জীবাশ্ম জ্বালানিতে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক (অউই) এর বিনিয়োগ বন্ধের দাবি

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ কর-মানববন্ধনে বক্তারা বলেন এডিবিকে অবশ্যই জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ করতে হবে ।

বাংলাদেশের জ্বালানী খাতে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক (অউই) এর বিনিয়োগ শুধু দেশকে দেনায় জর্জরিত করছে না, বরং পরিবেশ ও জলবায়ুর মারাত্মক ক্ষতিসাধন করছে। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত এডিবি বাংলাদেশের জ্বালানি খাতে প্রায় ৬.১৩ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৫২ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে যার ৯৮ ভাগই জীবাশ্ম জ্বালানি খাতে। বিগত ১০ বছরে, সবমিলিয়ে ৯,৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ১২টি বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বিনিয়োগ করেছে এডিবি, যা প্রতিবছর গড়ে ১৯.৩ মিলিয়ন টন কার্বন নির্গমনের জন্য দায়ী।
আজ ৩০ এপ্রিল ২০২১ তারিখ শুক্রবার মিরপুর-১১ নং বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মিরপুর বাংলা (বালক) উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের সামনে ঢাকায় বাংলাদেশ বৈদেশিক দেনা বিষয়ক কর্মজোট (ইডএঊউ), সেফটি এন্ড রাইটস সোসাইটি (ঝজঝ) এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন।

বক্তারা আরো বলেন, আগামী ৩-৫ মে ২০২১ তারিখে, এডিবি’র বার্ষিক সধারণ সভা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবং এই সভায় এডিবি’র নতুন জ্বালানি নীতি বিষয়ক আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। প্যারিস চুক্তিতে স্বাক্ষরকারী সংস্থা হিসেবে পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রির মধ্যে রাখার জন্য অবশ্যই এডিবির জ্বালানি নীতিতে সুস্পষ্ট এবং বাস্তবসম্মত প্রতিফলন আনতে হবে।

উল্লেখ্য, এডিবি’র অর্থায়নে বাস্তবায়িত বেশিরভাগ প্রকল্পে স্থানীয় পরিবেশ ও মানুষের জীবন-জীবিকার বিষয়টি উপেক্ষা করা হয়েছে। অনৈতিকভাবে জমিদখল, ন্যায্য ক্ষতিপূরণ না দেয়া, সাধারণ মানুষকে হয়রানি এবং বৈশ্বিক জলবায়ু সমস্যাকে পাত্তা না দিয়েই এডিবি’র বিনিয়োগে বেশ কয়েকটি বিদ্যুৎ প্রকল্প চলছে বলে দাবি করেন বক্তারা। বক্তারা বাংলাদেশের শতভাগ নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিশ্চিত করার জন্য এডিবি’র উদ্যোগ নেয়ার জোর আহ্বান জানান।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় প্রগতিশীল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম(রাজা), বাংলাদেশ গার্মেন্টস শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রুহুল আমিন হাওলাদার ও কল্পনা আক্তার, সেলিনা বেগম, লুৎফা বেগম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *