ঢাকা ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo সাংবাদিকতা নিয়ে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের বিবৃতি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান Logo রূপসায় ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত Logo আমতলীতে বৌ-ভাতের অনুষ্ঠানে আসার পথে ব্রীজ ভেঙ্গে ৯জন নিহত Logo বরুড়ায় আ.লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত Logo চাঁপাই নবাবগঞ্জে ১৫০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার সহ দুইজন গ্রেফতার Logo সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদে কালীগঞ্জে মানববন্ধন Logo গলাচিপায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন Logo তোমাকে যে ধরতে আমি চাই Logo নওগাঁ থেকে বিপুল পরিমান গাঁজাসহ তিন মাদক কারবারি গ্রেফতার Logo মুরাদনগরে রোহিঙ্গাকে জন্ম নিবন্ধন করে দেওয়ায় ইউপি সচিব গ্রেফতার

নাসির নগরে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইট তৈরি অব্যাহত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ারয় উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে। নাসির নগর উপজেলার হরিপুর এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা দুটি ইটভাটা উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চালিয়ে যাচ্ছে উৎপাদন।
হরিপুর রাজবাড়ী থেকে কয়েকশত গজ দক্ষিণে রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস নামে অবৈধভাবে গড়ে উঠে দুটি ইটভাটা। স্থানীয়রা ইট ভাটা দুটি এখান থেকে সরিয়ে অন্যত্র স্থানান্তরের দাবি জানান।
ইট ভাটা দুটি অন্যত্র স্থানান্তরের জন্য স্থানীয় হরিপুর গ্রামের ইয়াকুব মিয়ার ছেলে মোঃ আউয়াল মিয়া গত ৩০ জানুয়ারি ২০২২ সালে উচ্চ আদালতে একটি পিটিশন দায়ের করেন, যার নম্বর ১৪৬৫৯। পিটিশনে তিনি উল্লেখ করেন ভাটা দুটির কালো ধোয়ার দূষণে স্থানীয় এলাকার পরিবেশ দুষিত হচ্ছে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রী ও এলাকার মানুষ নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এর প্রতিকার চেয়ে তিনি ভাটা দুটির পরিবেশ অধিদপ্তর ছাড়পত্র বাতিল করে অন্যত্র স্থানান্তরের দাবি করেন। এই বিষয়ে আউয়াল মিয়া জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও আবেদন করেছেন।
মহামান্য হাইকোর্ট ২০২২ সালের ২০ নভেম্বর একটি রুল জারি করেন। যা ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ উচ্চ আদালতে যথাযথ জবাব দিতে না পারায় গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ উচ্চ আদালত ভাটা দুটিকে বন্ধের নির্দেশ দেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে ভাটার মালিকরা প্রশাসনকে মেনেজ করে উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস দুটিতেই পুরোদমে উৎপাদন চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক বলছিলেন এখানে প্রশাসনের লোকজন আসে মাঝে মধ্যে তাদের মেনেজ করেই চলছে উৎপাদন।
রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস দুটিতেই গিয়ে মালিক পক্ষের কাউকে পাওয়া যায় নি। কারখানার ব্যাবস্থাপক ও সটকে পড়ে।

পরে রয়েল ব্রিকস এর মালিক মোঃ ইয়াসিন মিয়ার সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি ঢাকায় আছি পরে এসে কথা বলবো।

নাসির নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল্লাহ সরকার বলেন, ইট ভাটা অনুমোদন বা বন্ধের দায়িত্ব আমাদের নয়। এইটা পরিবেশ অধিদপ্তর ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব, আমরা শুধু সহযোগিতা করতে পারি। আর এই রায়ের কোন কপি আমাদের হাতে আসেনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফখরুল ইসলাম বলেন, গত দুইতিন দিন আগে আমার হাতে রায়ের কপি এসেছে। আমরা এই গুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সাংবাদিকতা নিয়ে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের বিবৃতি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান

নাসির নগরে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইট তৈরি অব্যাহত

আপডেট সময় ০১:১০:০৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মার্চ ২০২৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ারয় উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে। নাসির নগর উপজেলার হরিপুর এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা দুটি ইটভাটা উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চালিয়ে যাচ্ছে উৎপাদন।
হরিপুর রাজবাড়ী থেকে কয়েকশত গজ দক্ষিণে রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস নামে অবৈধভাবে গড়ে উঠে দুটি ইটভাটা। স্থানীয়রা ইট ভাটা দুটি এখান থেকে সরিয়ে অন্যত্র স্থানান্তরের দাবি জানান।
ইট ভাটা দুটি অন্যত্র স্থানান্তরের জন্য স্থানীয় হরিপুর গ্রামের ইয়াকুব মিয়ার ছেলে মোঃ আউয়াল মিয়া গত ৩০ জানুয়ারি ২০২২ সালে উচ্চ আদালতে একটি পিটিশন দায়ের করেন, যার নম্বর ১৪৬৫৯। পিটিশনে তিনি উল্লেখ করেন ভাটা দুটির কালো ধোয়ার দূষণে স্থানীয় এলাকার পরিবেশ দুষিত হচ্ছে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রী ও এলাকার মানুষ নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এর প্রতিকার চেয়ে তিনি ভাটা দুটির পরিবেশ অধিদপ্তর ছাড়পত্র বাতিল করে অন্যত্র স্থানান্তরের দাবি করেন। এই বিষয়ে আউয়াল মিয়া জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও আবেদন করেছেন।
মহামান্য হাইকোর্ট ২০২২ সালের ২০ নভেম্বর একটি রুল জারি করেন। যা ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ উচ্চ আদালতে যথাযথ জবাব দিতে না পারায় গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ উচ্চ আদালত ভাটা দুটিকে বন্ধের নির্দেশ দেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে ভাটার মালিকরা প্রশাসনকে মেনেজ করে উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস দুটিতেই পুরোদমে উৎপাদন চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক বলছিলেন এখানে প্রশাসনের লোকজন আসে মাঝে মধ্যে তাদের মেনেজ করেই চলছে উৎপাদন।
রয়েল ব্রিকস ও সততা ব্রিকস দুটিতেই গিয়ে মালিক পক্ষের কাউকে পাওয়া যায় নি। কারখানার ব্যাবস্থাপক ও সটকে পড়ে।

পরে রয়েল ব্রিকস এর মালিক মোঃ ইয়াসিন মিয়ার সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি ঢাকায় আছি পরে এসে কথা বলবো।

নাসির নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল্লাহ সরকার বলেন, ইট ভাটা অনুমোদন বা বন্ধের দায়িত্ব আমাদের নয়। এইটা পরিবেশ অধিদপ্তর ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব, আমরা শুধু সহযোগিতা করতে পারি। আর এই রায়ের কোন কপি আমাদের হাতে আসেনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফখরুল ইসলাম বলেন, গত দুইতিন দিন আগে আমার হাতে রায়ের কপি এসেছে। আমরা এই গুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি।