প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের অর্থ পেল রাজশাহী কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবীরা

রাজশাহী প্রতিনিধিঃ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের অর্থ পেলেন রাজশাহী কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবীরা। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বিকাল সাড়ে ৩টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই অর্থের চেক প্রদান করেন জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল।
বিশেষ অতিথি ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) আবু আসলাম, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (সাধারণ শাখা) অভিজিত সরকার,
কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবক বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির বিভাগীয় প্রধান অ্যাডভোকেট. দিল সেতারা চুনী, রাজশাহী জেলা মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুল হক সিদ্দিকী, গোদাগাড়ী মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. আসফাক আলী প্রমুখ।
জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল জানান, কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন একটি স্বেচ্ছাসেবী মানবিক প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানটি দেশে করোনা আতঙ্কের বিপরীতে একমাত্র সঙ্ঘবদ্ধ শক্তি হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে।
এছাড়াও তিনি আরও জানান, করোনা ও করোনা উপসর্গে মৃতদেহ দাফনের ব্যাপারে যখন সাধারণ মানুষের মনে এক ধরনের ভীতি কাজ করছিল, তখন এগিয়ে আসে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন। মৃতের পরিবার পাশে না থাকলেও করোনা ‘শহিদদের’ মমতাপূর্ণ শেষ বিদায় জানান ফাউন্ডেশন কর্মীরা। তাই করোনাকালীন তাদের অবদানের কথা চিন্তা করে ১ লাখ টাকার চেক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনকে প্রদান করা হলো।
কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবী রাজশাহী জেলা মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুল হক সিদ্দিকী জানান, ১৯৯৩ সাল থেকে আত্মউন্নয়ন ও সেবামূলক কর্মকান্ড- পরিচালনা করে আসছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন। করোনাকালে বাংলাদেশে জাতিধর্ম নির্বিশেষে প্রায় ৪ হাজার করোনায় মৃতদেহ দাফন ও সৎকার করেছে। এছাড়াও নিম্ন আয়ের অসহায় ও দরিদ্র মানুষের মাঝে আর্থিক ও খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন।
এছাড়াও তিনি জানান, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক সহায়তা স্বরূপ ১ লাখ টাকার চেক পেলো কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবীরা। সেজন্য আমি সংগঠনের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জেলা প্রশাসক মহোদয়কে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *