশেষ সভা

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: সরাইল উপজেলায় কোরবানির পশুর হাটের বিষয়ে প্রশাসনের বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
করোনা প্রতিরোধে কঠোর লকডাউন চলাকালে ত্রাণ বিতরণ ও অনলাইনে কোরবানির পশুর হাটের বিষয়ে বিশেষ সভা করেছেন উপজেলা প্রশাসন।

সোমবার সকালে নির্বাহী কর্মকর্তার সভাপতিত্বে বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো. নোমান মিয়া, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: শুভ দেবনাথ, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো. জাহাঙ্গীর আলম, ভ্যাটেনারি সার্জন ডা: ইমরান ভূঁইয়া, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সহিদ খালিদ জামিল খান, সহকারি প্রোগ্রামার (আইটি) মো. শাকিল আহমেদ, ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কর্মরত এলএসপিগণ।

সভায় নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, করোনাকালে ১০ ক্যাটাগরিতে কর্মহীন লোকের জন্য সরকার নগদ অর্থ বরাদ্দ দিয়েছেন। এ তালিকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে স্থান পাবে ভিক্ষুক, ভবঘুরে, দিন মজুর, রিক্সা চালক, ভ্যানগাড়ী চালক, পরিবহন শ্রমিক, রেষ্টুরেন্ট শ্রমিক, ফেরীওয়ালা, চায়ের দোকানদার ও কৃষি শ্রমিকগণ। তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের উল্লেখিত ক্যাটাগরির তালিকা দ্রুত প্রস্তুত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

সভায় আরো জানানো হয় চলমান লকডাউনের সময় সীমা আরো ৭ দিন বাড়ানো হয়েছে। তাই উপজেলার কোথাও কোরবানির পশুর হাট বসানোর সুযোগ নেই। তাই অনলাইন পশুর হাট থেকে পশু ক্রয় বিক্রয়ের নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। জেলা প্রশাসকের তত্বাবধানে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সমন্বয়ে ‘সরাইল অনলাইন কোরবানির পশুর হাট’ নামে একটি ফেসবুক পেইজ খোলা হয়েছে। এ পেইজের মাধ্যমে আগ্রহী সকলেই পশু ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবেন। এলএসপিরা প্রত্যেক ইউনিয়নের খামারিদের সাথে যোগাযোগ করে খামারের ঠিকানা পশুর ছবি ও আনুমানিক মূল্য এ পেইজে দিবেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরিফুল হক মৃদুল বলেন, দ্রুত প্রত্যেক ইউনিয়নে ১০ ক্যাটাগরিতে ২৯১ জন কর্মহীন লোককে ত্রাণ দেওয়া হবে। বর্তমান অবস্থায় কোন ভাবেই পশুর হাট বসবে না। তবে কোরবানির ঈদের ৩-৪ দিন আগে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথ ভাবে অনুসরন করে পশুর হাট বসার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *