ঢাকা ০৭:৫৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo সরাইলে প্রবাসী স্বামীর কোটি টাকা নিয়ে প্রেমিকের সংসারে লিপি Logo মুরাদনগরে আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য আয়োজনে প্লান্টিনাম জয়ন্তী পালিত Logo বরুড়ায় পৃথক পৃথকভাবে আ.লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী পালিত Logo সময়ের সাহসী সন্তান- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান Logo রাঙামাটিতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন Logo মানিকছড়িতে ইয়াবা সহ একজন গ্রেফতার Logo সাংবাদিকতা নিয়ে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের বিবৃতি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান Logo রূপসায় ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত Logo আমতলীতে বৌ-ভাতের অনুষ্ঠানে আসার পথে ব্রীজ ভেঙ্গে ৯জন নিহত Logo বরুড়ায় আ.লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

চুরির অপবাদে মায়ের সামনেই মেয়েকে পেটালেন কাপড় ব্যবসায়ী

মৌসুমি আক্তার (২৩) ও শাপলা আক্তার (২০) দুই বোন। তারা দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নে অবস্থিত একটি হেয়ার কোম্পানিতে নিয়মিত কাজ করেন। দুই মাসের বেতন একসাথে পেয়ে অনেকটা খুশিই ছিলেন তারা। এমনকি সেই খুশিতে তারা তাদের মাকে সাথে নিয়ে গিয়েছিল পার্শ্ববর্তী ভাদুরিয়া বাজারে কেনাকাটা করতে। ওই বাজারের বজলু (৪০) নামে এক কাপড় ব্যবসায়ীর দোকানে দু’টি থ্রি-পিচ পছন্দ করেন ওই দুই বোন। পছন্দকৃত দু’টি থ্রি-পিচের মূল্য ১৬০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন দোকানের কর্মচারীরা। কর্মচারীদের কথা অনুযায়ী দোকান মালিক বজলুর নিকট ২ টি ১০০০ টাকার নোট (মোট ২০০০ টাকা) প্রদান করেন মৌসুমি। নির্ধারিত টাকা কেটে নিয়ে ৪০০ টাকা ফেরত চাওয়ায় মা ও ছোট বোনের সামনেই মৌসুমীকে মারধর করতে থাকেন দোকান মালিক বজলু। ঘটনাস্থলে লোকজনের সংখ্যা বৃদ্ধি হতে থাকলে দোকান মালিক বজলু তার নিজের অপরাধের দায় থেকে বাঁচতে মৌসুমি ও তার মা-বোনকে এক পর্যায়ে কাপড় চোর হিসেবে চালিয়ে দিতে অপচেষ্টা চালান। দোকান মালিক বজলু তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা চুরির অভিযোগ এনে মারাত্মক রকমের অপপ্রচার চালিয়েছেন। আর এতে মৌসুমির সংসার ভাঙতে বসেছে বলে অভিযোগ করছেন ভুক্তভোগী মৌসুমি ও তার পরিবার।

মৌসুমির বাবা মহিদুল ইসলামের ভাষ্য অনুযায়ী, এ ব্যাপারে তার ভুক্তভোগী মেয়ে মৌসুমি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের পর থেকে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারকে অভিযোগ তুলে নিতে দফায় দফায় চাপ দেন অভিযুক্ত বজলু ও তার লোকজন।

ভুক্তভোগী মৌসুমি বলেন, পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে ঘটনাটি অবগত করেছি। পরে থানার একজন এএসআই মোবাইল ফোনে আমাকে কয়েকবার যোগাযোগ করেন। আগামীকাল সোমবার ২ টার সময় আমাকে থানায় ডেকেছেন তিনি। শুনেছি থানায় দুই পক্ষকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি সমঝোতা করে দেওয়া হবে। তবে আমি চাই আমার উপর হামলাকারী কাপড় ব্যবসায়ী বজলুর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ ডিসেম্বর বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে উপজেলার ভাদুরিয়া বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী বজলুর দোকানে মৌসুমি দুটি থ্রি-পিস পছন্দ করেন, যার মূল্য ১৬০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন ওই দোকানের কর্মচারীরা। কর্মচারীদের কথা অনুযায়ী মৌসুমী ২ টি ১০০০ টাকার নোট ওই দোকানের মালিক বজলুর নিকট প্রদান করে ৪০০ টাকা ফেরত চান। কিন্তু বজলু তার কর্মচারীদের নির্ধারণ করে দেওয়া ১৬০০ টাকা মূল্যে থ্রি-পিস দুটি বিক্রি করতে ও অতিরিক্ত ৪০০ টাকা মৌসুমিকে ফেরত দিতে একেবারেই নারাজ। বজলুর দাবি ওই দুটি থ্রি-পিসের মূল্য ২০০০ টাকাই। কোন টাকা ফেরত দেওয়া যাবেনা বলে বজলু মৌসুমিকে জানিয়ে দেন। তখন মৌসুমি বজলুকে জানিয়ে দেন থ্রি-পিচ দু’টি তার কাছ থেকে ক্রয় করবেনা বলে। উল্লেখিত থ্রি-পিস দুটি তাৎক্ষনিক বজলুকে ফেরত দিয়ে ২০০০ টাকা ফেরত চান মৌসুমী। এ সময় বজলু মৌসুমিকে টাকা ফেরত না দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। গালিগালাজ এর কারন জানতে চাইলে মৌসুমির উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন বজলু। এক পর্যায়ে মৌসুমির শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়িভাবে চড়-থাপ্পড় কিল-ঘুষি মেরে ছিলা ফুলা জখম করে। মৌসুমির চিৎকার শুনতে পেয়ে অদূরে থাকা লোকজন ওই দোকানে ছুটে আসেন। মৌসুমি ঘটনার বিষয়টি উপস্থিত সকলকে জানান। ঘটনার এখানেই শেষ নয়, ওই দোকানের মালিক বজলু বিষয়টি ভিন্ন খাতে নিতে মৌসুমি সহ তার মা ও বোনকে তার দোকান থেকে কাপড় চুরির অপবাদ দিতে থাকেন। এ সময় প্রকৃত ঘটনা জানতে মৌসুমি উপস্থিত লোকজনের অনুরোধ জানান সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করতে। তখন বজলু আরো ক্ষিপ্ত হয়ে মৌসুমি ও তার মা-বোনকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে দৃত ভাদুরিয়া বাজার ত্যাগ করতে বাধ্য করান।

নবাবগঞ্জ থানার এএসআই হেমন্ত জানান, দুই পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে তাদের থেকে শোনা হবে। এরপর মেয়েটি চাইলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সরাইলে প্রবাসী স্বামীর কোটি টাকা নিয়ে প্রেমিকের সংসারে লিপি

চুরির অপবাদে মায়ের সামনেই মেয়েকে পেটালেন কাপড় ব্যবসায়ী

আপডেট সময় ১২:২১:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

মৌসুমি আক্তার (২৩) ও শাপলা আক্তার (২০) দুই বোন। তারা দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নে অবস্থিত একটি হেয়ার কোম্পানিতে নিয়মিত কাজ করেন। দুই মাসের বেতন একসাথে পেয়ে অনেকটা খুশিই ছিলেন তারা। এমনকি সেই খুশিতে তারা তাদের মাকে সাথে নিয়ে গিয়েছিল পার্শ্ববর্তী ভাদুরিয়া বাজারে কেনাকাটা করতে। ওই বাজারের বজলু (৪০) নামে এক কাপড় ব্যবসায়ীর দোকানে দু’টি থ্রি-পিচ পছন্দ করেন ওই দুই বোন। পছন্দকৃত দু’টি থ্রি-পিচের মূল্য ১৬০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন দোকানের কর্মচারীরা। কর্মচারীদের কথা অনুযায়ী দোকান মালিক বজলুর নিকট ২ টি ১০০০ টাকার নোট (মোট ২০০০ টাকা) প্রদান করেন মৌসুমি। নির্ধারিত টাকা কেটে নিয়ে ৪০০ টাকা ফেরত চাওয়ায় মা ও ছোট বোনের সামনেই মৌসুমীকে মারধর করতে থাকেন দোকান মালিক বজলু। ঘটনাস্থলে লোকজনের সংখ্যা বৃদ্ধি হতে থাকলে দোকান মালিক বজলু তার নিজের অপরাধের দায় থেকে বাঁচতে মৌসুমি ও তার মা-বোনকে এক পর্যায়ে কাপড় চোর হিসেবে চালিয়ে দিতে অপচেষ্টা চালান। দোকান মালিক বজলু তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা চুরির অভিযোগ এনে মারাত্মক রকমের অপপ্রচার চালিয়েছেন। আর এতে মৌসুমির সংসার ভাঙতে বসেছে বলে অভিযোগ করছেন ভুক্তভোগী মৌসুমি ও তার পরিবার।

মৌসুমির বাবা মহিদুল ইসলামের ভাষ্য অনুযায়ী, এ ব্যাপারে তার ভুক্তভোগী মেয়ে মৌসুমি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের পর থেকে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারকে অভিযোগ তুলে নিতে দফায় দফায় চাপ দেন অভিযুক্ত বজলু ও তার লোকজন।

ভুক্তভোগী মৌসুমি বলেন, পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে ঘটনাটি অবগত করেছি। পরে থানার একজন এএসআই মোবাইল ফোনে আমাকে কয়েকবার যোগাযোগ করেন। আগামীকাল সোমবার ২ টার সময় আমাকে থানায় ডেকেছেন তিনি। শুনেছি থানায় দুই পক্ষকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি সমঝোতা করে দেওয়া হবে। তবে আমি চাই আমার উপর হামলাকারী কাপড় ব্যবসায়ী বজলুর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ ডিসেম্বর বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে উপজেলার ভাদুরিয়া বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী বজলুর দোকানে মৌসুমি দুটি থ্রি-পিস পছন্দ করেন, যার মূল্য ১৬০০ টাকা নির্ধারণ করে দেন ওই দোকানের কর্মচারীরা। কর্মচারীদের কথা অনুযায়ী মৌসুমী ২ টি ১০০০ টাকার নোট ওই দোকানের মালিক বজলুর নিকট প্রদান করে ৪০০ টাকা ফেরত চান। কিন্তু বজলু তার কর্মচারীদের নির্ধারণ করে দেওয়া ১৬০০ টাকা মূল্যে থ্রি-পিস দুটি বিক্রি করতে ও অতিরিক্ত ৪০০ টাকা মৌসুমিকে ফেরত দিতে একেবারেই নারাজ। বজলুর দাবি ওই দুটি থ্রি-পিসের মূল্য ২০০০ টাকাই। কোন টাকা ফেরত দেওয়া যাবেনা বলে বজলু মৌসুমিকে জানিয়ে দেন। তখন মৌসুমি বজলুকে জানিয়ে দেন থ্রি-পিচ দু’টি তার কাছ থেকে ক্রয় করবেনা বলে। উল্লেখিত থ্রি-পিস দুটি তাৎক্ষনিক বজলুকে ফেরত দিয়ে ২০০০ টাকা ফেরত চান মৌসুমী। এ সময় বজলু মৌসুমিকে টাকা ফেরত না দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। গালিগালাজ এর কারন জানতে চাইলে মৌসুমির উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন বজলু। এক পর্যায়ে মৌসুমির শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়িভাবে চড়-থাপ্পড় কিল-ঘুষি মেরে ছিলা ফুলা জখম করে। মৌসুমির চিৎকার শুনতে পেয়ে অদূরে থাকা লোকজন ওই দোকানে ছুটে আসেন। মৌসুমি ঘটনার বিষয়টি উপস্থিত সকলকে জানান। ঘটনার এখানেই শেষ নয়, ওই দোকানের মালিক বজলু বিষয়টি ভিন্ন খাতে নিতে মৌসুমি সহ তার মা ও বোনকে তার দোকান থেকে কাপড় চুরির অপবাদ দিতে থাকেন। এ সময় প্রকৃত ঘটনা জানতে মৌসুমি উপস্থিত লোকজনের অনুরোধ জানান সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করতে। তখন বজলু আরো ক্ষিপ্ত হয়ে মৌসুমি ও তার মা-বোনকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে দৃত ভাদুরিয়া বাজার ত্যাগ করতে বাধ্য করান।

নবাবগঞ্জ থানার এএসআই হেমন্ত জানান, দুই পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে তাদের থেকে শোনা হবে। এরপর মেয়েটি চাইলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।