ঢাকা ১১:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo দৈনিক মুক্তির লড়াই পত্রিকার চতুর্থ বর্ষে পদার্পন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত Logo ক্ষুদ্রচাকশ্রী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত Logo বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলার ঘটনায় মামলা, পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ Logo সরাইলে নদীর মাটি যাচ্ছে ইট ভাটায়, হুমকির মুখে ফসলি জমি Logo চীন বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক উন্নয়ন বাড়াতে চায়;চীনা বাণিজ্য মন্ত্রী Logo চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ২০২৪ সালকে ‘ভোগ বৃদ্ধির বছর’ হিসাবে মনোনীত করে Logo শাজাহান শিকদার সম্পাদনিত ‘সম্মিলিত কবিতার বই-৪’ এর মোড়ক উম্মোচন Logo নওগাঁয় ৭২ কেজি গাঁজাসহ মাদক এক ব্যবসায়ী আটক Logo ফুলবাড়ীতে কুকুরের কামড়ে ৮টি ছাগলের মৃত্যু Logo আমতলী পৌর নির্বাচন ঘিরে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ

স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে কালীগঞ্জে প্রেমিকের বাড়ীতে কিশোরীর অনশন

শাহিনুর রহমান পিন্টু, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: স্ত্রী হিসাবে স্বীকৃতি পেতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে স্বামীর বাড়ীর গেটের সামনে এক কিশোরী অবস্থান নিয়েছেন। তার নাম তামান্না খাতুন (১৬)। সে যশোর মনিরামপুরের টুনিয়াঘরা গ্রামের মৃত রফিকুল ইসলামের মেয়ে। শুক্রবার সকাল ১১টার থেকে কালীগঞ্জ পৌরসভার আড়পাড়া গ্রামের স্বামী মামুন হোসেনের বাড়ীতে অবস্থান করছেন। মামুন হোসেন উক্ত গ্রামের জাকির হোসেনের ছেলে।
কিশোরী জানায়, গত ২ বছর আগে মনিরামপুরে ছেলের মামার দোকানে থাকার সুবাদে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে গত ১৩ মাস আগে বাড়ী থেকে বিয়ে উদ্দেশ্যে কালীগঞ্জ চলে আসেন তারা। এরপর বিয়ে করে কালীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে করেন। কিন্তু হঠাৎ করেই ঈদের আগে দাদার বাড়ীতে পাঠিয়ে দিয়ে সব রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দেন মামুন। বিয়ের কোন কাগজপত্রও তার কাছে নেই। সব দিক হারিয়ে এতিম মেয়েটি উপায় অন্ত না পেয়ে কালীগঞ্জে তার স্বামীর বাড়ীতে আসলেও রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাকে বাসায় ঠুকতে দেয়নি শশুর বাড়ীর লোকজন।
তিনি আরও জানান পাঁচ বছর আগে বাবা মারা যাওয়ার কিছুদিন পর মা অন্য জায়গায় বিবাহ করেন। বাবা হারা তিন ভাই বোনের জায়গা হয় দাদার বাড়ীতে। ছোট দুই ভাই এতিমখানায় থেকে লেখাপড়া করে, সে নিজেও মাদ্রাসায় করিয়ানা পড়তো। কিন্তু বিয়ের করার পরে সেটাও বন্ধ। এখন স্বামীর বাড়ী ছাড়া আর কোথাও থাকার কোন জায়গা নেই তার। অন্যথায় আত্নহত্যার পথ বেছে নিতে হবে। এজন্য তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
প্রতিবেশী আব্দুস সালাম জানায় শুনেছি মামুন অনেক আগেই বিয়ে করেছে। সে শহরের বিভিন্ন স্থানে ভাড়া থাকতো। স্ত্রীর সাথে কি হয়েছে জানিনা তবে সে এখন তার নিজ বাসায় থাকে।
কালীগঞ্জ থানার এসআই হুমায়ুন কবির জানান, খবর পেয়ে আমি ঘটনা স্থলে যায় এবং ডাকাডাকি করেও বাড়ীতে কাওকে পাওয়া যায়নি। উর্ধ্বতন কতর্ৃপক্ষের সাথে কথা বলে পরবতর্ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

দৈনিক মুক্তির লড়াই পত্রিকার চতুর্থ বর্ষে পদার্পন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে কালীগঞ্জে প্রেমিকের বাড়ীতে কিশোরীর অনশন

আপডেট সময় ০৫:২০:২৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩

শাহিনুর রহমান পিন্টু, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: স্ত্রী হিসাবে স্বীকৃতি পেতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে স্বামীর বাড়ীর গেটের সামনে এক কিশোরী অবস্থান নিয়েছেন। তার নাম তামান্না খাতুন (১৬)। সে যশোর মনিরামপুরের টুনিয়াঘরা গ্রামের মৃত রফিকুল ইসলামের মেয়ে। শুক্রবার সকাল ১১টার থেকে কালীগঞ্জ পৌরসভার আড়পাড়া গ্রামের স্বামী মামুন হোসেনের বাড়ীতে অবস্থান করছেন। মামুন হোসেন উক্ত গ্রামের জাকির হোসেনের ছেলে।
কিশোরী জানায়, গত ২ বছর আগে মনিরামপুরে ছেলের মামার দোকানে থাকার সুবাদে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে গত ১৩ মাস আগে বাড়ী থেকে বিয়ে উদ্দেশ্যে কালীগঞ্জ চলে আসেন তারা। এরপর বিয়ে করে কালীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে করেন। কিন্তু হঠাৎ করেই ঈদের আগে দাদার বাড়ীতে পাঠিয়ে দিয়ে সব রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দেন মামুন। বিয়ের কোন কাগজপত্রও তার কাছে নেই। সব দিক হারিয়ে এতিম মেয়েটি উপায় অন্ত না পেয়ে কালীগঞ্জে তার স্বামীর বাড়ীতে আসলেও রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাকে বাসায় ঠুকতে দেয়নি শশুর বাড়ীর লোকজন।
তিনি আরও জানান পাঁচ বছর আগে বাবা মারা যাওয়ার কিছুদিন পর মা অন্য জায়গায় বিবাহ করেন। বাবা হারা তিন ভাই বোনের জায়গা হয় দাদার বাড়ীতে। ছোট দুই ভাই এতিমখানায় থেকে লেখাপড়া করে, সে নিজেও মাদ্রাসায় করিয়ানা পড়তো। কিন্তু বিয়ের করার পরে সেটাও বন্ধ। এখন স্বামীর বাড়ী ছাড়া আর কোথাও থাকার কোন জায়গা নেই তার। অন্যথায় আত্নহত্যার পথ বেছে নিতে হবে। এজন্য তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
প্রতিবেশী আব্দুস সালাম জানায় শুনেছি মামুন অনেক আগেই বিয়ে করেছে। সে শহরের বিভিন্ন স্থানে ভাড়া থাকতো। স্ত্রীর সাথে কি হয়েছে জানিনা তবে সে এখন তার নিজ বাসায় থাকে।
কালীগঞ্জ থানার এসআই হুমায়ুন কবির জানান, খবর পেয়ে আমি ঘটনা স্থলে যায় এবং ডাকাডাকি করেও বাড়ীতে কাওকে পাওয়া যায়নি। উর্ধ্বতন কতর্ৃপক্ষের সাথে কথা বলে পরবতর্ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।