চুয়াডাঙ্গায় বাবার বন্ধুর দ্বারা শ্লিলতাহানীর অপমানে কিশোরীর আত্মহত্যা

এ.এইচ কামরুল, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ চুয়াডাঙ্গার মাখালডাঙ্গায় সুমাইয়া খাতুন নামের এক কিশোরী আত্মহত্যা করেছে। বাবার বন্ধু তাকে জোরপূর্বক শ্লীলতাহানির চেষ্টা করলে আত্মহত্যার পথ বেছে নেই কিশোরী সুমাইয়া খাতুন। ০৪ জুন শুক্রবার সকালে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সুমাইয়া খাতুন (১৩)। নিহত সুমাইয়া খাতুন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মাখালডাঙ্গা বাগানপাড়ার আবু সিদ্দীকের মেয়ে। সে মাখালডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনিয়মিত ছাত্রী ছিলো বলে জানায় তার পরিবারের সদস্যরা।
নিহত সুমাইয়া খাতুনের বাবা আবু সিদ্দীক বলেন, পালাগানের সুবাদে বছর দশেক আগে কুষ্টিয়া জেলার হালসা ইউনিয়নের নওদাপাড়ার মৃত জামাল হোসেনের ছেলে লোকমান হোসেনের সাথে তার পরিচয়। সেই থেকে লোকমান তাদের বাড়ীতে আসা-যাওয়া করতেন। সে আমার মেয়ের এমন ক্ষতি করবে ভাবতে পারি নি।
সুমাইয়া খাতুনের মা আম্বিয়া খাতুন বলেন, ০৩ জুন বৃহস্পতিবার মাখালডাঙ্গায় পালাগান চলছিলো। রাত সাড়ে ৩ টার দিকে বাড়ী ফিরে গলায় ওড়না পেঁচানো ঘরের আড়ার সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় আমরা সুমাইয়াকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিই। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর কর্তৃপক্ষ তাকে হাসপাতালে ভর্তি রাখে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ০৪ জুন শুক্রবার সকাল ৭ টার দিকে মারা যায় সে।
প্রতিবেশী আনারুল ইসলাম ও সাদ্দাম হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে পালাগান শেষে হওয়ার কিছু আগে বাড়ী ফিরছিলাম। এসময় আনারুলের সাথে সুমাইয়াকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখেত পাই। ভোরের দিকে শুনতেপাই সুমাইয়া আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ খফরুল আলম খান জানান, ঘটনা শোনার পরপরই ঘটনাস্থল মাখালডাঙ্গায় যায়। লাশের সুরোতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। পরে, মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *