ঢাকা ১০:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজারে স্বপ্নজাল স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

স্বপ্নজাল স্বেচ্ছাসেবী ও সমাজ উন্নয়নমূলক সংস্থার আয়োজনে স্বপ্নজাল স্কুলে “মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৩ উদযাপন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার সময় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহিদ দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন স্বপ্নজাল স্বেচ্ছাসেবী ও সমাজ উন্নয়নমূলক সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এবং স্বপ্নজাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোঃ শাকির আলম।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ফারিহা হোসাইন বলেন, বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনের ভিত্তির উপর আমাদের স্বাধীনতা এসেছে। ভাষা আন্দোলনে বাঙালি রক্ত দিয়ে প্রমাণ করেছে যেকোনো অপশক্তিকে কীভাবে মোকাবেলা করতে হয়। আর এই ভাষা-সংগ্রামের আন্দোলনের মধ্য দিয়েই স্বাধীনতার স্বপ্নকে বাঙালির অস্তিত্বে জাগ্রত করেছিল স্বাধীনতার মহানায়ক ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’।

তিনি আরো বলেন, বায়ান্ন ও একাত্তরের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য জাতিসংঘে প্রস্তাব তুলেছিল। তাহলে বুঝতে হবে তারা কতখানি দেশপ্রেম ধারণ করলে এমন অবদান রাখতে পারে।

আলোচক হিসেবে ছিলেন স্বপ্নজাল সংস্থার সিনিয়র প্রজেক্ট অফিসার আজিজ উদ্দিন। তিনি বলেন, বাংলা অত্যন্ত সমৃদ্ধ একটি ভাষা। আমাদের ভাষাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে ভাষার ইতিহাস ঐতিহ্য জানতে হবে। কেননা পৃথিবীতে একটি জাতি আছে যারা ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছে। এই ভাষা অনন্য একটি ভাষা, রক্তের দামে কেনা। তাই আগামি প্রজন্মকে বাংলা ভাষার সঠিক ইতিহাস জানতে হবে তাহলেই বায়ান্ন ও একাত্তরের চেতনায় শাণিত হতে পারবে।

তিনি আরো বলেন, কোন অপসংস্কৃতি যেন আমাদের ভাষা- মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে গ্রাস করতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। তাহলেই সালাম, জব্বার, রফিক, শফিকের রক্ত বৃথা যাবে না।

স্বপ্নজাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক শাকির আলম বলেন, অনেক ত্যাগের আর শহীদের রক্তের দামে কেনা আমাদের মায়ের ভাষা। আগামিতে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে অবশ্যই শিশুদের ভাষা আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস ও ঐতিহ্য আগামি প্রজন্মকে জানাতে হবে।
সেই সাথে একুশের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে হবে। আমি সেই লক্ষে শিশুদেরকে স্কুলে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চা শেখানোর চেষ্টা করি। যাতে করে শিশুর আবেগ অনুভূতির সঙ্গে বাংলা সংস্কৃতির পরিচয় ঘটে।

আফরোজা আক্তার শিরিনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, হেড অফ মিডিয়া অফিসার নাজমুল ইসলাম।
স্বপ্নজাল স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকাদের মধ্যে আফরোজা আক্তার শিরিন, সাইফুল ইসালম এবং মোঃ সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

কক্সবাজার পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত শুটকি পল্লী নাজিরারটেকে স্বপ্নজাল স্কুলের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের পুরস্কার বিতরণী করা হয় এবং শহীদদের প্রতি সম্মান রেখে দোয়া মাহফিল মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

কক্সবাজারে স্বপ্নজাল স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

আপডেট সময় ০৩:৩৪:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

স্বপ্নজাল স্বেচ্ছাসেবী ও সমাজ উন্নয়নমূলক সংস্থার আয়োজনে স্বপ্নজাল স্কুলে “মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৩ উদযাপন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার সময় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহিদ দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন স্বপ্নজাল স্বেচ্ছাসেবী ও সমাজ উন্নয়নমূলক সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এবং স্বপ্নজাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোঃ শাকির আলম।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ফারিহা হোসাইন বলেন, বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনের ভিত্তির উপর আমাদের স্বাধীনতা এসেছে। ভাষা আন্দোলনে বাঙালি রক্ত দিয়ে প্রমাণ করেছে যেকোনো অপশক্তিকে কীভাবে মোকাবেলা করতে হয়। আর এই ভাষা-সংগ্রামের আন্দোলনের মধ্য দিয়েই স্বাধীনতার স্বপ্নকে বাঙালির অস্তিত্বে জাগ্রত করেছিল স্বাধীনতার মহানায়ক ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’।

তিনি আরো বলেন, বায়ান্ন ও একাত্তরের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য জাতিসংঘে প্রস্তাব তুলেছিল। তাহলে বুঝতে হবে তারা কতখানি দেশপ্রেম ধারণ করলে এমন অবদান রাখতে পারে।

আলোচক হিসেবে ছিলেন স্বপ্নজাল সংস্থার সিনিয়র প্রজেক্ট অফিসার আজিজ উদ্দিন। তিনি বলেন, বাংলা অত্যন্ত সমৃদ্ধ একটি ভাষা। আমাদের ভাষাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে ভাষার ইতিহাস ঐতিহ্য জানতে হবে। কেননা পৃথিবীতে একটি জাতি আছে যারা ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছে। এই ভাষা অনন্য একটি ভাষা, রক্তের দামে কেনা। তাই আগামি প্রজন্মকে বাংলা ভাষার সঠিক ইতিহাস জানতে হবে তাহলেই বায়ান্ন ও একাত্তরের চেতনায় শাণিত হতে পারবে।

তিনি আরো বলেন, কোন অপসংস্কৃতি যেন আমাদের ভাষা- মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে গ্রাস করতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। তাহলেই সালাম, জব্বার, রফিক, শফিকের রক্ত বৃথা যাবে না।

স্বপ্নজাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক শাকির আলম বলেন, অনেক ত্যাগের আর শহীদের রক্তের দামে কেনা আমাদের মায়ের ভাষা। আগামিতে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে অবশ্যই শিশুদের ভাষা আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস ও ঐতিহ্য আগামি প্রজন্মকে জানাতে হবে।
সেই সাথে একুশের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে হবে। আমি সেই লক্ষে শিশুদেরকে স্কুলে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চা শেখানোর চেষ্টা করি। যাতে করে শিশুর আবেগ অনুভূতির সঙ্গে বাংলা সংস্কৃতির পরিচয় ঘটে।

আফরোজা আক্তার শিরিনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, হেড অফ মিডিয়া অফিসার নাজমুল ইসলাম।
স্বপ্নজাল স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকাদের মধ্যে আফরোজা আক্তার শিরিন, সাইফুল ইসালম এবং মোঃ সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

কক্সবাজার পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত শুটকি পল্লী নাজিরারটেকে স্বপ্নজাল স্কুলের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের পুরস্কার বিতরণী করা হয় এবং শহীদদের প্রতি সম্মান রেখে দোয়া মাহফিল মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।