ঢাকা ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরাইলে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে বসত ঘর থেকে জোনাকি (১৪) নামে এক কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করেছে সরাইল থানা পুলিশ।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলা’র কালিকচ্ছ ইউনিয়নের বিশুতারা এলাকার ৯ নম্বর ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে।
নিহত কিশোরী জোনাকি বিশুতারা এলাকার ইট মিল শ্রমিক মোঃ আশেক মিয়ার মেয়ে। তিন বোনের মধ্যে জোনাকি ছিল সবার বড়।
নিহতের মা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার খোকন মিয়ার বখাটে ছেলে সিএনজি চালক মোঃ মাহিদুল (২০) প্রায়ই উত্যক্ত করতো কিশোরী জোনাকি কে। এই কারণে তিন মাস পূর্বে জোনাকি কে ঢাকায় পাঠিয়ে দেয় তার পরিবারের লোকজন। সম্প্রতি জোনাকি বাড়িতে আসলে মুহিদুল আবারও তাকে উত্যক্ত করতে থাকে। বিষয়টি তার মা এলাকার মুরুব্বি ও মাহিদুলের পরিবার কে জানায়। উল্টো জোনাকির মা হাদিছা বেগম কে শাসায় মাহিদুলের পরিবার।

কিশোরী জোনাকি’র মা হাদিছা বেগম বলেন, আজ সকালে সে কাজের উদ্যেশ্যে বেড়িয়ে পড়ে। দুপুরের পরে সে বাড়িতে আসতে গেলে তখন তার পথ আটকিয়ে মাহিদুলের পরিবারের লোকজন তাকে মারধর করে। পরে সে ঘরে এসে দেখে তার মেয়ের গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় ঝুলে আছে। আর মুহিদুল দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। পরে সে ঝুলানো অবস্থা থেকে মেয়েকে নিচে নামায়।

স্থানীয় মোঃ আবন মিয়া নামে একজন বলেন, আমার কাছে জোনাকির বাবা মা মাহিদুলের উত্যক্ত করার বিষয়টি জানান। আমি মাহিদুলের পরিবারকে জানালে তারা কোন রকম সারা না দিয়ে উল্টো পালটা কথা বলে। আজকে দুপুরে শুনতে পাই জোনাকি মারা গেছে। পরে সরাইল থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসলাম হোসেন ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, বসতঘর থেকে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে বিস্তারিত জানা যাবে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আপলোডকারীর তথ্য

সরাইলে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় ০৪:০০:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২৩

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে বসত ঘর থেকে জোনাকি (১৪) নামে এক কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করেছে সরাইল থানা পুলিশ।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলা’র কালিকচ্ছ ইউনিয়নের বিশুতারা এলাকার ৯ নম্বর ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে।
নিহত কিশোরী জোনাকি বিশুতারা এলাকার ইট মিল শ্রমিক মোঃ আশেক মিয়ার মেয়ে। তিন বোনের মধ্যে জোনাকি ছিল সবার বড়।
নিহতের মা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার খোকন মিয়ার বখাটে ছেলে সিএনজি চালক মোঃ মাহিদুল (২০) প্রায়ই উত্যক্ত করতো কিশোরী জোনাকি কে। এই কারণে তিন মাস পূর্বে জোনাকি কে ঢাকায় পাঠিয়ে দেয় তার পরিবারের লোকজন। সম্প্রতি জোনাকি বাড়িতে আসলে মুহিদুল আবারও তাকে উত্যক্ত করতে থাকে। বিষয়টি তার মা এলাকার মুরুব্বি ও মাহিদুলের পরিবার কে জানায়। উল্টো জোনাকির মা হাদিছা বেগম কে শাসায় মাহিদুলের পরিবার।

কিশোরী জোনাকি’র মা হাদিছা বেগম বলেন, আজ সকালে সে কাজের উদ্যেশ্যে বেড়িয়ে পড়ে। দুপুরের পরে সে বাড়িতে আসতে গেলে তখন তার পথ আটকিয়ে মাহিদুলের পরিবারের লোকজন তাকে মারধর করে। পরে সে ঘরে এসে দেখে তার মেয়ের গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় ঝুলে আছে। আর মুহিদুল দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। পরে সে ঝুলানো অবস্থা থেকে মেয়েকে নিচে নামায়।

স্থানীয় মোঃ আবন মিয়া নামে একজন বলেন, আমার কাছে জোনাকির বাবা মা মাহিদুলের উত্যক্ত করার বিষয়টি জানান। আমি মাহিদুলের পরিবারকে জানালে তারা কোন রকম সারা না দিয়ে উল্টো পালটা কথা বলে। আজকে দুপুরে শুনতে পাই জোনাকি মারা গেছে। পরে সরাইল থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসলাম হোসেন ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, বসতঘর থেকে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে বিস্তারিত জানা যাবে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।