ঢাকা ০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে ৯৩’র ব্যাচের বন্ধুদের মিলনমেলা

‘মেতে উঠি আনন্দে, ফিরে যাই শৈশবে’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে প্রায় আড়াই যুগ পর বন্ধুত্ব, আন্তরিকতা সৃষ্টির পাশাপাশি পারস্পরিক সস্প্রীতি বন্ধনের সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কুমিল্লার মুরাদনগরে এসএসসি-৯৩ ব্যাচের বন্ধুদের ৩০ বর্ষপূর্তি উৎসব ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দিনব্যাপী উপজেলা সদরের ঘোড়াশাল এ.কে হাই স্কুল মাঠে এই মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে আশে-পাশের বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রায় দুই শতাধিক বন্ধু অংশগ্রহন করে। অনুষ্ঠানে স্কুলের বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধান শিক্ষক মতিউর রহমান (বিএসসি)।
বন্ধুদের মিলনমেলা খানিকটা সময়ের জন্য তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যায় সেই কৈশোরে। ফিরে যাওয়ার আগে পরস্পর পরস্পরকে জড়িয়ে ধরেন গভীর আবেগে। নিশ্চুপ হয়ে যান ক্ষণিকের তরে। তাছাড়া দীর্ঘদিন একে অপরের সাক্ষাতে অনেকেই আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন। বন্ধুদের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহনে পুরো অনুষ্ঠান মুখরিত হয়ে ওঠে। শৈশবের স্কুলের সহপাঠী বন্ধুদের আন্তরিক ভালোবাসা ও পরিশ্রমের কারণে উৎসবে স্মৃতি চারণের মাধ্যমে অনুভূতি প্রকাশ সহ বন্ধুদের আড্ডা ছিল খুবই প্রাণবন্ত। দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে আলোচনা সভা, অতিথিদের সম্মাননা স্মারক প্রদান, গল্প, স্মৃতিচারণ, প্রীতিভোজ, ছবি তোলা, আড্ডা, লাকী কুপন লটারি, কবিতা ও গানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আবেগঘন স্মৃতিচারণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ৯৩ বন্ধুদের মিলনমেলার স্মৃতিময় দিনটি। বন্ধু মিলনমেলা আয়োজক কমিটির সদস্য মনিরুজ্জামান মনির ও হুমায়ুন কবির জানান, বন্ধু মিলনমেলা অনুষ্ঠান দিনব্যাপী সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমরা ভবিষৎতে আরো বড় পরিসরে করা হবে। বন্ধুদের সুরের তালে বলতে ইচ্ছে করছে আবার হবে দেখা, এখনই শেষ দেখা নয়। আবার হবে কথা, এখনই শেষ কথা নয়।

আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে ৯৩’র ব্যাচের বন্ধুদের মিলনমেলা

আপডেট সময় ০১:০৩:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩

‘মেতে উঠি আনন্দে, ফিরে যাই শৈশবে’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে প্রায় আড়াই যুগ পর বন্ধুত্ব, আন্তরিকতা সৃষ্টির পাশাপাশি পারস্পরিক সস্প্রীতি বন্ধনের সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কুমিল্লার মুরাদনগরে এসএসসি-৯৩ ব্যাচের বন্ধুদের ৩০ বর্ষপূর্তি উৎসব ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দিনব্যাপী উপজেলা সদরের ঘোড়াশাল এ.কে হাই স্কুল মাঠে এই মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে আশে-পাশের বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রায় দুই শতাধিক বন্ধু অংশগ্রহন করে। অনুষ্ঠানে স্কুলের বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধান শিক্ষক মতিউর রহমান (বিএসসি)।
বন্ধুদের মিলনমেলা খানিকটা সময়ের জন্য তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যায় সেই কৈশোরে। ফিরে যাওয়ার আগে পরস্পর পরস্পরকে জড়িয়ে ধরেন গভীর আবেগে। নিশ্চুপ হয়ে যান ক্ষণিকের তরে। তাছাড়া দীর্ঘদিন একে অপরের সাক্ষাতে অনেকেই আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন। বন্ধুদের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহনে পুরো অনুষ্ঠান মুখরিত হয়ে ওঠে। শৈশবের স্কুলের সহপাঠী বন্ধুদের আন্তরিক ভালোবাসা ও পরিশ্রমের কারণে উৎসবে স্মৃতি চারণের মাধ্যমে অনুভূতি প্রকাশ সহ বন্ধুদের আড্ডা ছিল খুবই প্রাণবন্ত। দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে আলোচনা সভা, অতিথিদের সম্মাননা স্মারক প্রদান, গল্প, স্মৃতিচারণ, প্রীতিভোজ, ছবি তোলা, আড্ডা, লাকী কুপন লটারি, কবিতা ও গানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আবেগঘন স্মৃতিচারণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ৯৩ বন্ধুদের মিলনমেলার স্মৃতিময় দিনটি। বন্ধু মিলনমেলা আয়োজক কমিটির সদস্য মনিরুজ্জামান মনির ও হুমায়ুন কবির জানান, বন্ধু মিলনমেলা অনুষ্ঠান দিনব্যাপী সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমরা ভবিষৎতে আরো বড় পরিসরে করা হবে। বন্ধুদের সুরের তালে বলতে ইচ্ছে করছে আবার হবে দেখা, এখনই শেষ দেখা নয়। আবার হবে কথা, এখনই শেষ কথা নয়।