ঢাকা ০৮:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরাইল আশুগঞ্জ আসনের সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার মৃত্যু

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া -২ (সরাইল -আশুগঞ্জ) আসনের সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার মৃত্যু।
শুক্রবার দিবাগত রাতে তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে(এভার কেয়ার হাসপাতাল) মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর, তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন।

আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের পরমানন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া ছয়বার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বিএনপির সময় (২০০১ থেকে ২০০৬) তিনি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন।

২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসন থেকে আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া বিএনপির দলীয় প্রার্থী হয়ে ৮৩ হাজার ৯৯৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মঈন উদ্দিন মঈন। তিনি পেয়েছিলেন মোট ৭৫ হাজার ৪১৯ ভোট।

গত ১১ ডিসেম্বর আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্তে জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন। এরপর গত ১ ফেব্রুয়ারিতে এই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (কলার ছড়া) প্রতীকে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। ওই নির্বাচনে তিনি জয়ী হন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার তাঁর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় সংসদ চত্বরে। পরে উপজেলা সদরে ও তার গ্রামের বাড়িতে জানাজা শেষে পরমানন্দপুর পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর মরদেহ দাফন করা হবে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সরাইল আশুগঞ্জ আসনের সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার মৃত্যু

আপডেট সময় ০২:৫৮:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া -২ (সরাইল -আশুগঞ্জ) আসনের সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার মৃত্যু।
শুক্রবার দিবাগত রাতে তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে(এভার কেয়ার হাসপাতাল) মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর, তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন।

আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের পরমানন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া ছয়বার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বিএনপির সময় (২০০১ থেকে ২০০৬) তিনি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন।

২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসন থেকে আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া বিএনপির দলীয় প্রার্থী হয়ে ৮৩ হাজার ৯৯৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মঈন উদ্দিন মঈন। তিনি পেয়েছিলেন মোট ৭৫ হাজার ৪১৯ ভোট।

গত ১১ ডিসেম্বর আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্তে জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন। এরপর গত ১ ফেব্রুয়ারিতে এই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (কলার ছড়া) প্রতীকে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। ওই নির্বাচনে তিনি জয়ী হন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার তাঁর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় সংসদ চত্বরে। পরে উপজেলা সদরে ও তার গ্রামের বাড়িতে জানাজা শেষে পরমানন্দপুর পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর মরদেহ দাফন করা হবে।