ঢাকা ০৭:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধিতে কমিউনিস্ট পার্টির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

  • প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ
  • আপডেট সময় ১০:২৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩
  • ১৩২ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কমরেড ডাঃ এম এ সামাদ আজ ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে বলেন, লুটপাটকারীদের স্বার্থে নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘটনা নজিরবিহীন, জনগনের উপর মরার উপর খাঁড়ার ঘা। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই, অবিলম্বে মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।

বিবৃতিতে কমরেড সামাদ আরও বলেন, দেশি—বিদেশি লুটেরাদের স্বার্থে বেসরকারি ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ না কিনেও বসিয়ে রেখে ক্যাপাসিটি চার্জ বাবদ বছরের পর বছর ধরে হাজার হাজার কোটি টাকা গচ্চা দেয়া হয়েছে। সরকারের দুর্নীতি ও ভুলনীতির সেই দায় জনগণের কাঁধে চাপানো হচ্ছে। সরকার বার বার দাম বৃদ্ধি করছে। সরকারের এই দুর্নীতি ও ভুলনীতির দায় জনগণ কেন বহন করবে?

কমরেড সামাদ বলেন, বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ফলে সকল ধরনের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাবে। ফলে নিত্যপণ্যসহ সকল জিনিসের দামও বাড়বে। যা জনগণের জীবনযাত্রার ব্যয় বহু গুন বাড়াবে। জনগণের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, অবিলম্বে বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার, দুর্নীতি লুটপাট বন্ধ, ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ, জ্বালানি খাতে দায়মুক্তি আইন বাতিল, দুর্নীতি—ভুলনীতি পরিহার করে লুটপাটকারীদের আইনের আওতায় আনুন নইলে জনগণ গণআন্দোলন করে দাবি আদায় করবে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধিতে কমিউনিস্ট পার্টির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

আপডেট সময় ১০:২৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কমরেড ডাঃ এম এ সামাদ আজ ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে বলেন, লুটপাটকারীদের স্বার্থে নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘটনা নজিরবিহীন, জনগনের উপর মরার উপর খাঁড়ার ঘা। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই, অবিলম্বে মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।

বিবৃতিতে কমরেড সামাদ আরও বলেন, দেশি—বিদেশি লুটেরাদের স্বার্থে বেসরকারি ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ না কিনেও বসিয়ে রেখে ক্যাপাসিটি চার্জ বাবদ বছরের পর বছর ধরে হাজার হাজার কোটি টাকা গচ্চা দেয়া হয়েছে। সরকারের দুর্নীতি ও ভুলনীতির সেই দায় জনগণের কাঁধে চাপানো হচ্ছে। সরকার বার বার দাম বৃদ্ধি করছে। সরকারের এই দুর্নীতি ও ভুলনীতির দায় জনগণ কেন বহন করবে?

কমরেড সামাদ বলেন, বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ফলে সকল ধরনের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাবে। ফলে নিত্যপণ্যসহ সকল জিনিসের দামও বাড়বে। যা জনগণের জীবনযাত্রার ব্যয় বহু গুন বাড়াবে। জনগণের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, অবিলম্বে বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার, দুর্নীতি লুটপাট বন্ধ, ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ, জ্বালানি খাতে দায়মুক্তি আইন বাতিল, দুর্নীতি—ভুলনীতি পরিহার করে লুটপাটকারীদের আইনের আওতায় আনুন নইলে জনগণ গণআন্দোলন করে দাবি আদায় করবে।