সাংবাদিক রোজিনা হেনস্তার ঘটনায় খুবি শিক্ষক সমিতির উদ্বেগ প্রকাশ

ঋতু দে, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে অসদাচরণ ও তাকে হেনস্তা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

বৃহস্পতিবার (২০ মে) খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো. ওয়ালিউল হাসনাত ও সাধারণ সম্পাদক ড. তানজিল সওগাতের সই করা এক বিবৃতিতে এ ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।
বিবৃতিতে শিক্ষক সমিতির নেতারা বলেন, গত সোমবার (১৭ মে) সচিবালয়ে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যে অপেশাদার, অসৌজন্যমূলক ও অনৈতিক আচরণের ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে, তা উদ্বেগজনক। রাষ্ট্রের সবচেয়ে আস্থার স্থল সচিবালয়ে জ্যেষ্ঠ একজন সাংবাদিককে পাঁচ ঘণ্টার বেশি সময় আটকে রেখে হেনস্তা করার ঘটনা অপ্রত্যাশিত।

শিক্ষক নেতারা বলেন, পেশাগত দিক বিবেচনায় সাংবাদিকতার মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ পেশাজীবীরা যদি এত অরক্ষিত থাকেন, তাহলে অন্য পেশাজীবীদের পেশাগত মর্যাদা কতটুকু রক্ষিত থাকবে— তা নিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি উদ্বিগ্ন। এই ন্যক্কারজনক ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিরা দেশের মানুষের কাছে সচিবালয় ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছে।
এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়ে খুবি শিক্ষক সমিতি বলছে, পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সাংবাদিক রোজিনার সঙ্গে যে অসদাচরণ হয়েছে, তার তীব্র নিন্দা জানাই। একইসঙ্গে এ ঘটনার দ্রুত তদন্ত, জড়িতদের শাস্তি ও ন্যায়বিচারের দাবিও জানাই।

এর আগে, সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে যান রোজিনা ইসলাম। সেখানে পাঁচ ঘণ্টারও বেশি সময় তাকে আটকে রাখা হয়। একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লেও তার চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা না করে রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে রাত পৌনে ১২টার দিকে পুলিশ জানায়, রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩৭৯ ও ৪১১ ধারা এবং ১৯২৩ সালের অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় মামলা করা করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।
পরে মঙ্গলবার পুলিশ রোজিনাকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। রোজিনার পক্ষে আদালতে জামিন আবেদন করা হয়। পরে আদালত রিমান্ড আবেদন নাকচ করে দেন। জামিন আবেদন অনিষ্পন্ন রেখে বৃহস্পতিবার জামিন শুনানির কথা জানান। আজ বৃহস্পতিবার জামিন শুনানি হলেও আদালত শুনানি শেষ করে আদেশের জন্য রোববার দিন নির্ধারণ করে দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *