নৈতিকতার ভেকসিন চাই…মোঃ মিজানুর রহমান

পৃথিবীর প্রতিটি অতিমারী/মহামারীর টীকা আবিষ্কার হয়েছে। বহু কঠিন রোগের চিকিৎসা হচ্ছে এসবই আশার কথা। বিজ্ঞান অনেক সাফল্য দিয়েছে মানুষকে। মানুষ অনেক ক্ষেত্রে অপরাজেয়। নব নব আবিষ্কার আর উন্নতি মানুষকে ভূমন্ডলীয় চিন্তা পরিহার করে নভোমণ্ডলীয় ভাবধারায় নিয়ে যাচ্ছে। মানুষের ভাবনা শুধু উন্নতি। উন্নতি মানুষের হচ্ছে, তবে পাল্লা দিয়ে নৈতিকতার চরম অবনতিও ঘঠছে। যার প্রেক্ষিতে মা বাবার কাছে সন্তান নিরাপদ নয়, সন্তানের কাছেও মা-বাবা নিরাপদ নয়। একজন পিতা তার শিশু পুত্র কে হত্যা করছে আবার মাকে হত্যা করছে তাঁরই গর্ভজাত ছেলে। হায়রে নৈতিকতা! আবার এ খুনীকে সাপোর্ট দিচ্ছে এই সমাজের কিছু লোক। বলছে খুনী মানসিক ভারসাম্যহীন। বলতে দ্বীধা হয় তবুও বলি, আমরা কত জন ভারসাম্যহীন নই? একটি পরিবার সুন্দর না হলে সমাজ ব্যবস্থা সুন্দর হয় না। অজস্র সুন্দর সমাজ মিলেই তৈরি হয় সুন্দর রাষ্ট্রের। কথায় কথায় রাষ্ট্রকে/সরকার কে দোষী না করে আমরা শুধু আমার পরিবার ও সমাজটাকে সুন্দর করার কাজ করলেই আমরা বাস উপযোগী সুন্দর রাষ্ট্র পাবো।
অন্যথায় চলমান হত্যা/আত্মহত্যা, যেকোনভাবে ধনী হওয়ার প্রয়াস, রাষ্ট্রের ক্ষতি করে ব্যক্তির উন্নতি সাধনের চেষ্টা ভূমেরাং হতে বাধ্য। নীতিহীনতা দূর করার জন্য নীতিমালা বাস্তবায়নও পোকায় খাবে। টাকার কাছে যদি আমরা পরাজিত হই তাহলে আমাদের হাজার বছরের সামাজিক ও পারিবারিক প্রথা, ঐতিহ্য নষ্ট হবে। এর কোন প্রতিকার/প্রতিষেধক ভেকসিন পাওয়া যাবে না। কেন যানি বার বার মনে হয়, আমার/আমাদের নৈতিকতার মেরুদণ্ড ভেঙে যাচ্ছে।

লেখকঃ
মোঃ মিজানুর রহমান
উপজেলা শিক্ষা অফিসার
চাটখিল, নোয়াখালী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *