ঢাকা ০৯:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
পরিস্থিতি অশান্ত, আহত  ৭

বরুড়ায় এসএসসি পরীক্ষায় গোলযোগ : ২শিক্ষার্থী ও ১১ শিক্ষক বহিষ্কার

মোঃ ইলিয়াছ আহমদ, বরুড়া: কুমিল্লার বরুড়া উপজেলা  ৯ মে ২৩ ইং এস,এস,সি অংক পরীক্ষা শেষে বরুড়া হাজী নোয়াব আলী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কয়েকজন পরীক্ষার্থী গোলযোগ সৃষ্টি করে পরিস্থিতি অশান্ত করে। এতে  ৬ জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। শিক্ষক সহ ১৩ জন কে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করেছে প্রশাসন। অপরদিকে মহেশপুর আজিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে খাতা নিয়ে আসার পথে কে বা কারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে নুরুল ইসলাম নামে একজন কনস্টেবল আহত হয়।
জানা যায়,  অংক পরীক্ষা শেষে খাতা টানার অভিযোগ এনে কয়েকজন পরীক্ষার্থী এক  শিক্ষকের  মোটরসাইকেল এর গ্লাস ভাংচুর করে। এতে  পুলিশ বাঁধা দিলে কয়েকজন পরীক্ষার্থী ও  বহিরাগতদের মাঝে ইটপাটকেল ও দাওয়া পাল্টা দাওয়া হয়।
এতে  সজিব হোসেন( ২১) তাজুল ইসলাম (১৫) মোহাম্মদ আলী (৩৮) উদয় (১৭)ফাহাদ (১৭) মোঃ ফারুক (২১) নামে আহত হয়েছে। মোঃ ফারুক হোসেন কে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল প্রেরণ করেছে বলে জানা যায়।
কেন্দ্রের কয়েকজন শিক্ষক জানান, আমরা কাউকে বহিঃস্কার করেনি। বাহির থেকে কোন নকল সরবাহ করতে না পারার কারণে কিছু সংখ্যক পরীক্ষার্থী পরিক্ষা শেষে ভুল অভিযোগ দিয়ে পরিস্হিতি অশান্ত সৃষ্টি  করছে।
পুলিশ এতে বাঁধা দিলে বহিরাগত কিছু লোকজন এসে তাদের সাথে যোগ হয়ে পরীক্ষার হলের বাহিরে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং স্কুলের দক্ষিণ পাশের বিল্ডিং এর কয়েকটি গ্লাস ভাংচুর করে।
খাতা নিয়ে যেতে বাঁধা দিবে বলে গুনজন উঠলে ২ ঘন্টা পর আনুমানিক ৩ টার দিকে খাতা নিয়ে যাওয়ার পথে পুলিশের গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ লাটিচার্জ করে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছে। বরুড়া থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফিরোজ হোসেন সুকৌশলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।
এছাড়া ও বিভিন্ন কেন্দ্রে ২ শিক্ষার্থী ১১ জন শিক্ষক কে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। বরুড়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসা কেন্দ্রে কৃন্ষপুর মাদরাসার ১ জন শিক্ষার্থী ও তলাগ্রাম ত, চ,লাহা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১ জন শিক্ষার্থী কে বহিষ্কার করেছে। বাতাইছড়ি কেন্দ্রে কেমতলী উচ্চ বিদ্যালয় এর শিক্ষক সরোয়ার আলম ও শিমুল চন্দ্র ভৌমিক, আড্ডা উমেদারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ঝলম স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক জহিরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, রন্জিত সরকার, বরুড়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসা কেন্দ্রে বাতাইছড়ি মাদরাসা শিক্ষক  রাবেয়া আক্তার, চালিতাতলী মাদরাসা শিক্ষক ইলিয়াছ মিয়া, ঝলম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কৃন্ষপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সেলিনা ইসলাম ছোটতুলাগাও উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষক খোকন চন্দ্র শর্মা, পয়ালগাছা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে শাহিদা আক্তার কে দায়িত্ব অবহেলার কারণে  অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।
বরুড়া হাই স্কুল কেন্দ্রের কয়েকজন শিক্ষার্থীরা জানান, ঘাড় ফেরাতে দেয়নি পরিদর্শকরা, পেছন থেকে আমার খাতা একজনে দেখে লিখেছে আমার খাতা ও নিয়ে গেছে। অথচ অনুরোধ করার পর আমার খাতা টি দেয় নি।
বরুড়া হাজী নোয়াব আলী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব মোঃ মেধাদ উদ্দিন বলেন, নকল মুক্ত সুন্দর পরিবেশে  পরীক্ষা হয়েছে। পরীক্ষা শেষে বহিরাগত কিছু লোকজন পরীক্ষা হলের বাহিরে গোলযোগ করেছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে।
বরুড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবরিনা আফরিন মুস্তফা বলেন, সম্পুর্ন নকল মুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা হয়েছে। দায়িত্ব অবহেলার কারণে কয়েকজন শিক্ষক কে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

পরিস্থিতি অশান্ত, আহত  ৭

বরুড়ায় এসএসসি পরীক্ষায় গোলযোগ : ২শিক্ষার্থী ও ১১ শিক্ষক বহিষ্কার

আপডেট সময় ১২:২২:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ মে ২০২৩
মোঃ ইলিয়াছ আহমদ, বরুড়া: কুমিল্লার বরুড়া উপজেলা  ৯ মে ২৩ ইং এস,এস,সি অংক পরীক্ষা শেষে বরুড়া হাজী নোয়াব আলী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কয়েকজন পরীক্ষার্থী গোলযোগ সৃষ্টি করে পরিস্থিতি অশান্ত করে। এতে  ৬ জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। শিক্ষক সহ ১৩ জন কে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করেছে প্রশাসন। অপরদিকে মহেশপুর আজিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে খাতা নিয়ে আসার পথে কে বা কারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে নুরুল ইসলাম নামে একজন কনস্টেবল আহত হয়।
জানা যায়,  অংক পরীক্ষা শেষে খাতা টানার অভিযোগ এনে কয়েকজন পরীক্ষার্থী এক  শিক্ষকের  মোটরসাইকেল এর গ্লাস ভাংচুর করে। এতে  পুলিশ বাঁধা দিলে কয়েকজন পরীক্ষার্থী ও  বহিরাগতদের মাঝে ইটপাটকেল ও দাওয়া পাল্টা দাওয়া হয়।
এতে  সজিব হোসেন( ২১) তাজুল ইসলাম (১৫) মোহাম্মদ আলী (৩৮) উদয় (১৭)ফাহাদ (১৭) মোঃ ফারুক (২১) নামে আহত হয়েছে। মোঃ ফারুক হোসেন কে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল প্রেরণ করেছে বলে জানা যায়।
কেন্দ্রের কয়েকজন শিক্ষক জানান, আমরা কাউকে বহিঃস্কার করেনি। বাহির থেকে কোন নকল সরবাহ করতে না পারার কারণে কিছু সংখ্যক পরীক্ষার্থী পরিক্ষা শেষে ভুল অভিযোগ দিয়ে পরিস্হিতি অশান্ত সৃষ্টি  করছে।
পুলিশ এতে বাঁধা দিলে বহিরাগত কিছু লোকজন এসে তাদের সাথে যোগ হয়ে পরীক্ষার হলের বাহিরে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং স্কুলের দক্ষিণ পাশের বিল্ডিং এর কয়েকটি গ্লাস ভাংচুর করে।
খাতা নিয়ে যেতে বাঁধা দিবে বলে গুনজন উঠলে ২ ঘন্টা পর আনুমানিক ৩ টার দিকে খাতা নিয়ে যাওয়ার পথে পুলিশের গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ লাটিচার্জ করে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছে। বরুড়া থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফিরোজ হোসেন সুকৌশলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।
এছাড়া ও বিভিন্ন কেন্দ্রে ২ শিক্ষার্থী ১১ জন শিক্ষক কে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। বরুড়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসা কেন্দ্রে কৃন্ষপুর মাদরাসার ১ জন শিক্ষার্থী ও তলাগ্রাম ত, চ,লাহা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১ জন শিক্ষার্থী কে বহিষ্কার করেছে। বাতাইছড়ি কেন্দ্রে কেমতলী উচ্চ বিদ্যালয় এর শিক্ষক সরোয়ার আলম ও শিমুল চন্দ্র ভৌমিক, আড্ডা উমেদারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ঝলম স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক জহিরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, রন্জিত সরকার, বরুড়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসা কেন্দ্রে বাতাইছড়ি মাদরাসা শিক্ষক  রাবেয়া আক্তার, চালিতাতলী মাদরাসা শিক্ষক ইলিয়াছ মিয়া, ঝলম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কৃন্ষপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সেলিনা ইসলাম ছোটতুলাগাও উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষক খোকন চন্দ্র শর্মা, পয়ালগাছা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে শাহিদা আক্তার কে দায়িত্ব অবহেলার কারণে  অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।
বরুড়া হাই স্কুল কেন্দ্রের কয়েকজন শিক্ষার্থীরা জানান, ঘাড় ফেরাতে দেয়নি পরিদর্শকরা, পেছন থেকে আমার খাতা একজনে দেখে লিখেছে আমার খাতা ও নিয়ে গেছে। অথচ অনুরোধ করার পর আমার খাতা টি দেয় নি।
বরুড়া হাজী নোয়াব আলী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব মোঃ মেধাদ উদ্দিন বলেন, নকল মুক্ত সুন্দর পরিবেশে  পরীক্ষা হয়েছে। পরীক্ষা শেষে বহিরাগত কিছু লোকজন পরীক্ষা হলের বাহিরে গোলযোগ করেছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে।
বরুড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবরিনা আফরিন মুস্তফা বলেন, সম্পুর্ন নকল মুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা হয়েছে। দায়িত্ব অবহেলার কারণে কয়েকজন শিক্ষক কে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।