• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
শিরোনাম
পাচার বাণিজ্যে মতানৈক্যের জেরে সীমান্তে অপহৃত নাবালক ৬ চিকিৎসক নিয়ে ধুঁকে ধুঁকে চলছে বরগুনা সরকারি হাসপাতাল সামাজিক দূরত্ব ভুলে রাসিক মেয়র লিটনের খাদ্য সামগ্রী বিতরন সলঙ্গায় ১০কেজি গাঁজাসহ মাদক ব‍্যবসায়ী আটক বরুড়ায় ১৫০ অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন এসকিউ গ্রুপের শফিউদ্দিন শামীম বাবার মৃত্যুর একদিন পর মাকেও হারালেন সহকারী এটর্নি জেনারেল এড. ফারুক সাতক্ষীরা শহরের বাগানবাড়িতে ভূমিহীনদের পুর্নবাসনের দাবিতে উঠান বৈঠক আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মুরাদনগরে দিনব্যাপী ডিউটি অফিসারের ভূমিকায় এএসপি রূপগঞ্জে ওয়ারেন্টভুক্ত চার পলাতক আসামি গ্রেফতার
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

সরাইলে সেনাবাহিনীর টহল দেখে রাস্তাঘাট ফাঁকা

news / ৬৩ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে সরাইলে পুলিশের পাশাপাশি মাঠে রয়েছে সেনাবাহিনী।সেনাবাহিনীর উপস্থিতি দেখলেই মূহুর্তের মধ্যে ফাঁকা হয়ে যায় রাস্তা ঘাট। এমনকি হাট বাজার গুলোতেও কমে যায় লোকজনের উপস্থিতি।

সকাল থেকেই মাঠে ছিল পুলিশ। দিনভর সরাইলের বিভিন্ন গুরূত্বপূর্ণ স্থান সমূহে ঘুরেছেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আরিফুল হক মৃদুল। লকডাউনের সময় আইন অমান্যকারীদের জরিমানাও করেছেন ইউএনও।

তবে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে হাসপাতাল মোড়ে ছিল মানুষ ও যানবাহনের অকল্পনীয় ভীর। কাঁচাবাজার এবং মাছের বাজারে ছিলো প্রচন্ড রকমের ভীড়। এসময়ে অধিকাংশ মানুষের মুখেই মাস্ক ছিল না।

উপজেলার সকল মসজিদে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে লকডাউন পালন ও মহামারি মোকাবেলায় সরকারের নির্দেশ মেনে চলার উপর খুৎবার আগে বক্তব্য রাখেন ইমাম সাহেবরা।

বিকেল ৩টার দিকে যোগ দিয়েছেন সেনা সদস্যরা। সরজমিনে দেখা যায়, প্রথম দিনের তুলনায় শুক্রবার কঠোর লকডাউন অনেকটা কঠোরই হয়েছে। প্রধান সড়ক সমূহে সিএনজি চালিত অটোরিকশা গুলোকে ওঠতে দেননি ইউএনও ও পুলিশ। মাস্ক বিহীন চালক ও যাত্রীদের জরিমানা করতে দেখা যায় ।

জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলার সকল মসজিদে খুৎবা পাঠের আগে কোরআন হাদিসের আলোকে লকডাউন পালন ও মহামারি করোনা মোকাবেলায় সরকারের নির্দেশ বাস্তবায়নের বক্তব্য রাখেন ইমামরা। মুসল্লিদেরকে মসজিদে মাস্ক পড়ে মসলা নিয়ে প্রবেশ করার অনুরোধ করেন। নামাজ শেষে করোনায় আক্রান্ত, মৃতসহ সকল অসুস্থ্য মুসলমান নরনারীর জন্য বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

বিকাল ৩টার দিকে সরাইলের বিভিন্ন সড়কে সেনাবাহিনীর সদস্যদের টহল দিতে দেখা যায় । মূহুর্তের মধ্যে রাস্তা গুলো ফাঁকা হয়ে যায়। দোকানপাট ও আশপাশের লোকজনও সটকে পড়েন। সরাইলের বিশ্বরোড ও কুট্রাপাড়া মোড়ও ছিল অনেকটা ফাঁকা।


এই বিভাগের আরো সংবাদ