ঢাকা ০৩:২২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যশোরে ছুরিকাঘাতে জোড়া খুন

যশোরে ছুরিকাঘাতে জোড়া খুনের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শহরতলীর ঘুরুলিয়া গ্রামে নদের পাশে মাঠের মধ্যে।ইউছুপ (২৭) ও নাহিদ (১৮) নামে দুই যুবককে ছুরিকাঘাত হত্যা করা হয়েছে।

পরিবারিক কলহেরর জের ধরে ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ইউনুছ আলী ও দূর্বৃত্বের ছুরিকাঘাতে নাহিদ হত্যাকান্ড ঘটেছে। ঘটনা দুটি ঘটেছে ৩১ মার্চ শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে। নিহতদের লাশ এখন যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

নিহত ইউনুছ ঘুরুলিয়া গ্রামের লতিফ মিয়ার ছেলে ও নিহত নাহিদ শেখহাটি গ্রামের বাচ্চু শেখের ছেলে।
প্রতাক্ষদর্শি, পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, আজ রাত সাড় ৮ টার দিকে ইউছুপের ছোট ভাই ইউনুছের পারিবারিক কলহের কারনে হাতাহাতি হয়। এসময় ইউসুফ সে তার ভাই ইউনুছের বুকে ছুরিকাঘাত করে। হাসপাতালে আনার পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পৃথক রাত ৯ টার দিকে দূর্বৃত্ত্বরা পূর্ববারান্দী নাথপাড়া নদীর পাড়ে মাঠের মধ্যে নাহিদের গলায় ছুরিকাঘাত করে চলে যায়। নাহিদের গোংড়ানোর আওয়াজ পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এবং হাসপাতালে আনার পরে নাহিদের মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত ডাক্তার সালাউদ্দিন বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। মুলত ছুরিজাঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণে তারা মারা যায়। জানতে চাইলে কোতয়ালী থানার ওসি মো তাজুল ইসলাম বলেন, পৃথক দুটি ঘটনায়ই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

কি কারনে খুন হল পুলিশ বিষয়টি গভির ভাবে খতিয়ে দেখছে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

যশোরে ছুরিকাঘাতে জোড়া খুন

আপডেট সময় ০৫:৩৩:৪১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩

যশোরে ছুরিকাঘাতে জোড়া খুনের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শহরতলীর ঘুরুলিয়া গ্রামে নদের পাশে মাঠের মধ্যে।ইউছুপ (২৭) ও নাহিদ (১৮) নামে দুই যুবককে ছুরিকাঘাত হত্যা করা হয়েছে।

পরিবারিক কলহেরর জের ধরে ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ইউনুছ আলী ও দূর্বৃত্বের ছুরিকাঘাতে নাহিদ হত্যাকান্ড ঘটেছে। ঘটনা দুটি ঘটেছে ৩১ মার্চ শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে। নিহতদের লাশ এখন যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

নিহত ইউনুছ ঘুরুলিয়া গ্রামের লতিফ মিয়ার ছেলে ও নিহত নাহিদ শেখহাটি গ্রামের বাচ্চু শেখের ছেলে।
প্রতাক্ষদর্শি, পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, আজ রাত সাড় ৮ টার দিকে ইউছুপের ছোট ভাই ইউনুছের পারিবারিক কলহের কারনে হাতাহাতি হয়। এসময় ইউসুফ সে তার ভাই ইউনুছের বুকে ছুরিকাঘাত করে। হাসপাতালে আনার পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পৃথক রাত ৯ টার দিকে দূর্বৃত্ত্বরা পূর্ববারান্দী নাথপাড়া নদীর পাড়ে মাঠের মধ্যে নাহিদের গলায় ছুরিকাঘাত করে চলে যায়। নাহিদের গোংড়ানোর আওয়াজ পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এবং হাসপাতালে আনার পরে নাহিদের মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত ডাক্তার সালাউদ্দিন বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। মুলত ছুরিজাঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণে তারা মারা যায়। জানতে চাইলে কোতয়ালী থানার ওসি মো তাজুল ইসলাম বলেন, পৃথক দুটি ঘটনায়ই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

কি কারনে খুন হল পুলিশ বিষয়টি গভির ভাবে খতিয়ে দেখছে।