ঢাকা ০৮:১৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নড়াইলে কৃষক হত্যায় ৫ জনের যাবজ্জীবন

নড়াইল সংবাদদাতা: নড়াইলের কালিয়া উপজেলায় সোবহান ফরাজি নামে এক কৃষককে হত্যার দায়ে পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে ৩০ হাজার করে জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (১৪ মে) সকাল ১১টার দিকে নড়াইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. আকরাম হোসেন এ আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন-উপজেলার পাঁচগ্রাম ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের মো. ফায়জুর মোল্যা, ফারুক মোল্যা, কামাল খাঁন,আশিকুর রহমান, ফসিয়ার মোল্যা।

তাদের মধ্যে আশিকুর রহমান পলাতক এবং ফসিয়ার মোল্যা মামলা চলাকালে মারা গেছেন।

অপরদিকে মামলার অন্য ২১ আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।
জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এমদাদুল ইসলাম ইমদাদ রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১০ সালের ১০ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে সাতবাড়িয়া গ্রামের সোবহান ফারাজি নিজের জমিতে পানি দেওয়ার জন্য ডিজেল কিনতে যাচ্ছিলেন। পথে টাকিমার স্লুইচগেটের পাশে ওত পেতে থাকা প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন।

এ ঘটনায় নিহত সোবহান ফারাজির ভাই জলিল ফারাজি বাদী হয়ে ২৬ জনকে আসামি করে কালিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই তৈয়েব আলী ২০১০ সালের ৬ অক্টোবর আদালতে অভিযোগ পত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন। ১৫ জনের সাক্ষ্য নেওয়ার পর দোষি স্বাব্যস্ত হওয়ায় বিচারক এ মামলায় পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৩০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেন। এছাড়া অন্য আসামিদের বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, পিপি জানান, আসামিদের মধ্যে ফসিয়ার মোল্যা যে মামলা চলাকালে মারা গেছেন, তা আদালতে উপস্থাপন করা হয়নি। এজন্য তাকেসহ সাজা দেওয়া হয়েছে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

নড়াইলে কৃষক হত্যায় ৫ জনের যাবজ্জীবন

আপডেট সময় ০৫:৪২:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ মে ২০২৩

নড়াইল সংবাদদাতা: নড়াইলের কালিয়া উপজেলায় সোবহান ফরাজি নামে এক কৃষককে হত্যার দায়ে পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে ৩০ হাজার করে জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (১৪ মে) সকাল ১১টার দিকে নড়াইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. আকরাম হোসেন এ আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন-উপজেলার পাঁচগ্রাম ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের মো. ফায়জুর মোল্যা, ফারুক মোল্যা, কামাল খাঁন,আশিকুর রহমান, ফসিয়ার মোল্যা।

তাদের মধ্যে আশিকুর রহমান পলাতক এবং ফসিয়ার মোল্যা মামলা চলাকালে মারা গেছেন।

অপরদিকে মামলার অন্য ২১ আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।
জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এমদাদুল ইসলাম ইমদাদ রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১০ সালের ১০ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে সাতবাড়িয়া গ্রামের সোবহান ফারাজি নিজের জমিতে পানি দেওয়ার জন্য ডিজেল কিনতে যাচ্ছিলেন। পথে টাকিমার স্লুইচগেটের পাশে ওত পেতে থাকা প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন।

এ ঘটনায় নিহত সোবহান ফারাজির ভাই জলিল ফারাজি বাদী হয়ে ২৬ জনকে আসামি করে কালিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই তৈয়েব আলী ২০১০ সালের ৬ অক্টোবর আদালতে অভিযোগ পত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন। ১৫ জনের সাক্ষ্য নেওয়ার পর দোষি স্বাব্যস্ত হওয়ায় বিচারক এ মামলায় পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৩০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেন। এছাড়া অন্য আসামিদের বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, পিপি জানান, আসামিদের মধ্যে ফসিয়ার মোল্যা যে মামলা চলাকালে মারা গেছেন, তা আদালতে উপস্থাপন করা হয়নি। এজন্য তাকেসহ সাজা দেওয়া হয়েছে।