ঢাকা ০২:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মনিরামপুরে প্রেম করার অপরাধে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

  • যশোর প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় ০৩:১৯:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩
  • ১০৭ বার পড়া হয়েছে

যশোর মনিরামপুরে প্রেমের সম্পর্কের জেরে মেয়ের পরিবার পারভেজ হাসান (১৯) নামে এক যুবককে ধরে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার পর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনকালে জোর করে ওই যুবকের মুখে বিষ ঢেলে দেওয়া হয় বলে স্বজনদের ও এলাবাসীর অভিযোগ। মারা যাওয়ার আগে নিহত যুবক পারভেজ হাসান হাসপাতালের বেডে শুইয়ে একটিই ভাষ্যে ছিলো জোর করে মুখে বিষ ঢেলে দেয়ার কথা বলে গেছে। যার একটি ভিডিও রেকর্ড এ প্রতিবেদকের কাছে পৌঁছেছে। এ ঘটনায় মেয়ের পিতাসহ দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। মণিরামপুর উপজেলার বাগডোব পল্লী গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

এলাকার নির্ভরযোগ‍্য সুত্র থেকে জানা যায়, ইসমাইল হোসেনের ছেলে পারভেজ হাসান শৈশব থেকেই নানা বাড়িতে থেকে পড়াশুনা করে আসছিল। পারভেজ গেলো বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। চলতি বছর তার বিদেশে যাবার কথা ছিল। এজন্য পাসপোর্টও করা হয়। নানা বাড়িতে থাকার সুবাদে প্রতিবেশী ডাঃ ইমরান হোসেনের মেয়ে রিয়ার সাথে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। যুবকের পরিবার গরিব হওয়ায় এ সম্পর্ক মেনে নিতে না পেরেই রিয়ার পিতাসহ স্বজনরা পারভেজ হাসানের উপর মধ্যযুগীয় নির্যান চালিয়ে মুখে কীটনাশক ঢেলে দেয় বলে অভিযোগ।

পারভেজের নানা সিদ্দিক ব্যাপারী ও মা কোহিনুর বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, গত ২১ জানুয়ারি শনিবার সকালে প্রতিবেশী ইমরানের মেয়ে রিয়া বাড়ি থেকে চলে যায়। ঘটনার দুই দিন পর রিয়াকে ঝিকরগাছা উপজেলার একটি গ্রাম থেকে উদ্ধার করে।তাদের নাতী ২৩ জানুয়ারি আসরের পর বাড়ি থেকে স্থানীয় রোহিতা বাজারে উদ্দেশ্যে বের হলে পিতাসহ রিয়ার স্বজনরা তাদের নাতী পারভেজ হাসানকে টেনে হেঁচড়ে স্থানীয় প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের বাড়িতে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে গাছের সাথে বেঁধে মিজানুর রহমানসহ রিয়ার স্বজনরা পারভেজের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালায়। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় মিজানুর রহমানের বাড়িতে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় পারভেজকে দেখেন। আর না মারতে নির্যাতনকারীদের দু’পা জড়িয়ে ধরেন তারা। এক পর্যায় সেখান থেকে পারভেজকে উদ্ধার করে মণিরামপুর হাসপাতালে নেয়। একটু সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফেরার পর গত ২৭ জানুয়ারি শুক্রবার ফের রিয়ার পিতাসহ কয়েকজন মিলে পারভেজকে বেধড়ক মারপিট করে মুখে কীটনাশক ঢেলে দেয়। মারপিট করে পাশের একটি ডোবায় ফেলে দেবার চেষ্টাকালে পারভেজ সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে আসলে যশোর ২শ’ ৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পারভেজকে খুলনা আড়াইশ’ শয্যা হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে পারভেজ মারা যায়। এ ঘটনায় গত ২৮ জানুয়ারি পারভেজ হাসানের নানা সিদ্দিক ব্যাপারী বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন।

পারভেজের খালা জাহানারা বেগম জানান, হাসপাতালে তার কোলেই পারভেজ শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে। মারা যাবার আগে হাসপাতালের বেডে শুইয়ে পারভেজ হাসান জানায়, তাকে মেরে জোর করে মুখের ভিতর বিষ ঢেলে দেয়া হয়। পারভেজের ভাষ্যটির একটি ভিডিও রেকর্ড স্বজনরা ধারন করে রাখেন।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে রিয়ার পিতা ডাঃ ইমরান হোসেন ও তার ( ইমরান হোসেন) মামা সিরাজুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ।

প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জানান, তিনি মারপিটের সাথে জড়িত নন। মেয়ে পরিবারের লোকজন ছেলেটিকে ধরে তার বাড়িতে এনেছিল। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মেয়েপক্ষ ছেলেটিকে চড়-থাপ্পড় দিলে তিনি ঠেকিয়ে ছিলেন।

থানার ওসি শেখ মনিরুজ্জামান জানান, ঘটনা জানার সাথে সাথে মামলা নেয়ার পর এর সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মেয়ের পিতাসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

মনিরামপুরে প্রেম করার অপরাধে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

আপডেট সময় ০৩:১৯:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

যশোর মনিরামপুরে প্রেমের সম্পর্কের জেরে মেয়ের পরিবার পারভেজ হাসান (১৯) নামে এক যুবককে ধরে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার পর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনকালে জোর করে ওই যুবকের মুখে বিষ ঢেলে দেওয়া হয় বলে স্বজনদের ও এলাবাসীর অভিযোগ। মারা যাওয়ার আগে নিহত যুবক পারভেজ হাসান হাসপাতালের বেডে শুইয়ে একটিই ভাষ্যে ছিলো জোর করে মুখে বিষ ঢেলে দেয়ার কথা বলে গেছে। যার একটি ভিডিও রেকর্ড এ প্রতিবেদকের কাছে পৌঁছেছে। এ ঘটনায় মেয়ের পিতাসহ দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। মণিরামপুর উপজেলার বাগডোব পল্লী গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

এলাকার নির্ভরযোগ‍্য সুত্র থেকে জানা যায়, ইসমাইল হোসেনের ছেলে পারভেজ হাসান শৈশব থেকেই নানা বাড়িতে থেকে পড়াশুনা করে আসছিল। পারভেজ গেলো বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। চলতি বছর তার বিদেশে যাবার কথা ছিল। এজন্য পাসপোর্টও করা হয়। নানা বাড়িতে থাকার সুবাদে প্রতিবেশী ডাঃ ইমরান হোসেনের মেয়ে রিয়ার সাথে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। যুবকের পরিবার গরিব হওয়ায় এ সম্পর্ক মেনে নিতে না পেরেই রিয়ার পিতাসহ স্বজনরা পারভেজ হাসানের উপর মধ্যযুগীয় নির্যান চালিয়ে মুখে কীটনাশক ঢেলে দেয় বলে অভিযোগ।

পারভেজের নানা সিদ্দিক ব্যাপারী ও মা কোহিনুর বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, গত ২১ জানুয়ারি শনিবার সকালে প্রতিবেশী ইমরানের মেয়ে রিয়া বাড়ি থেকে চলে যায়। ঘটনার দুই দিন পর রিয়াকে ঝিকরগাছা উপজেলার একটি গ্রাম থেকে উদ্ধার করে।তাদের নাতী ২৩ জানুয়ারি আসরের পর বাড়ি থেকে স্থানীয় রোহিতা বাজারে উদ্দেশ্যে বের হলে পিতাসহ রিয়ার স্বজনরা তাদের নাতী পারভেজ হাসানকে টেনে হেঁচড়ে স্থানীয় প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের বাড়িতে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে গাছের সাথে বেঁধে মিজানুর রহমানসহ রিয়ার স্বজনরা পারভেজের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালায়। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় মিজানুর রহমানের বাড়িতে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় পারভেজকে দেখেন। আর না মারতে নির্যাতনকারীদের দু’পা জড়িয়ে ধরেন তারা। এক পর্যায় সেখান থেকে পারভেজকে উদ্ধার করে মণিরামপুর হাসপাতালে নেয়। একটু সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফেরার পর গত ২৭ জানুয়ারি শুক্রবার ফের রিয়ার পিতাসহ কয়েকজন মিলে পারভেজকে বেধড়ক মারপিট করে মুখে কীটনাশক ঢেলে দেয়। মারপিট করে পাশের একটি ডোবায় ফেলে দেবার চেষ্টাকালে পারভেজ সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে আসলে যশোর ২শ’ ৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পারভেজকে খুলনা আড়াইশ’ শয্যা হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে পারভেজ মারা যায়। এ ঘটনায় গত ২৮ জানুয়ারি পারভেজ হাসানের নানা সিদ্দিক ব্যাপারী বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন।

পারভেজের খালা জাহানারা বেগম জানান, হাসপাতালে তার কোলেই পারভেজ শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে। মারা যাবার আগে হাসপাতালের বেডে শুইয়ে পারভেজ হাসান জানায়, তাকে মেরে জোর করে মুখের ভিতর বিষ ঢেলে দেয়া হয়। পারভেজের ভাষ্যটির একটি ভিডিও রেকর্ড স্বজনরা ধারন করে রাখেন।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে রিয়ার পিতা ডাঃ ইমরান হোসেন ও তার ( ইমরান হোসেন) মামা সিরাজুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ।

প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জানান, তিনি মারপিটের সাথে জড়িত নন। মেয়ে পরিবারের লোকজন ছেলেটিকে ধরে তার বাড়িতে এনেছিল। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মেয়েপক্ষ ছেলেটিকে চড়-থাপ্পড় দিলে তিনি ঠেকিয়ে ছিলেন।

থানার ওসি শেখ মনিরুজ্জামান জানান, ঘটনা জানার সাথে সাথে মামলা নেয়ার পর এর সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মেয়ের পিতাসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে।