• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৪ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

ধর্ষক ইব্রাহীম বাহিনীর বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

Muktir Lorai / ৮৬ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার, ১২ আগস্ট, ২০২১

মোঃ ইলিয়াস আলী, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জের ধর্ষক ইব্রাহীম খাঁনের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে শহীদ ডাঃ মনির উদ্দিনের চৌধুরী পরিবার। বৃহস্পতিবার ১২ই আগস্ট দুপুরে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যালয়ে লিখিতভাবে সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ তুলে ধরেন।
সংবাদ সম্মেলনে শহীদ পরিবারের পক্ষে সামসউদ্দিন চৌধুরী লিখিত বক্তব্য পাঠ করে বলেন, ইব্রাহীম খাঁন একজন রাজাকার। সে ১৯৭১ সালে বোন সুফিয়া বেগমকে গণধর্ষন করে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এছাড়া টাকার বিনিময়ে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অর্ন্তভুক্ত হয়ে জেলার পীরগঞ্জ উপজেলায় প্রভাব বিস্তার করেন। এসময় বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে মোটা অংঙ্কের টাকা হাতিয়ে অনেককে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অন্তভুক্ত করেন। তার এসব অপকর্মের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয় তার বেতন ভাতা বন্ধ করে দেন। এ বিষয়ে দ্রুত বিচার আইনে মামলা চলমান রয়েছে।
অপরদিকে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয় যাচাই বাছাই করে ডাঃ মনিরউদ্দিন চৌধুরিকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও তার কন্যা সুফিয়া বেগমকে বীরঙ্গনা স্বীকৃতি দিলে রাষ্ট্রের কাছে হেও প্রতিপন্ন করতে গত ৩১ শে জুলাই পীরগঞ্জে একটি অনুষ্ঠানে মানহানিকর বক্তব্য দেন। এর পর ইব্রাহীম বাহিনী শহীদ পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। তার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারের কাছে দাবি করেন তারা।
সংবাদ সম্মেলনে শহীদ পরিবারের সদস্য রোকেয়া বেগম, মসলিম উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা জিতেন্দ্র নাথ, ইসলাম উদ্দিন, কফিল উদ্দিনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলার বাদী শহীদ ডাঃ মনিরউদ্দিন চৌধুরীর বড় মেয়ে রকেয়া বেগম জানান, ইব্রাহিম বাহিনীর নির্যাতনে আমি আজ পঙ্গু। শেষ বয়সে তার বিচার দেখে যেতে না পারলে আত্মা শান্তি পাবে না। এখন পর্যন্ত মামলাটি তৃতীয় দফা তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় আদালতের নির্দেশে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা ইব্রাহীম খাঁনের বেতন ভাতাসহ সকল সুযোগ সুবিধা বন্ধ করেও দিয়েছে। এখন বিচারের অপেক্ষায় দিন গুনছি।
এ বিষয়ে ইব্রাহীম খাঁনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা করা হয়েছে। আর সে কারনে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা বন্ধ রয়েছে। আমি এ ঘটনার কোনভাবেই জড়িত নই।


এই বিভাগের আরো সংবাদ