ঢাকা ০৪:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভোলায় চরফ্যাশনে বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ মেম্বার’র বিরুদ্ধে

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলাধীন ওসমানগঞ্জ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার শামসুদ্দিন এর বিরুদ্ধে অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য রফিকুল ইসলামের বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার সকালে শামসুদ্দিন মেম্বারের ভাইবোনসহ তার বাহিনী নিয়ে বাড়িটি দখলের চেষ্টা করেন। পরে ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলাম ৯৯৯ এ কল করে চরফ্যাশন থানা পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘ ৭০ বছর পূর্বে রফিকুল ইসলামের পিতা মৃত আব্দুর রব হাওলাদার হিন্দু সম্প্রদায়ের এক পরিবার থেকে এই বাড়ি ক্রয় সূত্রে মালিক হন। সে থেকে বর্তমান পর্যন্ত তারাই দখলে ছিলেন। কিন্তু এখন শামসুদ্দিন মেম্বার বলছে এই বাড়ির মালিক তিনি। ইতিপূর্বে অপ্রীতিকর ঘটনার কারণে শামসুদ্দিন মেম্বার এলাকাবাসীর হাতে গণধোলাই খেয়ে একমাস জেলও খেটেছেন বলে জানা যায়।

ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলাম বলেন, গত নির্বাচনে মেম্বার হওয়ার পর থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শামসুদ্দিন। তিনি ক্ষমতার দাপট, ভুয়া কাগজ ও মামলা-হামলার মাধ্যমে আমার বসত বাড়িটি দখলের পাঁয়তারা করে আসছে। এবং আমার পরিবারকে নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। তদন্ত সাপেক্ষে আমি এই শামসুদ্দিনের কঠোর বিচার দাবিও করেছেন ভুক্তভোগীর পরিবার। অপরদিকে অভিযুক্ত শামসুদ্দিন মেম্বার বলেন, তার বাবার ওয়ারিশ সূত্রে এই বাড়ির মালিক তিনি।

চরফ্যাশন থানা অফিসার্স ইনচার্জ মুরাদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত অপেক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ভোলায় চরফ্যাশনে বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ মেম্বার’র বিরুদ্ধে

আপডেট সময় ০২:৪৬:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৭ এপ্রিল ২০২৩

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলাধীন ওসমানগঞ্জ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার শামসুদ্দিন এর বিরুদ্ধে অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য রফিকুল ইসলামের বাড়ি দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার সকালে শামসুদ্দিন মেম্বারের ভাইবোনসহ তার বাহিনী নিয়ে বাড়িটি দখলের চেষ্টা করেন। পরে ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলাম ৯৯৯ এ কল করে চরফ্যাশন থানা পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘ ৭০ বছর পূর্বে রফিকুল ইসলামের পিতা মৃত আব্দুর রব হাওলাদার হিন্দু সম্প্রদায়ের এক পরিবার থেকে এই বাড়ি ক্রয় সূত্রে মালিক হন। সে থেকে বর্তমান পর্যন্ত তারাই দখলে ছিলেন। কিন্তু এখন শামসুদ্দিন মেম্বার বলছে এই বাড়ির মালিক তিনি। ইতিপূর্বে অপ্রীতিকর ঘটনার কারণে শামসুদ্দিন মেম্বার এলাকাবাসীর হাতে গণধোলাই খেয়ে একমাস জেলও খেটেছেন বলে জানা যায়।

ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলাম বলেন, গত নির্বাচনে মেম্বার হওয়ার পর থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শামসুদ্দিন। তিনি ক্ষমতার দাপট, ভুয়া কাগজ ও মামলা-হামলার মাধ্যমে আমার বসত বাড়িটি দখলের পাঁয়তারা করে আসছে। এবং আমার পরিবারকে নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। তদন্ত সাপেক্ষে আমি এই শামসুদ্দিনের কঠোর বিচার দাবিও করেছেন ভুক্তভোগীর পরিবার। অপরদিকে অভিযুক্ত শামসুদ্দিন মেম্বার বলেন, তার বাবার ওয়ারিশ সূত্রে এই বাড়ির মালিক তিনি।

চরফ্যাশন থানা অফিসার্স ইনচার্জ মুরাদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত অপেক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।