বিজ্ঞাপন
মুক্তিকামী জনতার দৈনিক 'মুক্তির লড়াই' পত্রিকার জন্য জরুরী ভিত্তিতে দেশের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে ব্যুরো চীফ, প্রতি জেলা ও উপজেলার একজন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আবেদন করুন। যোগাযোগের ঠিকানাঃ কামরুজ্জামান জনি- সম্পাদক, মুক্তির লড়াই। ইমেইলঃ jobmuktirlorai@gmail.com । ধন্যবাদ ।

মুরাদনগরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নিবার্চনী গণসংযোগে আ’লীগ নেতার হামলা গুলি

Muktir Lorai / ১৫৪ বার ভিউ করা হয়েছে
বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২০

মাহফুজুর রহমান, মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়নের উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকরের নির্বাচনী গণসংযোগে হামলা, গুলিবর্ষণ ও ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে জেলা আ’লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম সরকারের বিরুদ্ধে। জাহাঙ্গীর আলম সরকার কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও নৌকা মনোনীত প্রার্থী ইকবাল হোসেনের চাচা।
বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়নের জায়েদ আলী মার্কেট এলাকায় গণসংযোগ চলাকালে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
এতে ১৮টি মোটরসাইকেল ভাংচুর এবং ১৫জন নেতাকর্মীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
ঘোড়া প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু বকর অভিযোগ করে বলেন, ওই ইউনিয়নের সাহেবনগর এলাকায় গণসংযোগ শেষে আমি রামচন্দ্রপুর বাজারে ফিরছিলাম। কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার ও তার ভাতিজা নৌকা মনোনীত প্রার্থী ইকবাল হোসেন সরকারসহ বিপুলসংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে চাপিতলা গ্রামে যাচ্ছিলেন। জায়েদ আলী মার্কেট এলাকায় আমার গণসংযোগ দেখে তারা গাড়ি থেকে নেমে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় কর্মীদের ১৮টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে আমাদের ওপর গুলিবর্ষণ করে। এ ঘটনায় তিনি বাঙ্গরা বাজার থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার ও তার ভাতিজা নৌকা মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইকবাল হোসেন সরকার জানান, তাদের নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে কোনো প্রকার হামলা করা হয়নি। ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আবু বকর নিজেই একটি ঘটনার সৃষ্টি করে ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের পাঁয়তারা করছে।
বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু বকরের গণসংযোগে হামলা করা হয়েছে বলে আমি শুনেছি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে এখনও লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


এই বিভাগের আরো সংবাদ
Translate »
Translate »